পোস্টার ছিনতাই-পুলিশি হয়রানির শিকার রাজধানীর ধানের শীষ প্রার্থীরা

280
gb
# সৈয়দ নাজমুল হাসান, ঢাকা।।

নানা প্রতিকূলতার মধ্যে পড়ছেন রাজধানীর ধানের শীষ প্রার্থীরা এমন অভিযোগ তাদের। প্রচারে বাধা, পোস্টার লাগাতে না দেয়া, পোস্টার ছিনতাই ও হামলা, পুলিশি হয়রানির শিকার হচ্ছেন তারা। এক কথায়, পোস্টার ছিনতাই-পুলিশি হয়রানির শিকার রাজধানীর ধানের শীষ প্রার্থীরা।

তাদের অভিযোগ , তারা ভোটারদের কাছে নিজেদের কথা পর্যন্ত তুলে ধরতে পারছেন না। তবে মহানগরীর ১৫টি আসনের মধ্যে কয়েকটিতে প্রতিকূল পরিবেশ তূলনামূলক কম বলে জানিয়েছেন তারা।

দেখা গেছে, শুক্রবার ঢাকা-৪ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন স্থানে নির্বাচনী প্রচার চালান। ঢাকা-৫ আসনের নবীউল্লাহ নবী সকালে উত্তর যাত্রাবাড়ীর বিবিরবাগিচা থেকে গণসংযোগ শুরু করেন। এ এলাকার বিভিন্ন মসজিদ-মন্দিরে আগত মানুষের কাছে ভোট চান তিনি।

ঢাকা-৬ আসনের প্রার্থী অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরীর নির্বাচনী প্রচার মিছিল বেলা ১১ টায় গেন্ডারিয়া থানা এবং ফরিদাবাদ মাদ্রাসার সামনে পৌঁছলে পুলিশ বাধা দেয়। সেখানে গেণ্ডারিয়া থানা পুলিশের উপস্থিতিতে

স্থানীয় ছাত্রলীগ-যুবলীগ লাঠিসোটা নিয়ে মিছিলে হামলা করে। সুব্রত চৌধুরী বলেন, হামলা থেকে তাকে রক্ষা করতে গিয়ে গণফোরাম ওয়ারী থানা আহ্বায়ক মনিরুজ্জামান এবং জাসাস হাজারীবাগ থানা সভাপতি মাসুম বিল্লাল ফারদিনসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন।

ঢাকা-৭ আসনের প্রার্থী গণফোরাম সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু আজিমপুর মসজিদে জুমার নামাজের পর প্রচার শুরু করেন। এ সময় বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী তার সঙ্গে ছিলেন। ঢাকা-৮ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী মির্জা আব্বাস প্রচারে বের হননি। ঢাকা-৯ আসনের প্রার্থী আফরোজা আব্বাস বিকাল ৩টায় প্রচারে বের হওয়ার ঘোষণা দিয়েও পরে স্থগিত করেন।

ঢাকা-১০ আসনের প্রার্থী ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল মান্নান জানান, অন্যান্য দিনের মতো শুক্রবারও হাজারীবাগ এলাকায় তার পোস্টার লাগাতে বাধা দেয়া হয়েছে। কোনো নেতাকর্মী তার বাসায় আসতে পারছেন না। তবে সব জায়গায় যোগাযোগ রাখছেন তিনি।

ঢাকা-১১ আসনের প্রার্থী শামিম আরা বেগম নির্বাচনী এলাকার ৩৭নং ওয়ার্ডে প্রচার চালান। তিনি জানান, সরকারের নির্যাতনের কারণে নেতাকর্মীদের স্বতঃস্ফূর্তভাবে নামানো যাচ্ছে না। তাই তিনি ধীরগতিতে নির্বাচনী প্রচার কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।

ঢাকা-১২ আসনের প্রার্থী কেন্দ্রীয় যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব শুক্রবারও মাঠে নামতে পারেননি। তার সমর্থনে তৃণমূল নেতাকর্মী ও সমর্থকদের প্রচার কাজে লাগানো হলেও তাদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। ঢাকা-১৩ আসনের প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সালাম মোহাম্মদপুরের জাপান গার্ডেন সিটির বিভিন্ন ইউনিটে গণসংযোগ করেন।

ঢাকা-১৪ আসনের সৈয়দ আবু বকর সিদ্দিক সাজু মিরপুর শাহ আলী মার্কেট এলাকায় গণসংযোগ করেন। ঢাকা-১৫ আসনে জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানের পক্ষে দলের নেতাকর্মীরা বিভিন্ন বাসা-বাড়িতে গণসংযোগ করেন।

ঢাকা-১৭ আসনের প্রার্থী বিজেপি চেয়ারম্যান আন্দালিব রহমান পার্থ কামাল আতাতুর্ক এভিনিউ এলাকায় গণসংযোগ করেন। বিকাল ৩টায় উত্তরার জসিম উদ্দিন এভিনিউ ৩নং সেক্টরে গণসংযোগ করেন ঢাকা-১৮ আসনের প্রার্থী শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন। ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের নিয়ে এলাকায় ধানের শীষ প্রতীকের প্রচারপত্র বিলি করেন তিনি।