আরও ৫ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগ দিচ্ছে সরকার

26
gb

জিবিনিউজ 24 ডেস্ক //

করোনা সংকট মোকাবিলায় আরও দুই হাজার চিকিৎসক এবং তিন হাজার মেডিকেল টেকনোলজিস্ট, টেকনিশিয়ান ও রেডিওগ্রাফার নিয়োগ দিচ্ছে সরকার। এনিয়ে একমাসের মধ্যেই দেশে রেকর্ড সংখ্যক ১০ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগ করা হচ্ছে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মিডিয়া সেলের প্রধান অতিরিক্ত সচিব হাবিবুর রহমান খান এই তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, তিন হাজার মেডিকেল টেকনোলজিস্ট, টেকনিশিয়ান ও রেডিওগ্রাফার নিয়োগের কাজ শুরু হয়েছে।

এর আগে স্বাস্থ্যকর্মী সংকট মোকাবেলায় গত ৪ মে দুই হাজার চিকিৎসক এবং ৭ মে পাঁচ হাজার ৫৪ নার্স নিয়োগ দেয় সরকার।

অতিরিক্ত সচিব হাবিবুর রহমান খান বলেন, তিন হাজার মেডিকেল টেকনোলজিস্ট, টেকনিশিয়ান ও রেডিওগ্রাফার নিয়োগ দেওয়ার জন্য আমরা ঈদের মধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন পেয়েছি। এখন দ্রুততার ভিত্তিতে তাদের নিয়োগ প্রক্রিয়ার কাজ চলছে। সব মিলিয়ে এক মাসের মধ্যেই ডাক্তার, নার্স, টেকনিশিয়ানসহ ১০ হাজারের বেশি স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগের রেকর্ড হবে, যা আগে কখনোই হয়নি। নতুন নিয়োগ পেতে যাওয়া স্বাস্থ্যকর্মীদের বিষয়ে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান খান বলেন, এদের মধ্যে ১২০০ টেকনোলজিস্ট, ১৬৫০ টেকনিশিয়ান ও ১৫০ জন রেডিওগ্রাফার।

যতদিন মহামারী থাকবে ততদিন এরা কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসায় নিয়োজিত থাকার পর মহামারী কেটে গেলে বিভিন্ন হাসপাতাল ও ল্যাবে তাদের পদায়ন করা হবে বলে জানান তিনি।

স্বাস্থ্যকর্মীদের নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পর্কে সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের বিষয়টা ইতোমধ্যেই আমরা স্বাস্থ্য বিভাগকে জানিয়ে দিয়েছি। এখানে স্বাস্থ্য, জনপ্রশাসন, অর্থসহ বেশ কয়েকটি মন্ত্রণালয় জড়িত। এদের মধ্যে সমন্বয় করে কীভাবে দ্রুত নিয়োগ দেওয়া যায় সেটা নিয়ে আলোচনা চলছে। এদিকে বাংলাদেশের ইতিহাসে এত কম সময়ে এটাই রেকর্ড সংখ্যক নিয়োগ দেয়া হল বলে জানান হাবিবুর রহমান খান। তিনি বলেন, এর আগে ২০১৪ সালে ৬৩০০ চিকিৎসক নিয়োগ দেয় সরকার। গত ডিসেম্বরে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল পৌনে পাঁচ হাজারের মতো চিকিৎসক। বিসিএসের মাধ্যমে প্রতিবছর ২০০ থেকে ৪০০ এর মতো ডাক্তার নিয়োগ দেওয়া হয়। ২০১৪ সালে ৩৩তম বিসিএসের মাধ্যমে ৬৩০০ ডাক্তার নিয়োগ দেওয়া হয়।

জানা যায়, ৩৯তম (বিশেষ) বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েও যারা নিয়োগ পাননি তাদের মধ্য থেকে দুই হাজার চিকিৎসককে বিসিএস (স্বাস্থ্য) ক্যাডারে সহকারী সার্জন পদে নিয়োগের জন্য গত ৩০ এপ্রিল সুপারিশ করে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। এছাড়া ৫ হাজার ৫৪ জনকে সিনিয়র স্টাফ নার্স পদে নিয়োগের সুপারিশ করা হয়।

এরপর এক সপ্তাহের মাথায় এদের নিয়োগ সম্পন্ন হওয়ার পর কাজে যোগ দিয়েছেন তারা। কোভিড-১৯ চিকিৎসার জন্য তাদের বিভিন্ন হাসপাতালে পদায়ন করা হয়েছে।

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন তবে আপনি চাইলে অপ্ট-আউট করতে পারেন Accept আরও পড়ুন