১৬ ডিসেম্বরের মধ্যে রাজাকারদের তালিকা প্রকাশ করা হবে

111

ঝিনাইদহ //

আগামী ১৬ ডিসেম্বরের মধ্যেই মাঠ পর্যায়ে দেশের সকল রাজাকারদের তালিকা প্রকাশ করা হবে। দ্রুতগতিতে এ তালিকা প্রণয়নের কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। বৃহস্পতিবার দুপুরে ঝিনাইদহের শৈলকুপায় মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধনকালে মন্ত্রী এ কথা বলেন। মন্ত্রী একই সাথে মহেশপুর ও হরিনাকুন্ডু উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন করেন। এসময় ঝিনাইদহ-১ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল হাই, খালেদা খানম এমপি, জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ, পুলিশ সুপার মো: হাসানুজ্জামান, শৈলকুপার ইউএনও উসমান গণি, সাবেক জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মকবুল হোসেন, উপজেলা চেয়ারম্যান শিকদার মোশাররফ হোসেন ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মনোয়ার হোসেন মালিথা উপস্থিত ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী শৈলকুপা উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে মুক্তিযোদ্ধাদের এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে যোগদেন। তথ্য নিয়ে জানা গেছে, ঝিনাইদহের ৫ উপজেলার রাজাকারদের তালিকা প্রণয়ন করেছে উপজেলা সমাজসেবা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দপ্তর। হরিণাকুন্ডুতে রাজাকারদের তালিকা প্রণয়ন করা হয়নি। অনেক উপজেলায় রাজাকার ও অমুক্তিযোদ্ধারা সরকারী ভাতাসহ বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা পাচ্ছে এমন অভিযোগ ওঠায় নতুন করে যাচাই বাছাই করার পক্রিয়া চলছে। তাছাড়া চিহ্নত রাজাকার ও তাদের পরিবারের সদস্য এখন সরকারী দল করছে জোরেসোরে। এদিকে ‘ঝিনেদার কথা’ নামক দুটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, পাঠ্যপুস্তকে মুক্তিযুদ্ধের কথা যেমন লেখা থাকবে তেমনি পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসরদের কথাও লেখা থাকবে। যেন ভবিষ্যত প্রজন্ম বিচার করতে পারে কে ভালো কাজ করেছে আর কে খারাপ কাজ করেছে।