২১ শে আগস্ট গ্রেনেড হামলাকারীদের ফাঁসির দাবিতে নিউইয়র্কে বিক্ষোভ সমাবেশ

142
gb

হাকিকুল ইসলাম খোকন বিশেষ সংবাদদাতা, :

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট। বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে আওয়ামী লীগের বিশাল সমাবেশ চলছিল। সব কেন্দ্রীয় নেতাকর্মী থেকে শুরু করে তৃণমূল নেতাকর্মীরা সেখানে উপস্থিত ছিলেন। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা সেই সমাবেশে ভাষণ দিচ্ছিলেন। তার ভাষণ শুরুর কয়েক মিনিটের মধ্যে গ্রেনেড হামলা চলতে লাগল। ইতিহাসের বর্বরোচিত ও নৃসংশ হামলা। যা আগে কোনোদিন কেউ প্রত্যক্ষ করেনি। তখন শেখ হাসিনাকে মানব ঢাল বানিয়ে বাঁচিয়েছিলেন উপস্থিত নেতাকর্মীরা। আজও তাদের স্মৃতিতে ভাসছে সেই ভয়াল কালো দিনের কথা। সেই গ্রেনেড হামলায় নিহত হয়েছিলেন ২৪ জন, আহত হন ২৫০ জন। অনেকে পঙ্ধসঢ়;গুত্ব বরণ করেন। ঘটনার পর দিন ২২ আগস্ট বিভিন্ন পত্রিকায় শিরোনাম হয়- ‘আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলায় নিহত ১৮, আহত ৫ শতাধিক’। ‘অল্পের জন্য শেখ হাসিনার প্রাণ রক্ষা, অনেকের হাত-পা বিচ্ছিন্ন’। আরও লেখা হয়- ‘সারাদেশে নিন্দার ঝড়, বিক্ষোভ-সমাবেশ- মিছিল’। ‘বিক্ষোভে উত্তাল সারাদেশ’। ‘সুধাসদনে জনতার ঢল’। বিভিন্ন পত্রিকার পাতায় সেদিনের রক্তাক্ত মুহূর্তগুলো উঠে আসে। গত ১০ অক্টোবর বুধবার ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায় ঘোষণা হয়। নারকীয় গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও সাবেক শিক্ষা উপমন্ত্রী আব্দুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ জনকে মৃত্যুদন্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে। যাবজ্জীবনপ্রাপ্ত ১৯ জনের মধ্যে রয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী। এছাড়াও ১১ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়। এদিকে গত ৯ অক্টোবর সোমবার ২১ শে আগস্টের গ্রেনেড হামলাকারীদের ফাঁসির দাবিতে বাংলাদেশীদের প্রাণকেন্দ্র (মিনি বাংলাদেশ) ডাইভারসিটি প্লাজায় যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ সহ অঙ্গ সংগঠনের সমন্বয়ে এক বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। বিক্ষোভ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন- যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ড. প্রদীপ রঞ্জন কর, ড. মহসিন আলি, মুক্তিযোদ্ধা ফারুক হুসাইন, তোফায়েল চৌধুরী, রমেশ নাথ, মোহাম্মদ আলি সিদ্দিকী- দপ্তর সম্পাদক যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ, শাহ মো: বখতিয়ার- আইন বিষয়ক সম্পাদক যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ, কাজী কয়েস আহমেদ- জনসংযোগ সম্পাদক যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ, আব্দুর রহিম বাদশা- সাংগঠনিক সম্পাদক যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ, চন্দন দত্ত- সাংগঠনিক সম্পাদক যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ, ফরিদ আলম- শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ, মিসবাহ আহমেদ- মানবাধিকার সম্পাদক যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ, শরীফ কিউ. আলম (হীরা)- সদস্য যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ, কায়কোবাদ খান- সদস্য যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ, জালাল উদ্দিন জলিল- সভাপতি শেখ হাসিনা মুক্তি মঞ্চ, অধ্যাপিকা মমতাজ শাহনাজ- সভাপতি যুক্তরাষ্ট্র মহিলা আওয়ামী লীগ, আশরাফ উদ্দিন- সহ-সভাপতি যুক্তরাষ্ট্র স্বেচ্ছাসেবক লীগ, সুবল দেবনাথ- সাধারণ সম্পাদক যুক্তরাষ্ট্র স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ডি. এম. রনেল- সহ সভাপতি যুক্তরাষ্ট্র স্বেচ্ছাসেবক লীগ, নাফিকুর রহমান তুরান- সহ-সাধারণ সম্পাদক যুক্তরাষ্ট্র স্বেচ্ছাসেবক লীগ, আশাফ মাসুক- সদস্য যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ, সেবুল মিয়া- যুগ্ম আহŸায়ক যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগ, শেখ জামাল উদ্দিন- আহŸায়ক যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগ, সাখাওয়াত হোসেন চঞ্চল আওয়ামী লীগ নেতা, রাইসুল জামান সুমন যুগ্ম আহŸায়ক, মঞ্জুর চৌধুরী- সহ সভাপতি যুক্তরাষ্ট্র শ্রমিকলীগ, খন্দকার জাহিদুল ইসলাম- সভাপতি নিউইয়র্ক সিটি যুবলীগ, গিয়াসউদ্দিন রুবেল বাভ- সহ-সভাপতি যুক্তরাষ্ট্র স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শেখ মো: জুয়েল, আব্দুল জলিল- রংপুর মহানগর আওয়ামী লীগ/সদস্য, শারমিন কামাল, আতাউর রহমান তালুকদার, বি.এম জাকির হোসেন (হিরু), মাসুদ মোল্লা- সভাপতি গোপালগঞ্জ সমিতি যুক্তরাষ্ট্র, মো: ইলিয়ার রহমান- সাধারণ সম্পাদক গোপালগঞ্জ সমিতি যুক্তরাষ্ট্র প্রমুখ।