ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে প্রথম রায়ে পুলিশের শাস্তি

47
gb

মো:নাসির, জিবি নিউজ ২৪

দেশে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে এই প্রথম কোন মামলার রায়ে ফেনীর সোনাগাজী থানা পুলিশের সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে আট বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে ঢাকার একটি আদালত।                                                             
 

মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহানের বক্তব্য ভিডিও করে তার অনুমতি ছাড়া সেটি সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে সাবেক এই পুলিশ কর্মকর্তাকে দশ লাখ টাকা জরিমানাও করা হয়েছে।

আইনজীবীরা এই রায়কে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর জন্য একটি সতর্ক বার্তা হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

তারা জানিয়েছেন, থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার পদে থেকে অনুমতি ছাড়া কারও বক্তব্য রেকর্ড করে তা ছড়িয়ে দিয়ে গুরুতর অপরাধ করা হয়েছে বলে আদালত পর্যবেক্ষণে বলেছে।

মানবাধিকার কর্মীরা বলছেন, এই রায় থেকে শিক্ষা নিয়ে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে আরও সতর্ক হওয়া উচিত।

ঢাকার সাইবার ক্রাইম ট্রাইবুনাল জরিমানার টাকা নিহত নুসরাত জাহানের পরিবারকে দিতে বলেছে।

আইনজীবীরা জানিয়েছেন, অভিযোগ ওঠার পর মোয়াজ্জেম হোসেনকে পুলিশের চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছিল। এখন সাজা হওয়ার পর তার আর চাকরি ফেরত পাওয়ার সুযোগ নেই বলে তারা মনে করেন।

মামলার বাদি সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সৈয়দ সায়েদুল হক বলেছেন, আদালত এই রায় এবং পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলোর প্রতি সতর্ক বার্তা দিয়েছে বলে তিনি মনে করেন। আদালত তার পর্যবেক্ষণে বলেছে, অফিসার ইনচার্জ হিসেবে দায়িত্ব পালনে মোয়াজ্জেম হোসেন পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছেন এবং যে মেয়েটি শ্লীলতাহানির শিকার হয়ে থানায় গেলো সাহায্যের জন্য, এই ভিডিও করার মাধ্যমে তাকে দ্বিতীয়বার শ্লীলতাহানির মুখোমুখি করা হয়েছে। আদালত আরও বলেছে, নাগরিক অধিকার রক্ষা না করে তিনি অপরাধ করেছেন, সেজন্য তার সর্বোচ্চ শাস্তি হওয়া উচিত। এই রায়টি একটি সিগন্যাল যে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীতে এভাবে চিন্তা করা যাবে না।

নুসরাত জাহানকে যৌন হয়রানি করা হয়েছে এই অভিযোগে তার মা মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন গত মার্চ মাসে। সে সময় সোনাগাজী থানায় তার জবানবন্দি নিয়েছিলেন ঐ থানা পুলিশের তৎকালীন ওসি বা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোয়াজ্জেম হোসেন।

এর কয়েকদিন পর মাদ্রাসার ছাদে অধ্যক্ষের সহযোগীরা নুসরাত জাহানের গায়ে আগুন লাগিয়ে দিলে দেশজুড়ে তা আলোচনার সৃষ্টি করে। তখন নুসরাতের সেই জবানবন্দির ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়া হয়েছিল।

নুসরাতের অনুমতি ছাড়া ভিডিও করা এবং তা ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে তখন মোয়াজ্জেম হোসেনে বিরুদ্ধে মামলাটি হয়েছিল।

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More