যশোরে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে আহত করেছে দূর্বৃত্তরা

424
gb

যশোর প্রতিনিধি : যশোরে রাকিব হাসান (২৮) নামে এক কলেজ ছাত্রকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর আহত করেছে দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার রাতে নীলগঞ্জ সেতুর ওপর তিনি আক্রান্ত হন। রাকিব ছাত্রলীগ সরকারি সিটি কলেজ শাখার যুগ্ম-সম্পাদক ও শহরের নীলগঞ্জ সাহাপাড়ার জাকির হোসেনের ছেলে।
অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় রাকিবকে উন্নত চিকিৎসা দিতে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। তার ওপর হামলার প্রতিবাদের সিটি কলেজ ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা যশোর জেনারেল হাসপাতালের সামনে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন।
আহতের বন্ধুরা জানান, রাকিব হাসান যশোর সরকারি সিটি কলেজ থেকে মাস্টার্স পরীক্ষা দিয়েছেন। বর্তমানে তিনি নীলগঞ্জ এলাকায় ‘বাবলু ইঞ্জিনিয়ারিং’ নামে একটি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। নীলগঞ্জ ব্রিজের ওপর নসিমনের টোল আদায়কারী ওহিদুল নামে এক যুবকের সঙ্গে তার বিরোধ ছিল। রাত সাড়ে সাতটার দিকে রাকিব নীলগঞ্জ ব্রিজের ওপর দাঁড়িয়ে ছিলেন। এসময় ওহিদুলসহ ৩-৪ দুর্বৃত্ত ধারালো অস্ত্র দিয়ে রাকিবের মাথা, পেট ও পায়ে এলোপাতাড়ি কোপায়।। খবর পেয়ে তাকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়।
রাকিব হাসান যশোর সিটি কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম-সম্পাদক বলে নিশ্চিত করেছেন সংগঠনের জেলা সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী। তিনি বলেন, ‘আজ রাতে সে (রাকিব) নীলগঞ্জ ব্রিজের ওপর দাঁড়িয়ে ছিল। এসময় দুর্বৃত্তরা তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসা দিতে খুলনা নেওয়া হয়েছে।’
ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আটক এবং বিচারের দাবিতে ছাত্রলীগ রাত সোয়া নয়টার দিকে শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে বলে জানান শাহী।
হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তার কল্লোল কুমার সাহা রাতে বলেন, ‘রাকিবের অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক।’
সার্জারি ওয়ার্ডের সিনিয়র নার্স শামসুন্নাহার ডাক্তার শরিফুল আলম খানের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, ‘অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক হওয়ায় রাকিবকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।’
যশোর সদর পুলিশ ফাঁড়ির ইনসপেক্টর মো. মতিউর রহমান বলেন, ‘এরকম ঘটনা আমার জানা নেই। এখনই খবর নিয়ে দেখছি।’
হাসপাতাল থেকে কোতয়ালী থানার এসআই আসাদুজ্জামান বলেন, ‘কলেজ ছাত্রকে ছুরিকাঘাতের খবর শুনে থানা থেকে আমরা পৃথক দুটি মোবাইল টিম হাসপাতালে এসেছি। ঘটনার সাথে জড়িতদের আটকের জন্য পুলিশ অভিযানে যাচ্ছে।’