যশোরে ছিনতাইয়ের অভিযোগে পুলিশ অফিসার রিমান্ডে

341
gb

বদরুদ্দিন বাবুল যশোর প্রতিনিধি :
ছিনতাইয়ের অভিযোগে রুজু হওয়া মামলায় যশোর কোতয়ালী থানাথেকে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত হওয়া এএসআই শাহ আলমকে দুইদিনের
পুলিশ হেফাজতে দিয়েছেন আদালত। দশ লাখ টাকা ছিনতাইয়েরঅভিযোগে রুজু হওয়া মামলায় পুলিশ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে।
গত ২৬ জানুয়ারি ডিবি পুলিশ তাকে আদালতে হাজির করে সাতদিনেররিমান্ড চেয়েছিল। আজ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের
বিচারক মো. শাহিনুর রহমান তাকে দুইদিনের হেফাজতে দেন। এই তথ্যনিশ্চিত করেছেন কোর্ট ইনসপেক্টর রেজাউল করিম।
এর আগে টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগে পুলিশ সদস্য ও কথিত একসোর্সের বিরুদ্ধে ঝিকরগাছা থানায় একটি মামলা হয়। ঘটনার দিনই
এএসআই শাহ আলমকে থানা থেকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে সংযুক্তকরা হয়।ঝিকরগাছা থানায় রুজু হওয়া মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব পান ডিবিপুলিশের এসআই আবুল খায়ের মোল্লা।প্রসঙ্গত, গত ১ জানুয়ারি বেনাপোলের রোশা এন্টারপ্রাইজ নামে
একটি প্রতিষ্ঠান গাড়িযোগে নগদ টাকা আনা হচ্ছিল যশোরেরদিকে। ঝিকরগাছার বেনেয়ালী এলাকায় সাদা পোশাকে থাকা কয়েকব্যক্তি গাড়িটি থামায়। তারা নিজেদের পুলিশ পরিচয় দিয়ে গাড়িতল্লাশি করেন। গাড়িতে থাকা ৩০ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের চেষ্টাও করেন
তারা। এর মধ্যে তারা দশ লাখ টাকার মতো ছিনতাই করতে সক্ষম হন বলেঅভিযোগ আনা হয়। এসময় পুলিশ পরিচয়দানকারী ও টাকা বহনকারিদেরমধ্যে বাকবিতন্ডা ও ধ¯স্তাধস্তি হয়।একপর্যায়ে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে সাদা পোশাকধারীদেরঘিরে ফেলে। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে কোতয়ালী থানার এএসআইশাহআলম টাকার একটি ব্যাগ নিয়ে মোটরসাইকেলযোগে দ্রæতঝিকরগাছার দিকে পালিয়ে যান। বাকি তিনজনকে স্থানীয়রা আটক করেঝিকরগাছা থানা পুলিশের হাতে তুলে দেন।