সাতক্ষীরায় স্মার্ট কার্ড দেয়ার নামে প্রায় ২৬ হাজার নারী-পুরুষের নামে রবি ও এয়ারটেল সিম তুলে নিয়েছে একটি প্রতারক চক্র

220
gb

এম.শাহীন গোলদার,সাতক্ষীরা প্রতিনিধি:
সাতক্ষীরায় স্মার্ট কার্ড দেয়ার নামে এক প্রতারক শ্যামনগর উপজেলারপদ্মপুকুর ও গাবুরা ইউনিয়নের কয়েক হাজার নারী-পুরুষের ন্যাশনালআইডি’র ফটো কপি ও ফিঙ্গার প্রিন্ট নিয়ে রবি ও এয়ারটেল কোম্পানিরপ্রায় ২৬ হাজার সিম উঠিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবারদুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেনপদ্মপুকুর ইউপির সাবেক মেম্বর চন্ডিপুর গ্রামের আব্দুল কাদের গাইনেরছেলে মোঃ শহিদুল ইসলাম।লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, গত বছরের অক্টোবর মাসের প্রথম দিকে শ্যামনগরউপজেলার চন্ডিপুর গ্রামের ওসমান গাজীর ছেলে মোঃ আনারুল ইসলামএলাকায় এসে জানায় যে, সে (আনারুল) পদ্মপুকুর ও গাবুরা ইউনিয়নেরন্যাশনাল আইডি’র স্মার্ট কার্ড বিতরণের দায়িত্ব পেয়েছে। এই স্মার্টকার্ড পেতে হলে প্রত্যেকের তার ন্যাশনাল আইডির একটি ফটো কপি ওফিঙ্গার প্রিন্ট দিতে হবে। ফলে স্মার্ট কার্ড পাওয়ার জন্য এলাকার নারী-পুরুষেররা তার কাছে আইডি’র ফটো কপি ও ফিঙ্গার প্রিন্ট দিতে শুরুকরে। এভাবে প্রতারনার মাধ্যমে আনারুল গ্রামের সহজ সরল লোকদের বিশেষকরে নারীদের ভুল বুঝিয়ে অক্টোবর থেকে ডিসেম্বরের শেষ পর্যন্ত তার পরিবারেরসদস্যসহ পদ্মপুকুর ও গাবুরা ইউনিয়নের কয়েক হাজার নারী-পুরুষের কাছ
থেকে আইডি’র ফটো কপি ও ফিঙ্গার প্রিন্ট নিয়ে চলে যায়।তিনি অভিযোগ করে বলেন, চলতি বছরের জানুয়ারীর প্রথম সপ্তাহ থেকে ওই
দুই ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের নারী-পুরুষের মোবাইলে রবি ও এয়ারটেলকোম্পানির একাধিক সিম রেজিস্ট্রেশনের মেসিজ আসতে শুরু করে।খোঁজ নিয়ে তারা জানতে পারেন যে, তাদের নামে রবি ও এয়ারটেলকোম্পানির একাধিক সিম রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে। এভাবে এলাকারবিলকিস বেগম, মাসুদা খাতুন, কমলা পারভীন, কহিনুর বেগম, লাইলিবেগম, আসমা খাতুন ও হাশেম আলীর নামে ৬টি করে,শাহিদা খাতুন,মমতাজ বেগম, ফতেমা খাতুন, কুসুম, নুর মোহাম্মাদ, মোকাররম বিল্লাহ,রুহুল আমিন, রাশেদ আলী, আমানউল্লাহ ও মোস্তাফা কামালের নামে ৪টিকরে, আয়শা খাতুনের নামে ২টি, পরি বানুর নামে ৩টি এবং নজরুলইসলামের নামে ৩টি সিম উত্তোলন করা হয়েছে। এভাবে প্রতারক আনারুওই দুই ইউনিয়নের কয়েক হাজার নারী-পুরুষের নামে হাজার হাজার সিমউত্তোলন করেছে।শহিদুল ইসলাম আরো বলেন, বিষয়টি জানার পর তিনি খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন যে, ঢাকার আমেনা টেলিকম নামের একটি এজেন্সি থেকে সাতক্ষীরারশ্যামনগর উপজেলার পদ্মপুকুর ও গাবুরা ইউনিয়নের কয়েক হাজার নারী-পুরুষের নামে ২৬ হাজার রবি ও এয়ারটেল সিম উত্তোলন করা হয়েছে। এইসিম ব্যবহার করে ওই প্রতারক চক্র বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজ করতে পারে ভেবেগত ১৮ জানুয়ারী তিনি নিজে বাদি হয়ে প্রতারক আনারুল ইসলামেরনামে শ্যামনগর থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করেন।তিনি পদ্মপুকুর ও গাবুরা ইউনিয়নের নারী-পুরুষের নামে রেজিস্ট্রেশনকৃতরবি ও এয়ারটেল সিম বাতিল পূর্বক প্রতারক আনারুলসহ ঘটনার সাথেজড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।