ফকিরহাটে সোমা নামের একজনউদিয়মান মডেলের রহস্যজনক মুত্যু

83

 

ফকিরহাট প্রতিনিধি।
বাগেরহাটের ফকিরহাটে সোমা আক্তার সুমি নামের একজন উদিয়মান মডেলের রহস্য জনক মুত্যু হয়েছে। গতকাল
সোমবার গভীর রাতে বেতাগা ইউনিয়নের মাসকাটা নিজ গ্রামের বাড়ির পাশের্^ একটি নির্জন স্থানে
মেহগনী গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। রহস্য জনক এ মুত্যুর ঘটনায় পরিবারের দাবী হত্যা করে তার
লাশ ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। এঘটনায় এলাকাবাসির মধ্যে নানা গুঞ্জনের সৃষ্টি হয়েছে। তিনি উক্ত গ্রামের স্বামি
পরিত্যাক্তা নাজমা বেগমের কন্যা। পারিবারিক সুত্রে জানা গেছে, সোমবার রাতে উদিয়মান মডেল ও শহীদ স্মৃতি
ডিগ্রী মহাবিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী সোমা আক্তার সুমি রাতের খাবার খেয়ে মায়ের সাথে ঘুমিয়ে পড়ে।
রাত সাড়ে ১১টায় দিকে তার মা নাজমা বেগম কন্যা সোমা-কে তার ঘরে দেখতে না পেয়ে বাইরে গিয়ে খুজা
খুজি করতে থাকেন। পরে তাকে মূতঃ অবস্থায় পাশর্^বর্তী একটি মেহগনী গাছে ঝুলতে দেখে স্থানীয়দের খবর দিলে
তারা নামিয়ে ফেলে। এবং খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসায়করা তাকে মূতঃ
ঘোষনা করেন। এব্যাপারে সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় একটি অপমূত্যু মামলা দায়ের হয়েছে। যার নং-৫৬। নিহতের
মাতা নাজমা বেগম বলেন, তার কন্যা কখনো অতœহত্যা করতে পারেনা। তাকে মোবাইল করে বাইরে ডেকে শ^াসরোধে
হত্যা করে নিজের উড়না দিয়ে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। নিহতের ভগ্নিপতি মোঃ মহিবুল ইসলাম ও স্থানীয় চৌকিদার
হুমায়ুন কবির বলেন, তার শরীরের একাধিক স্থানে আঘাতের চিহ্র রয়েছে। সে বুদ্ধিমতি মেয়ে সে কখনো
আতœহত্যা করতে পারেনা। তাকে হত্যা করে তার লাশ গাছে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। স্থানীয়রা বলেছেন, মডেলিংয়ের
সুত্র ধরে তার সাথে একাধিক যুবকের সখ্যাতা গড়ে উঠে। সেই সুবাধে সে নানা স্থানে চলাচল করতো। তাদের মধ্যে
থেকে কেউ তাকে মোবাইল করে বাইরে এনে শ^াসরোধে হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে দিতে পারে। স্থানীয়রা বলেছেন, তার
মডেলিং সংক্রান্ত বিষয়ে পুলিশি তদন্ত করলে মূত্যুর মূল রহস্য উৎঘাটন করা সম্ভাব হবে। এরিপোট লেখা পর্যন্ত
ফকিরহাট মডেল থানায় কোন অভিযোগ দায়ের হয়নী। ###

মন্তব্য
Loading...