কাশ্মীরে কেন্দ্রের শাসন সাময়িক, জাতির উদ্দেশে ভাষণে মোদি

126

জিবি নিউজ 24 ডেস্ক//

জম্মু-কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বাতিলের পর ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, কাশ্মীরকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত সাময়িক। ৩৭০ ধারা বাতিলের পর বৃহস্পতিবার প্রথমবারের মতো জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও সে কথাই বললেন।

মোদি বলেন, ৩৭০ ধারা ও ৩৫এ ধারা জম্মু-কাশ্মীরের যাবতীয় সমস্যার কারণ। দেশের অনেক আইনের সুবিধা জম্মু-কাশ্মীরের মানুষ পাননি।

তিনি আরো বলেন, পরিচ্ছন্নতাকর্মী থেকে শিক্ষার্থীরা অনেক সুবিধা পায়নি। নতুন ব্যবস্থায় যাবতীয় সুবিধা দেওয়া হবে। সেখানকার কর্মীরা এখন থেকে অন্য কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মতো যাবতীয় সুবিধা পাবেন। সব দপ্তরের শূন্যপদ পূরণ করা হবে।

মোদি আরো জানান, আপাতত জম্মু-কাশ্মীর কিছুদিনের জন্য কেন্দ্রের অধীনে থাকবে। লাদাখ কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল থাকলেও জম্মু-কাশ্মীরে রাজ্য সরকার ক্ষমতায় আসবে। বেশিদিন কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল রাখা হবে না।

মোদি বলেন, অনেক ভেবেচিন্তেই কাশ্মীরকে সাময়িকভাবে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ঘোষণা করা হয়েছে। আমি আবারো বলছি সাময়িকভাবে করা হয়েছে এটা। জম্মু-কাশ্মীরবাসীর গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে দিতে কেন্দ্র বদ্ধপরিকর বলেও দাবি করেন তিনি।

মোদি বলেন, আমাদের দেশের গণতন্ত্র অত্যন্ত মজবুত। অথচ, জম্মু-কাশ্মীরের হাজার হাজার মানুষ বিধানসভা থেকে শুরু করে পঞ্চায়েত বা পুরসভার নির্বাচনে ভোট দিতে পারতেন না। যারা ১৮৪৭ সালে পাকিস্তান থেকে কাশ্মীরে এসেছিলেন, তারা শুধু লোকসভা ভোট ছাড়া অন্য ভোট দিতে পারতেন না। এটা তাদের সঙ্গে অন্যায়।

তিনি আরো বলেন, জম্মু ও কাশ্মীরের ভাইবোনদের আরো একটা কথা স্পষ্ট করে দিতে চাই। আপনাদের জনপ্রতিনিধি আপনারাই নির্বাচিত করবেন। আপনাদের যেমন বিধায়ক হত, তেমনই হবে। আগের মতোই মন্ত্রীসভা হবে, আগের মতোই আপনাদের মুখ্যমন্ত্রী হবে। আমার পূর্ণ বিশ্বাস এই নতুন ব্যবস্থার পর আমরা সন্ত্রাস ও বিচ্ছিন্নতাবাদ থেকে কাশ্মীরকে মুক্ত করতে পারব। তারপর আশা করি আর কাশ্মীরকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল রাখার প্রয়োজন হবে না।

মোদি বলেন, আমরা চাই, আগামী দিনে জম্মু ও কাশ্মীরে বিধানসভা ভোট হোক। নতুন সরকার হোক। আমি কাশ্মীরবাসীকে আশ্বস্ত করতে চাই, আপনারা খোলা মনে, নিরাপদ পরিবেশে আপনাদের সরকার বেছে নিতে পারবেন।

ভারতের এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, কাশ্মীরে আবারো স‌িনেমার দৃশ্যধারণ শুরু হবে। দেশের সব সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির কাছেও এজন্য অনুরোধ রাখছি।জম্মু-কাশ্মীরে খেলাধুলার সুযোগ বাড়ানো হবে। স্পোর্টস অ্যাকাডেমি হবে, স্টেডিয়াম হবে। জম্মু-কাশ্মীরে ঈদ পালনে কোনো সমস্যা হবে না। সরকার সব রকমের সাহায্য করবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি