পূর্ববাংলা সমাজতান্ত্রিক দল (জনযুদ্ধ ) যুক্তরাজ্য শাখার প্রতিবাদ সভা সম্পন্ন

170
প্রেস বিজ্ঞপ্তি   :-
পূর্ববাংলা সমাজতান্ত্রিক দল (জনযুদ্ধ ) যুক্তরাজ্য শাখার উদ্যোগে একটি প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ১৯ জুন বুধবার পূর্ব লন্ডনের একটি অভিজাত রেস্টুরেন্টে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। কমরেড ওয়াহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে বক্তারা বলেন বর্তমানে  বাংলাদেশের অবৈধ  সরকার দেশে একের পর এক মানবাধিকার লঙ্ঘন করে ক্ষমতা চিরস্থায়ী করার পাঁয়তারা করছে।দেশে মানবাধিকার লঙ্ঘন এখন নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা। ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য সরকার এখন মরিয়া হয়ে উঠেছে।এ কারণে তারা কোনো নিয়ম-কানুন, ন্যায়-নীতি, সংবিধান কিছুই তোয়াক্কা করছে না।নির্বিচারে দমন নিপিড়ন চালাচ্ছে বিরোধী দলেন নেতা কর্মীদের উপরে। তারা আরো বলেন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে অনুরোধ জানাব বাংলাদেশে এখন কী হচ্ছে তা নজরে আনার জন্য।
সংঘটনের সাধারণসম্পাদক কমরেড নাহিদ হাসানের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তার হিসাবে উপস্থিত ছিলেন পূর্ববাংলা সমাজতান্ত্রিক দল (জনযুদ্ধ ) যুক্তরাজ্য শাখার উপদেষ্টা কমরেড মোহিতুর রহমান। এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন সাংঘঠনিক যুগ্মসম্পাদক জোনায়েদ হোসাইন ,যুগ্ম সম্পাদক অর্চন ঘোষাল ,সাংঘঠনিক যুগ্মসম্পাদক জাহিদুল মাসুম ,আন্তর্জাতিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম ,প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ইয়াসিন হোসাইন ,শিক্ষা সম্পদক ফকরুল ইসলাম ,সমাজ কল্যাণ সম্পাদক রিমি ভট্টাচার্য ,আইন বিষয়ক সম্পাদক মাসুম  জিলানী রিয়াদ ,নারীও শিশু উন্নয়ন সম্পাদক সোনালী আফরোজ ,অর্থ সম্পাদক মুরাদ হোসাইন ,নির্বাহী সদস্য সম্রাট হোসাইন ,পাভেল মাহমুদ ,তাহসিন জামান ,রাফিন জামান আরিফুর রহমান খান ও রবিউল আলম প্রমুখ।
অনুষ্ঠানের প্রধান বক্তা মোহিতুর রহমান বলেন গত ৩০ ডিসেম্বরের জাতীয় নির্বাচনে নির্বাচনী প্রক্রিয়াকে নানা কৌশলে সম্পূর্ণভাবে সরকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও প্রশাসন দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করছে। ফলাফল নিয়ন্ত্রণ করেছে । এতে ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে নি । বিরোধী দলের এজেন্টরা কেন্দ্রে যেতে পারেন নি ।
তিনি বলেন ,১৯৭৩ সালে রক্ষীবাহিনী গঠন করে যেভাবে দেশের মানুষকে হত্যা করা হয়েছিল। বর্তমানে এর আদলেই পুলিশ ও Rab  দিয়ে মানুষ হত্যা করা হচ্ছে । দেশের মানুষ  এখন বাংলাদেশ নামক  বড় একটি কারাগারে বসবাস করছে । এখানে কারও কোনো নিরাপত্তা নেই। বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে আরও বেশি করে কথা বলতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি তিনি আহ্বান জানান।
মিঃ রহমান  বলেন ,দেশে আইনের শাসন ও মানবাধিকার নেই। দেশের জনগণ অত্যাচারী সরকারের হাত থেকে মুক্তি পেতে চায়। এ থেকে পরিত্রাণের উপায় হচ্ছে অবাধ, সুষ্ঠু ও সব দলের অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন। এটি করা হলেই  জনগণ মুক্তি পাবে। আর না হলে সরকার আরও স্বৈরাচারী কায়দায় দেশে শাসন অব্যাহত রাখবে। তাই ফ্যাসিস্ট সরকারের হাত থেকে মুক্তি পেতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে আহবান জানান তিনি ।
 বিচার বিভাগ সম্পূর্ণরূপে সরকারের নিয়ন্ত্রণে এ অভিযোগ করে তিনি বলেন  এ কারণে সাধারণ মানুষ এখন ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। দেশের গণতন্ত্র এখন মৃত।
কমরেড ওয়াহিদুজ্জামান  বলেন একটা অবৈধ সরকারের সব কিছুই অবৈধ। সুতরাং সম্প্রতি সংসদে উপস্থাপিত বাজেটও অবৈধ। আমরা এই অবৈধ সরকারের বাজেট প্রত্যাখ্যান করছি।
ওয়াহিদুজ্জামান বলেন এই ফ্যাসিস্ট সরকার যতই হুমকি ধামকি জেল জুলুম নির্যাতন ও গুম খুন করুকনা কেন আমরা দেশের স্বার্থে আমাদের অবস্থান থেকে এক চুলও নড়বো না। পরিশেষে তিনি বিএনপি সহ  অন্নান্ন বিরোধী দলের সাথে একযোগে  এই অবৈধ সরকারের উৎখাতের জন্য কাজ করারা ইঙ্গিত দেন।