ডিভোর্স নিয়ে যা বললেন অপূর্ব

45
gb
5

জিবিনিউজ 24 ডেস্ক //

বনিবনা না হওয়ায় ভেঙে গেছে অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব-নাজিয়ার ৯ বছরের সংসার। রোববার (১৭ মে) বিকেলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সংসার ভাঙার খবর নিশ্চিত করেছেন নাজিয়া হাসান অদিতি। বিয়ে বিচ্ছেদ প্রসঙ্গে অপূর্বর সাথে যোগাযোগ করলেও তাকে পাওয়া যায়নি। অবশেষে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রোববার দিনগত রাতে একটি স্ট্যাটাস দিয়ে বিচ্ছেদ প্রসঙ্গ তুলে ধরেন।

আর স্ট্যাটাসে গণমাধ্যমকে হুঁশিয়ার করলেন অপূর্ব। স্পষ্ট ভাষায় তিনি বললেন, ‘তৃতীয় কাউকে জড়িয়ে কোনও ধরনের ভুল সংবাদ প্রকাশ করলে আমি তাদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ব্যবস্থা নেবো।’

বলে রাখা দরকার, অপূর্ব-অদিতির বিচ্ছেদের কারণ হিসেবে একজন অভিনেত্রীর নাম ভেসে বেড়াচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। এবং দেশের বেশ ক’টি সংবাদমাধ্যমেও খবরটি এসেছে। মূলত সেই খবরের সূত্র ধরেই সোমবার (১৮ মে) রাত ২টার দিকে এই হুঁশিয়ারি দেন সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় টিভি অভিনেতা অপূর্ব।

নিজের ফেসবুক ওয়ালে দেওয়া ওই বক্তব্যে অপূর্ব বলেন, ‘ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে গসিপ করা এবং তির্যক, মিথ্যা, বানোয়াট মন্তব্য করে কারও কষ্ট বাড়িয়ে দেওয়ার মতো খারাপ কাজগুলো থেকে সবাই বিরত থাকবেন। এবং রসালো কোনও গল্প তৈরি করে সংবাদ করার চেষ্টা করবেন না, প্লিজ।’
অদিতি সম্পর্কে বলেন, ‘অত্যন্ত সম্মানের সাথে জানাচ্ছি, আমি এবং আমার স্ত্রী অদিতি অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ সমাধানের মধ্যদিয়ে সম্পর্কের আইনগত ইতি টেনেছি। কোনও সংবাদমাধ্যম এই ব্যাপারটাতে তৃতীয় কাউকে জড়িয়ে কোনও ধরণের ভুল সংবাদ প্রকাশ করলে আমি তাদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ব্যবস্থা নেবো। এরমধ্যে প্রকাশিত কিছু সংবাদের লিংক আমি সংগ্রহ করেছি।’

অপূর্ব অদিতির প্রসঙ্গ টেনে আরও বলেন, ‘আমি অদিতিকে সম্মান করি এবং আজীবন করবো। সুতরাং কোনোভাবেই অদিতিকে অসম্মান করে তার পাশে অন্য কারও নাম আমি সহ্য করবো না। ভুলে যাবেন না, অদিতি এখন আইনগত ভাবে আমার স্ত্রী না থাকলেও সে আমার সন্তানের মা।’ ১৭ মে সন্ধ্যায় অদিতি হাসান তার ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন, ‌‘আমাকে ভাবি বলা সবাই বন্ধ করুন।’ এবং রিলেশনশিপ স্ট্যাটাসে যোগ করেন, ‘ডিভোর্সড’।

এমন ঘটনার দুই ঘণ্টার মাথায় পুরো বিষয়টি নিয়ে মুখ খুললেন নাজিয়া হাসান অদিতি। বললেন বিস্তারিত। যার পুরোটাজুড়েই ছিল অভিনেতা অপূর্বকে ঘিরে। এরপর একইভাবে নিজেদের বিচ্ছেদ প্রসঙ্গে পোস্ট দেন অপূর্ব।

ফেসবুকে অপূর্ব লেখেন, আমাদের যাত্রাটি ছিল দুর্দান্ত। আমরা নয় বছর একে অপরের সবকিছু ভাগ করে নিয়েছি। বিচ্ছেদটা আমাকে কিছুটা হতবাক করে দিয়েছে। যদিও আমরা নিজের জন্য চেয়েছিলাম। তবে দুঃখের বিষয় এখানেই আজ আমাদের জীবন এনে দিয়েছে। এত বছর যাবত আমরা এক সাথে ছিলাম, সে সর্বদায় এই বছরগুলো আমার দুর্দান্ত অংশীদার এবং সত্যিকারের শুভাকাঙ্ক্ষী ছিলো। আমার অনেক সাফল্যের পেছনে মূল ভূমিকা পালন করেছে। সে সত্যিই একজন আশ্চর্য ব্যক্তি, একজন আত্মবিশ্বাসী উদ্যোক্তা এবং সর্বোপরি অত্যন্ত দয়ালু এবং মানবিক ব্যক্তি।

তিনি আরো লেখেন, আমার ক্যারিয়ারের অনেক অর্জন। তবুও আমার সর্বকালের সবচেয়ে বড় অর্জন সর্বদা থাকবে- আমাদের ছেলে আয়াশ। পিতৃত্বের এই দুর্দান্ত উপহারের জন্য আমি নাজিয়াকে পর্যাপ্ত পরিমাণে ধন্যবাদ জানাতে পারব না। তিনি আমার সন্তানের অনুকরণীয় মা হয়েছেন এবং আমাদের ছেলের প্রতিপালনের অংশীদার হিসাবে আমাদের যাত্রা সর্বদা অব্যাহত থাকবে।

সহকর্মী ভক্তদের উদ্দেশে তিনি লেখেন, বিয়ের মতো বিষয়টি ভয়ঙ্কর, বিয়ে ভেঙে যাওয়ায় অনেক প্রশ্ন। সবাইকে অনুরোধ করব আমাদের জন্য আপনারা দোয়া করবেন, আমি এবং নাজিয়া যেন কঠিন সময়গুলো পার করতে পারি। দয়া করে আমাদের তিনজনকেই আপনারা দোয়া করবেন। আপনাকে সকলকে ধন্যবাদ এবং আল্লাহ আমাদের সকলকে মঙ্গল করুন।

এর আগে, অভিনেত্রী সাদিয়া জাহান প্রভাকে ২০১০ সালের ১৮ আগস্ট ভালোবেসে বিয়ে করেন অপূর্ব। তাদের সেই বিয়ে নিয়ে তুমুল আলোচনা তৈরি হয়। তবে বিয়ে মাত্র এক মাসের মধ্যে তাদের সম্পর্কে ফাটল ধরে। ২০১১ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি প্রভার সঙ্গে তার বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। এরপর অপূর্ব একই বছরের ২১ ডিসেম্বর নাজিয়া হাসান অদিতিকে বিয়ে করেছিলেন।

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন তবে আপনি চাইলে অপ্ট-আউট করতে পারেন Accept আরও পড়ুন