সেপ্টেম্বরেই দল গোছাতে মাঠে নামছে আওয়ামী লীগ

জিবি নিউজ ডেস্ক।।

সম্প্রতি বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ানো, ডেঙ্গু ও গুজব মোকাবেলায় দৃষ্টি দেয় আওয়ামী লীগ। এছাড়া শোকাবহ আগস্ট মাস হওয়ায় বন্ধ ছিলো দলীয় পরিকল্পনা ও সিদ্ধান্তের বাস্তবায়ন। সঙ্গত কারণেই দল গোছানোর কার্যক্রম কিছুটা থমকে যায়। তবে এসব গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু ও শোকাবহ আগস্ট শেষে আগামী সেপ্টেম্বরেই দল গোছাতে মাঠে নামবে ক্ষমতাসীন দলটি।

আওয়ামী লীগের শীর্ষনেতারা জানান, দলের সভাপতি শেখ হাসিনার নির্দেশে দেশের বিভিন্ন এলাকার বন্যার্তদের পাশে দাঁড়াতে কেন্দ্রীয় নেতাদের সমন্বয়ে আলাদা আলাদা প্রতিনিধি দল গঠন করে। সরকারের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকেও দলের সব পর্যায়ের নেতাকর্মীরা বন্যাদুর্গতদের সহায়তায় ব্যস্ত ছিলেন। এতে করে নানা পরিকল্পনা ও সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের ঘোষণা থাকলেও তা স্থগিত করা হয়। এর মধ্যে গত ২১ জুলাই থেকে নতুন সদস্য সংগ্রহ কার্যক্রম শুরুর ঘোষণা ছিলো। কিন্তু বন্যা পরিস্থিতি ও ডেঙ্গুর কারণে তা থমকে যায়। এছাড়া তৃণমূলকে ঢেলে সাজাতে দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা কেন্দ্রীয় নেতাদের দায়িত্ব দিয়ে আটটি বিভাগীয় টিম গঠন করে দেন। তৃণমূল কমিটি গঠনের লক্ষ্যে অনেক জেলায় বর্ধিত সভাও শেষ করেন নেতারা।

নেতারা জানান, আগামী সেপ্টম্বর থেকেই দলীয় কার্যক্রমগুলো বাস্তবায়নে আবারও পুরোদমে মাঠে নামবে আওয়ামী লীগ। দলীয় কর্মসূচিগুলোর বাস্তবায়নে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের নানা পরিকল্পনা ও সিদ্ধান্ত শিগগিরই জানিয়ে দেওয়া হবে। এরই মধ্য দিয়ে দলটি নতুন সদস্য সংগ্রহ, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকাবিরোধীদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া ও অক্টোবরে জাতীয় সম্মেলনের আগে সারা দেশের তৃণমূলের কমিটি গঠনের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করবে।

দলের শীর্ষ নেতারা মনে করেন, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নির্বাচন আগামী বছরের শুরুতেই হওয়ার কথা। আর এসব নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ফলে সিটি করপোরশেন নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে।

তাই সিটি নির্বাচনকে সামনে রেখে আরো প্রস্তুতি নিয়ে মাঠে নামার পরিকল্পনা করছে আওয়ামী লীগ। তবে অক্টোবরে জাতীয় সম্মেলন হবে কী না, এ বিষয়ে দলের শীর্ষনেতাদের মধ্যে সংশয়ও রয়েছে। তবে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে জাতীয় সম্মেলন করার পক্ষে দলের তৃণমূল নেতারা।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সিটি করপোরেশন নির্বাচন আবার আসছে। কয়েক মাস পর ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের নির্বাচন। জোর করে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে শেখ হাসিনা নির্বাচনে জিততে চান না। আমরা জনগণকে খুশি করে রায় মেনে নির্বাচিত হতে চাই। জনপ্রতিনিধি যারা আছেন, আপনারা কেউ যদি ভাবেন, ক্ষমতায় আছি, জিতেই যাবো, তাহলে ভুল করবেন। আপনাকে জনগণের মন জয় করে, জনগণের ভোটেই নির্বাচিত হতে হবে। তাই সবাইকে দলীয় সিদ্ধান্ত মেনে মাঠে নামতে হবে।

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন তবে আপনি চাইলে অপ্ট-আউট করতে পারেন Accept আরও পড়ুন