এখন থেকে করোনা পরীক্ষায় লাগবে ইউজার ফি রয়েছে সেন্ট্রাল হাইফ্লো অক্সিজেন দেয়ার সূবিধে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে শুধমাত্র করোনা রোগিদের জন্য পৃথক ওয়ার্ড চালু

13
gb

জাকির হোসেন পিংকু,চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি:
চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে শুধুমাত্র করোনাভাইরাস শনাক্ত রোগিদের (কনফার্ম কেস) চিকিৎসার জন্য পৃথক কোভিড-১৯ আইসোলেশন ওয়ার্ড চালু করা হয়েছে। আপাতত: ১৮ শয্যার এই ওয়ার্ডে প্রত্যেক রোগিকে সেন্ট্রালি অপারেটেড হাইফ্লো অক্সিজেন দেবার সুবিধে রয়েছে। ওয়ার্ডের সাথে যুক্ত রয়েছে একটি সার্বক্ষনিক আ্যাম্বুলেন্স। এর সাহায্যে জেলার যে কোন করোনা রোগিকে তার বাড়ি থেকে নিয়ে এসে ওয়ার্ডে ভর্তি করে জীবন রক্ষায় নিয়ন্ত্রিত অক্সিজেন দেয়া যাবে। হাসপাতালের নতুন ভবনে স্থাপিত এই ওয়ার্ডে শয্যা সংখ্যা বাড়ানোর সুবিধে রয়েছে। সেই সাখে করোনা উপসর্গযুক্ত রোগিদের জন্য পৃথক ওয়ার্ড চালুর কাজ শুরু করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এদিকে করেনা পরীক্ষার জন্য সরকারী নির্দেশে চালু করা হয়েছে ‘ইউজার ফি’।
সোমবার(২৯’জুন) দুপুরে ওয়ার্ড চালুর সময় উপস্থিত ছিলেন, সিভিল সার্জন জাহিদ নজরুল চৌধুরী, সদর হাসপাতালের আরএমও নাদিম সরকার,মেডিসিন কনসালটেন্ট শফিকুল ইসলাম হেলাল,গাইনোকোলজিষ্ট সালমা আখতার পলি,এ্যানেসথেটিষ্ট শওকত হোসেন,করোনা ওয়ার্ডের সমন্বয়কারী ডা.নাহিদ ইসলাম মুন, জেলা বিএমএ সভাপতি দুররুল হোদা,জেলা স্বাচিপ সভাপতি গোলাম রাব্বানী,ডা.সাইফ জামান আনন্দ সহ সংশ্লিষ্টরা।
সিভিল সার্জন ও আরএমও জানান, শুধুমাত্র করোনা রোগিদের জন্য ওয়ার্ডটি ২৪ ঘন্টা চালু থাকবে। প্রতি টিমে চারজন চিকিৎসক ও চারজন নার্স রয়েছে এমন চারটি মেডিক্যাল টিম পালাক্রমে ওয়ার্ডে দায়িত্ব পালন করবে। ওয়ার্ডের রোগিদের জন্য ব্যবস্থা করা হয়েছে উন্নত খাবার সরবরাহ। নতুন ওয়ার্ড চালুর প্রথম দিন করোনা আক্রান্ত সদরের একজন স্বাস্থ্যকর্মী নতুন ওয়ার্ডে ভর্তি হয়েছেন।
এদিকে সিভিল সার্জন জানিয়েছেন, এখন থেকে করোনা শনাক্তের আরটি-পিসিআর টেষ্টের জন্য নির্দিষ্ট কোডে ট্রেজারী চালানের মাধ্যমে সরকারী কোষাগারে অর্থ জমা করতে হবে। গত রোববার(২৮’জুন) স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জারিকৃত এক পরিপত্রে এ ব্যাপারে আদেশ জারি করা হয়। এতে বলা হয়েছে বুথ বা হাসপাতালে ভর্তি রোগির ক্ষেত্রে দুই শত টাকা ও বাড়ি থেকে নমুণা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঁচশত টাকা করে পরিশোধ করতে হবে। তবে সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারী,বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং গরীব-দূস্থদের পরীক্ষার জন্য সরকার নির্ধারিত সুবিধে বহাল থাকবে। এতদিন সকল নমুণা পরীক্ষা বিনামূল্যে করা হত। কোন উপসর্গ ছাড়াই অনেকে বিনামূল্যে এই সুবিধে গ্রহণ করেছেন। অপ্রয়োজনীয় টেষ্ট এড়াতে এমন পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে বলেও জানান সিভিল সার্জন। ###

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন তবে আপনি চাইলে অপ্ট-আউট করতে পারেন Accept আরও পড়ুন