এলাকার প্রকৃতিতে মুগ্ধ “ফাগুন হাওয়ায়” ছবির ফজলুর রহমান বাবু ও সাবরিনা তন্নী

465
gb

মোঃ আব্দুল আজিজ, পাইকগাছা  খুলনা ||
পাইকগাছায় ব্যস্ত সময় পার করছেন “ফাগুন হাওয়ায়” ছবির অভিনেতা ও অভিনেত্রীরা। অভিনেতা ও অভিনেত্রীদের মধ্যে অনেকেই শুটিং’র ফাঁকে সুযোগ পেলেই উপভোগ করছেন এলাকার প্রকৃতি। পড়ন্ত বিকেলের অপরূপ প্রকৃতি মুগ্ধ করেছে বলে জানিয়েছেন “ফাগুন হাওয়ায়” ছবির অন্যতম অভিনেতা ফজলুর রহমান বাবু ও অভিনেত্রী সাবরিনা তন্নী। সরাসরি ৫২’র ভাষা আন্দোলনের প্রেক্ষাপটের উপর নির্মিত “ফাগুন হাওয়ায়” ছবির সংলাপ, চিত্রনাট্য ও পরিচালনায় রয়েছেন জনপ্রিয় অভিনেতা ও পরিচালক তৌকির আহমেদ। পরিচালক তৌকির গত ১০ মার্চ পাইকগাছা থেকে ছবির শুটিং’র কাজ শুরু করেছেন। এক ঝাক তারকা অভিনেতা ও অভিনেত্রী গত ৯ দিন পাইকগাছায় অবস্থান করে শুটিং’র কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন। ছবির প্রধান চরিত্রে নাসিরের ভূমিকায় অভিনয় করছেন অভিনেতা সিয়াম ও দীপ্তি চরিত্রে রয়েছেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী নুসরাত ইমরোজ তিশা। ছবিতে একমাত্র বিদেশী অভিনেতা হিসেবে পাকিস্তানী পুলিশ কমান্ডার চরিত্রে অভিনয় করছেন বলিউড অভিনেতা ইয়াসপাল শর্মা। ছবির বেশির ভাগ তারকা ও জনপ্রিয় অভিনেতা এবং অভিনেত্রীরা বর্তমানে পাইকগাছায় অবস্থান করছেন। সব শেষে গত শুক্রবার শুটিং-এ যোগ দিয়েছেন জনপ্রিয় অভিনেতা আবুল হায়াত। ছবির বেশির ভাগ শুটিং স্পট পাইকগাছার দর্শনীয় স্থান নির্ধারণ করায় প্রতিদিনই থাকছে শুটিং’র কাজ। এ জন্য ছবির প্রত্যেক অভিনেতা-অভিনেত্রী শুটিং’র কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন। অনেক ব্যস্ততার মাঝেও একটু সুযোগ পেলেই অনেকেই উপভোগ করছেন এলাকার প্রকৃতি। শুটিং’র ফাঁকে এমনি সুযোগ পেয়ে রোববার পড়ন্ত বিকেলে এলাকার প্রকৃতি উপভোগ করতে কোন নিরাপত্তা ছাড়াই বেরিয়ে পড়েন “ফাগুন হাওয়ায়” ছবির অন্যতম অভিনেতা ফজলুর রহমান বাবু ও অভিনেত্রী সাবরিনা তন্নী। ছবিতে চন্দর চরিত্রে থানার জমাদারের ভূমিকায় অভিনয় করছেন ফজলুর রহমান বাবু। ছবিতে ফজলুর রহমান বাবুর মেয়ে হচ্ছে ঝুমুর। ঝুমুর চরিত্রে অভিনয় করছেন বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী সাবরিনা তন্নী। সাবরিনা মূলত থিয়েটার, নাটক ও সিরিয়াল করে থাকেন। তার অভিনীত আবুল হায়াত পরিচালিত জনপ্রিয় নাটক “তিন পাগলের হলো মেলা”, জাহিদ হাসানের সিরিয়াল “বাচ্চু সমাচার” অন্যতম। তার অভিনীত ২টি সিরিয়াল “খান্দানী পরিবার” ও “বাচ্চু সমাচার” সপ্তাহের ৬ দিন এশিয়ান টিভিতে প্রচারিত হচ্ছে। এলাকার প্রকৃতি উপভোগ করার সময় জনপ্রিয় এ অভিনেতা-অভিনেত্রী সাধারণ মানুষের ভিড়ে হারিয়ে যাওয়ার উপক্রম হন। প্রিয় অভিনেতার সাথে ছবি ও সেলফি তোলার জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়েন সবায়। হঠাৎ শিববাটী ব্রীজের উপর শিক্ষা সফরে আসা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সামনে পড়েন ফজলুর রহমান বাবু। প্রিয় অভিনেতাকে পেয়ে সকলের মধ্যে সেলফি তোলার প্রতিযোগিতা শুরু হয়। ফিশারিজ বিভাগের শিক্ষার্থী নুরে জান্নাত ও হালিমাতুজ সাদিয়া জানান, এভাবে হঠাৎ পড়ন্ত বিকেলে প্রিয় অভিনেতার দেখা পাইব, কখনও কল্পনাও করতে পারিনি। আর যখন দেখায় পেয়েছি তখন সেলফি তোলার সুযোগটুকু হাতছাড়া করিনি। এ সময় এলাকার প্রকৃতি প্রসঙ্গে অভিনেতা ফজলুর রহমান বাবু জানান, প্রতিদিনই শুটিং’র কাজে ব্যস্ত থাকি। একটু সুযোগ পেলেই বেরিয়ে পড়ি এলাকায়। আজ (রোববার) পড়ন্ত বিকেলে এলাকার প্রকৃতির খুব কাছ থেকে উপভোগ করেছি। অনেকদিন পর শিবসা নদীর উপর দাঁড়িয়ে পড়ন্ত বিকেলের সূর্যাস্তের রক্তিম লালিমা উপভোগ করেছি। নদীর ধারে সবুজ প্রকৃতি আর পাইকগাছা-কয়রা সড়কের পাশে সবুজ বনায়নে পাখিদের মিলন মেলা উপভোগ করা ছিল এক অন্য রকম আনন্দ। প্রকৃতি প্রেমী এ অভিনেতা জানান, পাখি প্রকৃতির অংশ। সাইব্রেরিয়া থেকে এ সব পাখিদের আসা আমরা অতিথি পাখি বলে থাকি। মানুষের সুন্দর বসবাস ও পৃথিবীকে সুন্দর রাখার জন্য এ সব পাখিদের সংরক্ষণ করতে হবে। ওদেরও বাঁচার অধিকার রয়েছে। প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষায় ওদের বিরাট ভূমিকা রয়েছে। আমরা মানুষ যেমন অস্বাভাবিক মৃত্যু আসা করি না, পাখিদেরও যাতে অস্বাভাবিক মৃত্যু না হয় এদিকে আমাদের সকলকে দৃষ্টি রাখতে হবে। একইভাবে এলাকার প্রকৃতির অপরূপ রূপ দারুনভাবে মুগ্ধ করেছে বলে জানিয়েছেন অভিনেত্রী সাবরিনা তন্নী।