হুমায়ূন আহমেদের অষ্টম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

83

জিবি নিউজ ডেস্ক ।।

বাংলা সাহিত্যের কিংবদন্তি কথা সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ। দেশের নাট্য ও চলচ্চিত্র জগতেও তার বিরাট অবদান। বহু নাটক এবং বেশ কিছু দর্শকপ্রিয় চলচ্চিত্র তিনি নির্মাণ করেছেন। নিজের অসাধারণ লেখনি ও নির্মাণশৈলী দিয়ে নিজেকে তিনি বইপ্রেমী এবং সিনেপ্রেমীদের মনে স্থায়ী আসন গেড়ে বসে আছেন। আজ সেই কিংবদন্তি সাহিত্যিক ও নির্মাতার অষ্টম মৃত্যুবার্ষিকী।

দিবসটি উপলক্ষ্যে কথাশিল্পী হুমায়ূন আহমেদের পরিবারের পক্ষ থেকে গাজীপুরের নুহাশ পল্লীতে প্রতি বছরই নানা আয়োজন থাকে। তবে এ বছর করোনা মহামারির জন্য কর্মসূচি সীমিত করা হয়েছে। সকালে হুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন ও তার দুই ছেলে বাবার কবর জিয়ারত করবেন বলে জানা গেছে। নুহাশপল্লীর ব্যবস্থাপক সাইফুল ইসলাম বুলবুল জানান, দিনটি উপলক্ষ্যে সকাল থেকে কোরআনখানির আয়োজন করা হয়েছে। সেই সঙ্গে প্রয়াত হুমায়ূন আহমেদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। হুমায়ূন আহমেদ বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় লেখক। উপন্যাসে নিজের প্রতিভার বিস্তার ঘটলেও তার শুরুটা ছিল কবিতা দিয়ে।
এরপর নাটক, শিশুসাহিত্য, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী, চলচ্চিত্র পরিচালনা থেকে শিল্প-সাহিত্যের প্রতিটি ক্ষেত্রেই তিনি রেখে গেছেন নিজের প্রতিভার স্বাক্ষর। ১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোণার কেন্দুয়া উপজেলার কুতুবপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ। তার বাবা ফয়েজুর রহমান ও মা আয়েশা ফয়েজ। ২০১২ সালে ১৯ জুলাই মারণব্যধি ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে তিনি নিউ ইয়র্কের একটি হাসপাতালে মারা যান।