”আলোয় আলো” প্রকল্পের আওতায় কোভিড ১৯ এ ক্ষতিগ্রস্ত চাবাগান ও হাওড় এলাকায় ৯ হাজার ২৬৯টি পরিবারের মাঝে জরুরী খাদ্য ও স্বাস্থ্যসুরক্ষা সামগ্রী বিতরন

4
gb

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি ॥

চাইল্ডফান্ড কোরিয়ার অর্থায়নে এডুকো-বাংলাদেশের সহযোগিতায় ‘আলোয় আলো’ প্রকল্পের আওতায় বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ব্রেকিং দ্য সাইলেন্স (বিটিএস) কোভিড-১৯ জরুরী সহায়তা কার্যক্রম ‘ইমার্জেন্সি ক্যাশ/ফুড এন্ড হাইজিন মেটেরিয়াল সাপোর্ট ফর দ্য কোভিড-১৯ এফেকটেড মোস্ট ভালনারেবল চিলড্রেন এন্ড কমিনিউটি ইন বাংলাদেশ’ মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলার চা-শ্রমিক অধ্যুষিত মাজদিহি চা বাগানে ৫২৭টি দরিদ্র পরিবারের মাঝে জরুরী সুরক্ষা সামগ্রী বিতরনের মধ্য দিয়ে শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জ উপজেলায় কোভিড ১৯ এ ক্ষতিগ্রস্ত মোট ৯ হাজার ২শত ৬৯টি পরিবারে জরুরী খাদ্য ও স্বাস্থ্যসুরক্ষা সামগ্রী বিতরন সম্পন্ন করে। জরুরী খাদ্য সহায়তার মধ্যে রয়েছে ১০ কেজি চাল, ২ কেজি মসুর ডাল,১ লিঃ সয়াবিন তেল, ৩ কেজি আলু, ১ কেজি আয়োডিনযুক্ত লবন ও ১ কেজি চিনি। এছাড়াও, স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে- ঢাকনা ও পানির ট্যাপযুক্ত ১২লি. এর বালতি, ভালোমানের ২টি করে হাত ধোয়ার সাবান , ডিটারজেন্ট পাউডার ও ২টি করে রিইউজেবল মাস্ক। বিতরণকার্য সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব নজরুল ইসলাম। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান জনাব মুজিবুর রহমান, মাজদিহি চা বাগানের ব্যবস্থাপক শ্রীমান কুমার বড়ুয়া, সহকারী ব্যবস্থাপক জনাব সাইফুল ইসলাম, আলোয় আলো ব্রেকিং দ্য সাইলেন্স প্রজেক্ট কোর্ডিনেটর চাঁদনী রায়, প্রজেক্ট অফিসার রুবাইয়াৎ ফেরদৌস, সাইফুর রহমান, ইউনিয়ন মেম্বার অমৃত সিং ছত্রী এবং মাজদিহি বাগান প ায়েত সভাপতি সাধন কর্মকার। প্রধান অতিথির বক্তব্যে জনাব নজরুল ইসলাম আলোয় আলো প্রকল্পের আওতায় চা বাগান ও হাওড়ের বিপুল সংখ্যক সুবিধাভোগী দরিদ্র পরিবারকে সুশৃংখলভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে জরুরী খাদ্য ও সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান করায় ব্রেকিং দ্য সাইলেন্স এর ভূয়সী প্রশংসা করেন। এছাড়াও তিনি বৈশ্বিক মহামারীর দূর্যোগকালে চা বাগান ও হাওড়ের পিছিয়েপড়া জনগোষ্ঠীর সহায়তায় হাত বাড়ানোর জন্য চাইল্ডফান্ড কোরিয়া ও এডুকো-বাংলাদেশকে ধন্যবাদ জানান। প্রজেক্ট কোর্ডিনেটর চাঁদনী রায় বলেন যে, ”এখানে আমরা একটি মহৎ উদ্দ্যেশ্যে একত্রিত হয়েছি তাই এখানে মাস্ক পরে আসা, এসে হাত ধোয়া ও সামাজিক দুরত্ব রক্ষা করে দাড়ানোসহ বিভিন্ন সুরক্ষাবিধির উপর আমরা ব্যাপকহারে গুরুত্ব দিচ্ছি। আমরা চাইনা আমাদেরই ছোট্ট কোন অবহেলার কারনে এই মহৎ উদ্দেশ্য আমাদেরই কারো জীবনে হিতে বিপরীত ডেকে আনুক। করোনাকালীন এই দূর্যোগময় পরিস্থিতিতেও ‘আলোয় আলো’ প্রকল্পের পাশে থেকে কার্যক্রমের ধারা অব্যাহত রাখার জন্য উপস্থিত সকল অংশীজনের উদ্দেশে তিনি ধন্যবাদ এবং আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করন।

বিগত ২৩ জুলাই শ্রীমঙ্গল উপজেলার কালীঘাট ইউনিয়নের জাগছড়া চা বাগানে দরিদ্র চা শ্রমিকের হাতে ব্রেকিং দ্য সাইলেন্সের পক্ষ হতে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরন করেন মৌলভীবাজার জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব ও শিক্ষা) জনাব মল্লিকা দে। ব্রেকিং দ্য সাইলেন্স এ পর্যন্ত ভাড়াউড়া, খাইছড়া, জাগছড়া ও মাজদিহি চা বাগানে মোট ২০০০ টি দরিদ্র পরিবারে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী এবং হাইল হাওড়ে ১৩৩ টি জেলে পরিবারে জরুরী খাদ্য ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করে।

প্রকল্পের আওতায় শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জ-এ এডুকোর আরো তিনটি সহযোগী সংস্থা ইন্সটিটিউট অফ ডেভেলপমেন্ট এফেয়ার্স (আইডিয়া), মাল্টিপারপাস সোশিও ইকোনমিক ডেভেলপয়েন্ট এসোশিয়েশন (এমসিডা) ও প্রচেষ্টা-এর মাধ্যমে দুটি উপজেলার ২০টি চা বাগান ও ২টি হাওর এলাকায় পর্যায়ক্রমে ৯ হাজার ২৬৯টি পরিবারের মধ্যে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী ও জরুরী খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। বিশেষভাবে উল্লেখ্য যে ”আলোয় আলো” কর্মসুচীর জোরদার সুরক্ষাবিধি মেনে বিপুলসংখ্যক সুবিধাভোগীর মাঝে বিতরণ কার্য সম্পাদনের বিষয়টি জেলা ও উপজেলা প্রশাসনসহ উপস্থিত সকলেরই নজর কাড়ে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের অগাস্ট মাস হতে চাইল্ডফান্ড কোরিয়ার অর্থায়নে এডুকো-বাংলাদেশের সহযোগিতায় ‘আলোয় আলো’ প্রকল্পটি ৪টি সহযোগী সংস্থা ব্রেকিং দ্য সাইলেন্স, আইডিয়া, এমসিডা ও প্রচেষ্টা-এর মাধ্যমে শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জ উপজেলার ৩০টি চা বাগান ও ২টি হাওর এলাকায় পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জীবনমাণ উন্নয়নের লক্ষ্যে সার্বিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে।