Bangla Newspaper

সাতক্ষীরায় গৃহবধূকে ধর্ষণের দায়ে দু’জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল

45

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি:
সাতক্ষীরায় এক গৃহবধূকে ধর্ষণের দায়ে স্বামীসহ দুই জনের যাবজ্জীবনকারাদন্ড, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেছেন আদালতমঙ্গলবার দুপুরে সাতক্ষীরা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক
হোসনে আরা আক্তার এ রায় ঘোষণা করেন।সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ওয়ারিয়া গ্রামের মৃতঅতুল কুমার ঘোষের ছেলে তপন কুমার ঘোষ (৪০) এবং একই গ্রামের জয়মোড়লের ছেলে ও ধর্ষিতা গৃহবধূর স্বামী নিমাই মোড়ল (৩৫)।
মামলার বিবরণে জানা যায়, গত ২০০০ সালের প্রথম দিকে সাতক্ষীরা সদউপজেলার ওয়ারিয়া গ্রামের জয় মোড়লের ছেলে নিমাই মোড়লের সাথে খুলনজেলার কয়রা উপজেরার বেতকাশি গ্রামের বঙ্কিম চন্দ্র সরকারের মেয়ের সাথেবিয়ে হয়। বিয়ের পর নিমাই মোড়লের স্ত্রী জানতে পারেন তার স্বামী একজনমাদকাশক্ত। আর তার এই মাদকের টাকা সরবরাহ করতো তারই বন্ধু তপন কুমারঘোষ। বিনিময়ে তপন তার বন্ধু নিমাই মোড়লের স্ত্রীকে বিভিন্ন সময কপ্রস্তাব দিতো। এক পর্যায়ে তপন তার বন্ধু নিমাই মোড়লের সহযোগিতায়
তার স্ত্রীকে কয়েক দফায় ধর্ষন করে। বিষয়টি নিয়ে ওই গৃহবধূর সাথে তারস্বামী ও স্বামীর বন্ধু তপনের সাথে মনোমালিন্য হয়। এরই জের ধরে ২০০৬সালের ১০ ফেব্রয়ারী রাত ১২ টার দিকে তপন তার বন্ধু নিমাই মোড়লের ঘরেঢুকে তার স্ত্রীকে জোরপূর্বক ধর্ষন করার চেষ্টা করে। এতে ওই গৃহবধূ বাধাদিলে তার স্বামী নিমাই মোড়লের সহযোগিতায় তপন তার যৌনাঙ্গে লাঠিদিয়ে আঘাত করে। এ ঘটনার দুই দিন পর ১৩ ফেব্রæয়ারী ওই গৃহবধূর বাববঙ্কিম চন্দ্র সরকার তার জামাইয়ের বন্ধু তপন কুমার ঘোষ ও তার জামাইনিমাই মোড়লকে আসামী করে সাতক্ষীরা সদর থানায় একটি মামলা দায়েরকরেন।এ মামলায় মঙ্গলবার ৮ জন স্বাক্ষীরা সাক্ষ্য গ্রহণ ও নথি পর্যালোচনান্তআসামিদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় সাতক্ষীরা নারী ওশিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক উক্ত দুই আসামিকে ধর্ষণের
দায়ে যাবজ্জীবন কারাদন্ড, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয়মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন।

সাতক্ষীরা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পিপিঅ্যাডভোকেট জহুরুল হায়দার বাবু বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এ রায়ের
সময় আসামিদ্বয় পলাতক ছিলো।##

Comments
Loading...