ক্যাপ্টেন শেখ কামালের ৭১তম জন্মদিনে বিনম্র শ্রদ্ধা জানালেন মকিস মনসুর

9
gb

রুবেল আহমেদ || মৌলভীবাজার সদর প্রতিনিধিঃ- মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, রাজনীতিবিদ, ক্রীড়া সংগঠক, ক্যাপ্টেন শেখ কামালের ৭১তম জন্মদিনে বিনম্র শ্রদ্ধা জানালেন ৯০ এর গন-আন্দোলনের বাংলাদেশের সাবেক ছাত্রনেতা বৃটেনের কমিউনিটি লিডার ও সাংবাদিক মোহাম্মদ মকিস মনসুর।

মানুষ তাঁর কর্মগুণে আজীবন বেঁচে থাকতে পারে মানুষের হৃদয়ে। বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর জলন্ত উদাহরণ। যতদিন বাংলাদেশ, বাংলার মানচিত্র, বাংলা ভাষা, বাংলার লাল বৃত্ত, সবুজ পতাকা গৌরবে উড়বে বাঙ্গালী জাতি বেঁচে থাকবে ততদিন মানুষের হৃদয়ে। প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম অবধি বেঁচে থাকবেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আজ ৫ই আগষ্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জ্যেষ্ঠ পুত্র শেখ কামাল গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গীপাড়া গ্রামে ১৯৪৯ সালের ৫ আগস্ট জন্মগ্রহণ করেন।

দূ্র্ভাগ্য বাঙ্গালি জাতির ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট মানবতার শত্রু ঘৃণ্য ঘাতকদের নির্মম বুলেটের আঘাতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ গোটা পরিবারের সঙ্গে নরপিশাচরা নিষ্ঠুরভাবে তাঁকে ও হত্যা করেছিল। তিনি বেঁচে থাকলে একজন অলরাউন্ডার হিসাবে বাংলাদেশের রাজনীতি, সংস্কৃতি,অর্থনীতিতে আমূল পরিবর্তন সূচিত হতো। বোন প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলার আলোর মিছিলকে এগিয়ে নিতে বাংলাদেশের উন্নয়নে তিনি বিরাট ভূমিকা রাখতে পারতেন। উনার জীবন ও কর্ম নিয়ে বিভিন্ন জনের লেখা থেকে জানা যায় যিনি মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক হিসেবে ছাত্রসমাজকে সংগঠিত করে হাতিয়ার তুলে নিয়ে দেশমাতৃকার মুক্তির যুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন। মুক্তিবাহিনীর প্রধান সেনাপতি জেনারেল ওসমানীর এডিসি ছিলেন শেখ কামাল। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলকে সংগঠিত করেন।

মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তার আশাবাদ ছিল, দেশ স্বাধীন হলে বাংলাদেশের ক্রীড়াক্ষেত্রের ছবিটাই পাল্টে দেবেন এবং দেশকে অনন্য উচ্চতায় আসীন করবেন। মুক্তিযুদ্ধে বিজয় অর্জনের পর ধ্বংসস্তূপে পরিণত হওয়া দেশ পুনর্গঠনে নিজের অসামান্য মেধা ও অক্লান্ত কর্মক্ষমতা নিয়ে জাতির পিতার আদর্শ বুকে ধারণ করে ঝাঁপিয়ে পড়েন শেখ কামাল।
মুক্তিযুদ্ধের পর তিনি সেনাবাহিনী ত্যাগ করেন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরে যান। সেখান থেকে সমাজবিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন।

স্বাধীন বাংলাদেশের ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক আন্দোলনে শেখ কামালের অবদান অনস্বীকার্য। তিনি ছায়ানট থেকে সেতার শিক্ষার তালিম নেন। পড়াশোনা, সঙ্গীতচর্চা, অভিনয়, বিতর্ক, উপস্থিত বক্তৃতা থেকে শুরু করে বাংলা ও বাঙালির সংস্কৃতিকে বিশ্বদরবারে তুলে ধরবার চেষ্টায় সদা-সর্বদা নিয়োজিত ছিলেন শেখ কামাল। অধ্যয়নের পাশাপাশি সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডল তার পদচারণায় ছিল মুখর। স্বাধীনতার পর শেখ কামাল তার বন্ধুদের সহযোগে প্রতিষ্ঠা করেন নাট্যদল ‘ঢাকা থিয়েটার’ এবং আধুনিক সঙ্গীত সংগঠন ‘স্পন্দন শিল্পী গোষ্ঠী’। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যাঙ্গনে তিনি ছিলেন সুপরিচিত সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া সংগঠক এবং অভিনেতা।

আবাহনী ক্রীড়াচক্র প্রতিষ্ঠার জন্য তিনি দেশের ক্রীড়াজগতে স্মরণীয় হয়ে আছেন। ‘স্পন্দন শিল্পীগোষ্ঠী’র প্রতিষ্ঠাও তাকে অমরত্ব দান করেছে। প্রকৃতপক্ষে শেখ কামাল ছিলেন একজন ক্রীড়া ও সংস্কৃতিমনা সুকুমার মনেবৃত্তির মানুষ। তিনি কখনও ব্যবসায়িক কার্যকলাপে জড়িত হননি, অনর্থক ছোটেননি অর্থের পেছনে।
শাহীন স্কুলের ছাত্র থাকাকালে স্কুলের প্রতিটি খেলায় তিনি ছিলেন অপরিহার্য। এর মধ্যে ক্রিকেট ছিল তার প্রিয়। তৎকালের অন্যতম উদীয়মান পেসার ছিলেন। ‘আজাদ বয়েজ ক্লাব’ তখন কামালদের মতো উঠতি প্রতিভাদের আশ্রয়স্থল। এখানেই শেখ কামাল প্রথম বিভাগ ক্রিকেট খেলেছেন দীর্ঘদিন। দেশ স্বাধীনের পর ’৭২-এ ‘আবাহনী সমাজকল্যাণ সংস্থা’ প্রতিষ্ঠা করেন। এই সংস্থার নামে সংগঠিত করেন ফুটবল দল ‘ইকবাল স্পোর্টিং’, আর ক্রিকেট, হকির দল ‘ইস্পাহানী স্পোর্টিং’। পরে এসব দলের সমবায়ে নবোদ্যমে যাত্রা শুরু করে ‘আবাহনী ক্রীড়া চক্র’।

ফুটবল, ক্রিকেট, হকি এই খেলাগুলোতে বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন ছিল কামালের। তার স্বপ্ন ছিল একদিন আন্তর্জাতিক ক্রীড়াঙ্গনে বাংলাদেশ হবে অপরাজেয় অপ্রতিদ্বন্দ্বী ক্রীড়াশক্তি। সত্যিই সে বেঁচে থাকলে সেটা সম্ভব ছিল। স্বপ্ন তার দৃষ্টিসীমা ছাড়িয়ে বিস্তৃত হয়েছিল বহুদূর অবধি। ফুটবলের উন্নতির জন্য ’৭৩-এ আবাহনীতে বিদেশি কোচ বিল হার্টকে নিযুক্ত করেন।যোগ্যতা, দক্ষতা আর দেশপ্রেমের অসামান্য স্ফূরণে শেখ কামাল অল্প দিনেই বদলে দিয়েছিলেন সদ্য স্বাধীন একটা দেশের ক্রীড়া ক্ষেত্র। শুধু ক্রীড়াই নয়, শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতির সব শাখাতেই ছিল অসামান্য সংগঠকের ভূমিকা।

মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, রাজনীতিবিদ, ক্রীড়া সংগঠক, ক্যাপ্টেন শেখ কামালের ৭১তম জন্মদিনে বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলী জানিয়ে
দেশের জনগণকে ঐক্যবদ্ধভাবে দাঁড়াতে হবে মানণীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার পাশে। জনকল্যাণে তিনি নিজেকে সমর্পণ করেছেন। তার ভাবনার জগৎজুড়ে শুধুই দেশের জনগণ। অতিসম্প্রতি জাতীয় সংসদে আলোচনায় অংশ নিয়ে করোনার যুদ্ধের বাংলাদেশের প্রধান সেনাপতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, করোনার সময় অনেক দেশ বাজেট দিতে পারছে না। কিন্তু আমরা একদিকে যেমন করোনা মোকাবিলা করবো, পাশাপাশি আমরা দেশের মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা নিশ্চিত করবো। তারা যেন কষ্ট না পায় সেজন্য যা যা করণীয় করে যাবো। আমি তো এখানে বেঁচে থাকার জন্য আসিনি। আমি তো জীবনটা বাংলার মানুষের জন্য বিলিয়ে দিতে এসেছি, এটাতে তো ভয় পাওয়ার কিছু নেই। ভয়ের কী আছে !

প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনাভাইরাসে মরি, গুলি খেয়ে মরি, অসুস্থ হয়ে মরি, মরতে তো একদিন হবেই। এই মৃত্যু যখন অবধারিত সেটাতে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। আমি ভয় পাইনি। কখনো ভয় পাবো না। আমি যখন বাংলাদেশে ফিরে আসি, সেটা ছিল সেই বাংলাদেশ, যেখানে আমার বাবা, ভাই, বোন, শিশু ভাইটিকে পর্যন্ত হত্যা করা হয়েছিল। আমাদের পরিবারের বহুজনের সদস্য বুলেটবিদ্ধ, আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মী বুলেটবিদ্ধ বা স্প্লিন্টার নিয়ে বেঁচে আছেন।তিনি বলেন, আল্লাহ জীবন দিয়েছেন, একদিন সে জীবন নিয়ে যাবেন। আর আল্লাহ মানুষকে কিছু কাজ দেন। সেই কাজটুকু যতক্ষণ পর্যন্ত শেষ না হবে ততক্ষণ হয়তো আমি কাজ করে যাব। যখন কাজ শেষ হয়ে যাবে, সময় শেষ হবে, তখন আমি চলে যাব। তাই এই নিয়ে চিন্তার কিছু নেই।
করোনা ভাইরাসের মহামারী ও ঘূর্ণিঝড়ের মত প্রাকৃতিক দুর্যোগে শক্ত হাতে পরিস্থিতি সামাল দিচ্ছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় থাকা চতুর্থ বারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অস্বাভাবিক এই পরিস্থিতিতে সামগ্রিক দিক সামলাতে গণভবন থেকেই প্রধানমন্ত্রী চালিয়ে যাচ্ছেন সার্বিক দাপ্তরিক কর্মকান্ড। তাঁর নজরদারিতে বাদ যায়নি চিকিৎসকের সুরক্ষা নিশ্চিতসহ শ্রমজীবী মানুষের খাদ্য সংকট মেটানো পর্যন্ত।

করোনা ও ঘূর্ণিঝড়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দরিদ্র মানুষের হাতে খাবার পৌঁছে দেয়াসহ অর্থর্নীতির ক্ষতি পুনরুদ্ধারে পদক্ষেপ নিয়েছেন। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মাঠ প্রশাসনের খোঁজ-খবর নেয়া যাবতীয় কর্মকান্ড নিজেই তদারকি করছেন। অসহায়দের কাছে ত্রাণসহ সরকারি সহযোগিতা পৌঁছে দিতে নির্দেশ দেন প্রশাসন ও দলীয় নেতা-কর্মীদের। অনিয়মের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যেই দিয়েছেন কঠোর হুঁশিয়ারি।
পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত জনগণের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি নিয়ে কাজ করছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আসুন আজকের এই দিনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে পরম করুণাময়ের নিকট প্রার্থনা করা সহ আমাদের সবার হোক দীপ্ত শপথ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলার আলোর মিছিলকে এগিয়ে নিতে মানণীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করে যাবো জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু,জয় শেখ হাসিনা।বাংলাদেশ চিরজীবী হোক,জয় হোক মানবতার।