পলাশবাড়ীতে সর্বত্রে ছড়িয়ে পড়েছে আমের মুকুলের মৌ মৌ গন্ধ

222
gb

 

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা

গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে সর্বত্রেছড়িয়ে পড়েছে গাইবান্ধা জেলার বিভিন্ন গ্রামাঞ্চলে আমের মুকুলেরমৌ মৌ গন্ধ।উপজেলার চাষ যোগ্য জমির আইল, বসতভিটায়, বিভিন্ন অফিস-আদালতচত্বরে, সরকারি বে-সরকারি পরিত্যক্ত ভূমি ছাড়াও এ অঞ্চলের অনেকেইবাণিজ্যিক ভাবে ছোট বড় আম বাগান গড়ে তুলেছেন। গতমৌসুমের তুলনায় এবার প্রাকৃতিক আবহাওয়ার ভারসাম্য ঠিক থাকায়
সিংহভাগ আম গাছে প্রত্যাশিত মুকুল এসেছে। প্রাকৃতিকআবহাওয়ার কোন দুর্যোগ না ঘটলে এবার আমের বাম্পার ফলন হবে বলেকৃষি সচেতনদের অভিমত। এখনো তেমন আমের মুকুল বিনষ্টের মতপ্রাকৃতিক বিপর্যয় দেখা যায়নি। গাছে গাছে মুকুলের অধিক
সমাহারে সবার মাঝেই বিরাজ করছে এখন ঝড় আতঙ্ক।গত বছরের তুলনা এ বছর প্রতিটি আমগাছে এসেছে আমের মুকুল।গ্রামে গ্রামে রয়েছে আমের ছোট বড় প্রচুর আম গাছ। মুকুলআসার পূর্বে আমগাছ মালিকরা তাদের আমের গাছের যতœ নেয়ার জন্য
বিভিন্ন পদ্ধতি গ্রহণ করে থাকেন।পলাশবাড়ী উপজেলার সর্বত্রই মুকুল আসা আম গাছের নানামূখীপরিচর্যা নিয়ে গাছ মালিকরা ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। আমগাছিমামুন মন্ডল ও মোসলেম উদ্দিন সহ আরও অনেকে জানান, এবার আবহাওয়াঅনুকুল থাকলে আমের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে।পলাশবাড়ী উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা আজিজুল ইসলাম জানান,উপজেলায় বিরাজমান আবহাওয়া ও মাটি আম চাষের জন্য বিশেষউপযোগী। মাঠ পর্যায়ে বসতবাড়ীর চতুরপাশ ছাড়াও দন্ডায়মান আমগাছে মুকুল থেকে শুরু করে শেষ পর্যন্ত গাছের আম যাতে কোন কারণেবিনষ্ট না হয় সে জন্য কৃষি বিভাগের সার্বক্ষনিক সতর্ক দৃষ্টিরয়েছে এবং কুষকদের বহুমূখী পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে।