রিয়াদ বাংলাদেশ দূতাবাসে ত্রি-দেশীয় মেলা “ওএলজি বাজার”

278
gb
প্রতিনিধি : সৌদি আরবে কর্মরত দক্ষিণ এশীয় কূটনৈতিকদের স্ত্রী এবং নারী কূটনৈতিকদের নিয়ে গঠিত দাতব্য সংগঠন “ওরিয়েন্টাল লেডিস গ্রুপ (ওএলজি)” এর উদ্যোগে ৭ ডিসেম্বর শুক্রবার বাংলাদেশ দূতাবাস প্রাঙ্গণে এক জমজমাট ত্রি-দেশীয় মেলা “ওএলজি বাজার” অনুষ্ঠিত হয়।সংগঠনটির বার্ষিক এই ইভেন্টে বাংলাদেশ, ভারত এবং নেপাল অংশগ্রহন করে ।
তিন দেশের তিন প্যাট্রন বাংলাদেশ রাষ্ট্রদূত পত্নী- চীফ প্যাট্রন সৈয়েদা গুল এ আরজু, ভারতীয় রাষ্ট্রদূত পত্নী- শবনম জাভেদ, নেপালের রাষ্ট্রদূত পত্নী- গীতা দেবী সিং রাজপূত, তিন রং এর তিনটি ফিতা কেটে, ছোট তিন পরীর ( শিশু ) দেয়া বেলুন উড়িয়ে মেলার উদ্বোধন করেন । পরে তিন দেশের রাষ্ট্রদূত, বাংলাদেশের গোলাম মসীহ, ভারতীয় আহমদ জাভেদ এবং নেপালের প্রফেসর ডক্টর মাহেন্দ্র প্রাষাদ সিং রাজপূতের হাতে পরিবেশ বন্ধু গাছ তুলে দেন ওএলজি গ্রুপের তিন দেশের তিন নারী সদস্য।
চীফ প্যাট্রন সৈয়েদা গুল এ আরজু বলেন, ওএলজি গ্রুপের মাধ্যমে আমাদের সম্পর্ক আরো সুন্দর, সুদৃঢ় এবং কূটনৈতিক পরিবারগুলোর সাথে যোগাযোগ বৃদ্ধি পাবে । তাছাড়া কি কি উদ্যোগ গ্রহন করলে আরো বেশী ভালো  সেই বিষয়গুলো নিয়ে আলাপ আলোচনা করা যাবে । তিনি বলেন, মেলা থেকে প্রাপ্ত অর্থ বাংলাদেশে দাতব্য কাজে অর্থাৎ বাংলাদেশের দরিদ্র ও দুস্থদের জন্য ব্যয় করা হবে।
বাংলাদেশ দূতাবাসের কার্যালয় প্রধান ডক্টর ফরিদ উদ্দীন আহমদ পত্নী,  ওএলজি প্রেসিডেন্ট – ফাতিমা কিবরিয়া তার বক্তব্যে বলেন, লেডিস গ্রুপের সদস্য দেশ হিসেবে বাংলাদেশের জন্য এবারের মেলার আয়োজনটা ছিল অত্যন্ত গর্বের ও আনন্দের। বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশকে ব্যাপক পরিসরে তুলে ধরার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের জন্য এটা ছিল অনন্য এক সুযোগ। এ মেলার মাধ্যমে সদস্য দেশগুলোর মধ্যে বন্ধুত্ব যেমন জোরদার হয়, তেমনি দেশগুলোর সংস্কৃতি, কৃষ্টি, ঐতিহ্য জানার সুযোগ ঘটে।বাংলাদেশ কমিউনিটির সুশৃঙ্খল এবং স্বতস্ফুর্ত উপস্থিতি অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর কাছে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে বলে মনে করেন তিনি।
মেলা উপলক্ষে বাংলাদেশ দূতাবাস প্রাঙ্গণের ষ্টলগুলোতে তিন দেশের ঐতিহ্যবাহী হস্ত শিল্প, তৈরি পোষাক সামগ্রী প্রদশর্নী এবং বিক্রয় করা হয়।
কূটনৈতিক ও আমন্ত্রিত অতিথিরা বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করেন। বিকেল চারটা থেকে শুরু হয়ে রাত পর্যন্ত মেলা চলে। অনুষ্ঠিত র‌্যাফেল ড্রতে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন অতিথিবৃন্দ।
এ সময় বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিক ও বাংলাদেশি কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিরা সস্ত্রীক উপস্থিত ছিলেন।