রাখাইনের উন্নয়নে আড়াই কোটি মার্কিন ডলার দেবে ভারত

450
gb

জিবিনিউজ24 ডেস্ক:মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে আগামী পাঁচ বছরে আড়াই কোটি মার্কিন ডলার দেবে ভারত। রাখাইন রাজ্যে স্থিতিশীলতা পুন:প্রতিষ্ঠা এবং রোহিঙ্গাদের ফিরে যাওয়ার অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টিতে সহায়তা করতে ভারত এ অর্থ দেবে।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রবিশ কুমার গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নয়াদিল্লিতে এক ব্রিফিংয়ে এ কথা জানান।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গত বুধবার ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের রাজধানী কলকাতা সফরের সময় অভিযোগ করেছেন, রোহিঙ্গাদের নিয়ে পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই ষড়যন্ত্র করছে। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ব্রিফিংয়ে একজন সাংবাদিক ওবায়দুল কাদেরের ওই বক্তব্যের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। তবে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র এ বিষয়ে সরাসরি কোনো মন্তব্য করেননি।

পাকিস্তানের জঙ্গি গোষ্ঠী লস্কর-ই-তৈয়বার প্রতিষ্ঠাতা হাফিজ সাঈদ গত ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের বিজয় দিবসে ঘোষণা দিয়েছেন, কাশ্মিরকে ভারত থেকে স্বাধীন করে তারা বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রতিশোধ নেবেন। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, চিহ্নিত সন্ত্রাসী হাফিজ সাঈদ মুম্বাই হামলাসহ অনেক হামলার হোতা। তার বক্তব্যকে ভারত গুরুত্ব দিচ্ছে না।

মুখপাত্র রবিশ কুমার বলেন, ভারতের পররাষ্ট্র সচিব ড. এস জয়শঙ্কর গত বুধবার মিয়ানমার সফরে গিয়ে সংশ্লিষ্ট সব বিষয়েই আলোচনা করেছেন। রাখাইন রাজ্যে স্বাভাবিকতা ফেরানোর লক্ষ্যে এবং বাস্তুচ্যুত ব্যক্তিদের ফেরাতে মিয়ানমারকে ভারত কীভাবে সহযোগিতা করতে পারে সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

মুখপাত্র বলেন, এই প্রক্রিয়ায় সহায়ক মিয়ানমারের যে কোনো প্রচেষ্টা এবং যে কোনো দেশের সঙ্গে মিয়ানমারের আলোচনাকে ভারত স্বাগত জানায়।

মিয়ানমার সব রোহিঙ্গাকে ফিরে যাওয়ার অঙ্গীকার করেছে কি না জানতে চাইলে মুখপাত্র বলেন, মিয়ানমার বলেছে যে বাস্তুচ্যুত হয়ে দেশের বাইরে চলে আসা ব্যক্তিদের তারা ফিরিয়ে নেবে। এ লক্ষ্যে বাংলাদেশের সঙ্গে মিয়ানমারের আলোচনা চলছে।

ভারত মিয়ানমারকে যে আড়াই কোটি ডলার দেবে তা ঋণ না উন্নয়ন সহযোগিতা? জানতে চাইলে ভারতীয় মুখপাত্র বলেন, খোঁজ নিয়ে তিনি এ বিষয়ে পরে জানাবেন।

উল্লেখ্য, গত বুধবার ভারতের পররাষ্ট্র সচিবের মিয়ানমার সফরে দুই দেশ একটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই হয়েছে। এর আওতায় ভারত মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের বাস্তুচ্যুত জনগোষ্ঠীর জন্য ‘প্রিফেব্রিকেটেড বাড়ি’ বানাবে ভারত। এ ছাড়া ভারত ওই রাজ্যের জীবিকা ও আর্থ সামাজিক অগ্রগতিতে গুরুত্ব দিয়ে আরো কিছু কর্মসূচি গ্রহণ করবে। ভারতের পররাষ্ট্র সচিব মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি ও সশস্ত্র বাহিনী প্রধান সিনিয়র জেনারেল অং মিনের সঙ্গেও বৈঠক করেছেন।