ক্যান্সারের চিকিৎসা গবেষণায় প্রতিরোধক আবিস্কার

94
gb

ক্যান্সারের চিকিৎসা গবেষণায় কার্ডিফ বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি দল ল্যাব পরীক্ষায় প্রস্টেট, স্তন, ফুসফুস এবং অন্যান্য ক্যান্সার হত্যার একটি পদ্ধতি আবিষ্কার করেছেন।

তারা বলেন আমাদের ক্যান্সারের চিকিৎসা করার জন্য সদ্য আবিষ্কৃত ভেকসিনকে ক্যান্সার প্রতিরোধ ক্ষমতায় ব্যবহার করা যাবে। ক্যান্সারের চিকিৎসায় যদিও কাজটি প্রাথমিক পর্যায়ের ছিল তবে, এটি খুব উত্তেজনাপূর্ণ ছিল। তারা একটি টি-সেল এবং এর রিসেপটর আবিষ্কার করেছিল যা উক্ত ল্যাবটিতে ফুসফুস, ত্বক, রক্ত, কোলন, স্তন, হাড়, প্রোস্টেট, ডিম্বাশয়, কিডনি এবং জরায়ুর ক্যান্সার কোষ সহ বিস্তৃত ক্যান্সারযুক্ত কোষগুলি খুঁজে পেতে এবং হত্যা করতে সক্ষম হয়েছে।

এই ক্যান্সারের চিকিৎসায় অন্যতম একজন গবেষক প্রফেসর অ্যান্ড্রু সিওয়েল বলেছেন এখানে প্রতিটি রোগীর চিকৎসা করার সুযোগ রয়েছে। তিনি আরও বলেন আগে কেউ বিশ্বাস করত না এটি সম্ভব হতে পারে। তবে এটি এক-আকারের ফিটনেস, যা সমস্ত ক্যান্সারের চিকিৎসার সম্ভাবনা বাড়িয়ে তোলে।

এখানে এক ধরণের টি-সেল যা জনসাধারণের বিভিন্ন রকম ক্যান্সার ধ্বংস করতে সক্ষম হতে পারে। তবে এর কাজ নিয়ে অনুসন্ধান করে জানা যায় এই নির্দিষ্ট টি-সেল রিসেপ্টর এমআর ১ নামক একটি অণুর সাথে যোগাযোগ করে যা মানব দেহের প্রতিটি কোষের পৃষ্ঠে থাকে।

মনে করা হয় এমআর ১ ক্যান্সারজনিত কোষের অভ্যন্তরে বিকৃত বিপাকটি প্রতিরোধ ব্যবস্থাতে ফ্ল্যাগ করে। তবে টি-সেল ক্যান্সার থেরাপি ইতিমধ্যে বিদ্যমান এবং সিএআর-টি – একটি জীবন্ত ড্রাগ যা জেনেটিক্যালি ইঞ্জিনিয়ারিং দ্বারা রোগীর টি-কোষগুলি ক্যান্সার সন্ধান এবং ধ্বংস করার জন্য তৈরি হয়েছিল।

সুইজারল্যান্ডের বাসেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লুসিয়া মরি এবং গেনারো দে লিবেরো নামের দুজন বিজ্ঞানি বলেছেন, গবেষণার দুর্দান্ত সম্ভাবনা রয়েছে তবে এটি সব ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে কাজ করবে বলে প্রাথমিক পর্যায়ে ছিল। এখন আমরা এই নতুন টি-সেল জনসংখ্যার ইমিউনোলজিকাল কার্যাদি এবং টিউমার সেল থেরাপিতে তাদের টিসিআরগুলির সম্ভাব্য ব্যবহার সম্পর্কে খুব আগ্রহী।

আসা করা যায় এই ভেকসিন প্রায় সকল ক্যান্সারের প্রতিশোধক হিসেবে কাজ করবে। যার ফলে চিকিৎসা ক্ষেত্রে হয়তো আমরা একটি যুগান্তকারী সময়ে পারি দিতে যাচ্ছি। যার মাধ্যমে ক্যান্সার নামক মরন ব্যাধি থেকে মানুষ কিছুটা হলেও আতঙ্ক মুক্ত থাকবে।

 

৯ ঘণ্টা ঘুমালে বেতন পাওয়া যাবে ১ লাখ টাকা!

৯ ঘণ্টা ঘুমালে মিলবে লাখ টাকার পারিশ্রমিক অবিশ্বাস্য চাকুরী!

রাতে ঘুম হয় না, অথবা ঘুমের অভ্যাস চলে গিয়েছে? রাতে কিছুতেই ঘুমোতে পারেন না? সেই সব মানুষকে ঘুমের এমন সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে উদ্যোগী হয়েছে ‘ওয়েকফিট’ নামের একটি সংস্থা। তাদের দেয়া শর্ত অনুযায়ী, প্রতিদিন প্রতিদিন ৯ ঘণ্টা ঘুমালে পেয়ে যাবেন এক লাখ টাকার পারিশ্রমিক!

ইনসমনিয়া’ ভুগছেন এমন বহু মানুষকে এ সমস্যা থেকে মুক্তি দিতেই এই বিশেষ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ‘ওয়েকফিট’ নামের সংস্থাটি সম্প্রতি শুরু করেছে একটি ইন্টার্নশিপ প্রোগ্রাম। সংস্থার তরফে সংবাদ মাধ্যমকে জানানো হয়েছে, কাজটি ১০০ দিনের আর এর জন্য ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপনও দেয়া হয়েছে। বিজ্ঞাপনে ওই সংস্থা লিখেছে, ‘আপনি কি রাতে আপনার প্রিয় শোগুলো না দেখে তার পরিবর্তে ৯ ঘণ্টা ঘুমাতে পারবেন? যদি তাই হয়, তাহলে আপনিই হতে পারেন যোগ্য প্রার্থী, আমরা যার খোঁজ করছি।’ এই প্রকল্পের নাম দেওয়া হয়েছে ‘ওয়েকফিট স্লিপ ইন্টার্নশিপ’।

কারা ‘ওয়েকফিট স্লিপ ইন্টার্নশিপ’-এর যোগ্য প্রার্থী?

এর ‘জব ডেসক্রিপশন’-এ বলা হয়েছে, ‘শুধু ঘুম!’ তবে এর সঙ্গেই জুড়ে দেয়া হয়েছে কিছু শর্ত। সেগুলি হলো:

১. এমন প্রার্থী গ্রহণযোগ্য হবে যিনি শোয়ার ১০-২০ মিনিটের মধ্যেই ঘুমিয়ে পড়তে পারেন। যার যখন-তখন সামান্য সুযোগ পেলেই ঘুমিয়ে পড়ার ক্ষমতা রয়েছে।

২.বেশি রাত পর্যন্ত জেগে না থাকা এর অন্যতম শর্ত। এর সঙ্গেই নিজের ফোনে আসা একের পর এক নোটিফিকেশনকেও অগ্রাহ্য করতে পারবে যে। সব কিছু দূরে রেখে শুধুই আরামের ঘুম। এটুকুই ‘কাজ’।

৩. শেষে বলা হয়েছে, ইন্টার্নদের ঘুমাতে হবে ওয়েকফিটের দেয়া ম্যাট্রেসে। স্লিপ ট্র্যাকারের মাধ্যেমে তাদের ঘুমের নানা দিক লক্ষ্য রাখা হবে। সেই অনুযায়ী ভাল ঘুমানোর পরামর্শ দিতে কাউন্সেলিং সেশনও থাকবে।

সংবাদ কৃতজ্ঞতা: সময় সংবাদ

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন তবে আপনি চাইলে অপ্ট-আউট করতে পারেন Accept আরও পড়ুন