মারা গেলেন বর্ষীয়ান অভিনেতা টম অলটার

313
gb

দূরারোগ্য ক্যান্সারের কাছে হার মানলেন বর্ষীয়ান অভিনেতা টম অলটার। গতকাল শুক্রবার নিজ বাড়িতেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন ৬৭ বছরের এই অভিনেতা।

অভিনেতার পরিবারের তরফ থেকে বিজ্ঞপ্তি জারি করে এই খবর জানানো হয়।

জন্মসূত্রে মার্কিন হলেও ভারতবর্ষই টমের নিজের দেশ ছিল। বড় হয়ে উঠেছিলেন উত্তরাখণ্ডের এক অখ্যাত গ্রামে। হিন্দি ভাষায় বিশেষ দক্ষতা ছিল তাঁর। দখল ছিল উর্দু ভাষাতেও। তবে অভিনয় ছিল তাঁর সবচেয়ে বড় টান। সেই টানেই পুনের ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন ইনস্টিটিউটে ভর্তি হন। পড়াশোনা শেষ করেই পাড়ি দেন মুম্বাই।

বলিউডে টম অলটারের প্রবেশ ঘটেছিল ১৯৭৬ সালে।

পরিচালক রমানন্দ সাগরের ‘চরস’ ছবিতে কাস্টমস অফিসার হিসেবে দেখা গিয়েছিল টমকে। এরপরই সত্যজিৎ রায়ের ‘শতরঞ্জ কে খিলাড়ি’তে সুযোগ পেয়ে যান এই অভিনেতা। আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। একের পর এক বলিউড ছবিতে অভিনয় করে চলেন তিনি। চরিত্র ছোট হলেও টমের বলিষ্ঠ অভিনয় তাঁকে এনে দিয়েছিল পরিচিতি। তবে বলিউডের চেয়েও টমের প্রিয় জায়গা ছিল মঞ্চ। সেখানেই যেন প্রকৃত আনন্দের পরশ পেতেন। ১৯৭৭ সালে নাসিরুদ্দিন শাহ ও বেঞ্জামিন গিলানির সঙ্গে তৈরি করেন মোটলি থিয়েটার গ্রুপ। তা নিয়েই ব্যস্ত থাকতেন। শেষ তাঁকে বড়পর্দায় দেখা গিয়েছিল ‘সরগোশিয়াঁ’ ছবিতে। ছোটপর্দাতেও ‘রিস্তোঁ কা চক্রব্যূহ’ সিরিয়ালে বিশেষ ভূমিকায় ছিলেন তিনি।

এর মধ্যেই জানা যায় ক্যান্সারে আক্রান্ত পদ্মশ্রীপ্রাপ্ত এই অভিনেতা। স্টেজ ফোরে ছিল তাঁর এই মারণ রোগ। চিকিৎসা চলছিল মুম্বাইয়ের সইফি হালপাতালে। শোনা গেছে, কিছুদিন আগেই হাল ছেড়ে দেন চিকিৎসকরা।
এরপর অভিনেতাকে নিয়ে আসা হয় তাঁর বাড়িতে। সেখানেই গতকাল শুক্রবার আত্মীয়-পরিজনদের মাঝে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন টম।

এদিকে বর্ষীয়ান এই অভিনেতার মৃত্যুতে শোকের আবহ বলিউডে। অনেকেই স্মৃতিচারণ করেছেন টুইটের মাধ্যমে।