মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে সিজারের সময় টানা হেচড়ায় শিশুর গলার রগ কেটে মৃত্যু

282
gb

জিবি নিউজ ডেস্ক।।

মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে ডাক্তারের অনুপস্থিতিতে প্রসূতির সিজার করলেন নার্স। সিজারের সময় নবজাতকের গলা কেটে ফেলা হয়েছে। এতে ওই নবজাতকের মৃত্যু হয়েছে।

নবজাতকের গলা কেটে গেলে অবস্থা বেগতিক দেখে ডেলিভারি শেষ না করে অপারেশন থিয়েটারে মা-শিশুকে রেখে পালিয়ে যান নার্সরা। পরে অপারেশন থিয়েটারে গিয়ে স্বজনরা দেখেন নবজাতকের অর্ধেক মায়ের পেটে এবং মাথা ও হাত বাইরে। এ অবস্থায় ওই মা-শিশুকে অন্য ক্লিনিকে নেয়া হয়। সেখানে মৃত নবজাতকের জন্ম হয়। মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে গত রবিবার এ ঘটনা ঘটে। তবে বৃহস্পতিবার শিশুটির বাবার সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমের স্ট্রেটাসের মাধ্যমে বিষয়টি আলোড়িত হয়।

নিহত নবজাতকের পিতার ফেইসবুক থেকে হুবহু তোলে ধরা হলো।
সন্তানের মৃত্যুতে বাবার বলা কিছু কথা।
আজকে নিজেকে খুব অপরাধি মনে হয় নিজের টাকা পয়সা থাকা সত্যও নিজের সন্তান এর লাশ কাঁদে করে নিয়ে আসতে হলো বাড়ীতে।মৌলভীবাজার সদর হাসপাতাল শনিবার রাতে ডেলিভারীর জন্য স্ত্রীকে ভর্তি করি যখন অবস্থা খারাপ দেখেছি নার্স কে বলেছিলাম,নরমাল ডেলিভারি হবে নাকি সিজার লাগবে নার্স বললো সিজার লাগবে।
সিজার এর জন্য মেডিসিন আনার জন্য একটা স্লিপ দিলো আমি মেডিসিন এনে দিলাম তার পর বললো রক্ত লাগবে। আমাকে রক্ত আনতে পাটিয়ে সিজারের রোগী কে নরমাল ডেলিভারির জন্য নিয়ে গেলে যখন আমি রক্ত নিয়ে আসলাম তখন আমার মা বললো নার্স নাকি নরমাল ডেলিভারি করছে।
আমি ভাবলাম নরমাল হলে তো ভালো এর কিছুক্ষণ পরে নার্স এসে বলে আপনার বাচ্চা আর বেছে নেই মায়ের অবস্থাও ভালো না মাকে বাচাতে হলে এখানে একটা সই দেন আমি কিছু চিন্তা না করে সই দিলাম বাচ্চার মাকে বাচাতে হবে যখন ভিতরে গেলাম তখন দেকলাম বাচ্চার হাত আগে বের করে পেলছে তার পর মাথা আর একটাও নার্স মেডিকেল নাই সবাই পালাইছে। আমার স্ত্রীকে একা রেখে তার পর যখন দেখলাম আমার স্ত্রী চেয়ে আছে তখন জিগ্যেস করলাম কি হয়ে ছিলো তখন আমার স্ত্রী বললো কুত্তার মতো নাকি টেনে বের করার চেস্টা করেছে চার পাঁচজন নার্স আমি তখন চেচাঁমেচি শুরু করে দেই প্রশাসন এর ও লোক চিলো মেডিকেল কিন্তু মুখ দিয়ে জিগ্যেস ও করেনি কে হয়েছে আমি ভাবলাম এটা সরকারি হসপিটাল সরকারের আল্লাহই কিছু করতে পারছেন না আমি তো সাধারন মানুষ আমি কি করতে পারবো তখন একটা চেলে এসে আমাকে দমকা দমকি করে আর বলতে থাকে চেচাঁমেচি করেন কেন আর ধাক্কা মেরে মাটিতে পেলে দেয় তার পর আরো অনেক বার ধাক্কা মারছে আমি চাইলে ওর গলা দিয়া অপারেশন করার কেচি ডুকিয়ে দিতে পারতাম কিন্তু চেয়ে দেকলাম আমি যদি কিছু করি তাহলেই প্রশাসন এর লোক এসে আমাকেই দরবে আমার মাথায় একটাই চিন্তা বাচ্চার মাকে বাচানো যায় কেমনে টিক তখন সময় আমাদের এলাকার কিছু ছেলে সাহায্য করলো আমায় আর আল্লাহর হুকুমে আমার wife এখন সুস্থ আছে তার পর পর আরেকটি জিনিস লক্ষ করলাম আমার কাছে থেকে যে সইটা নিয়া হয়েছে সেটা হলো বাচ্চা মরা গেলে মেডিকেল এর নার্স বা ডাক্তার দাহি না আমার প্রশ্ন আপনাদের কাছে আমার তো তখন মাথা টিক চিলো না কিন্তু আল্লাহ পাক তো দেখছেন অনেক আজগুবী ঘটনা তিনি ঘটান এদের এতো বড় জালিয়াতির শাস্তি কেনো আমার চোখের সামনে দিলেন না আমার মনটা তো একটু হলেও শান্তি পেতো আরো অনেক কথাই মনে পরে আমার মেয়েটার হাত চিরে পেলেছে ঘারের রগ চিরে পেলেছিলো টানতে টানতে জানি এদের কিচ্ছু হবি না কারন এদের পিছনে অনেক লম্বা হাত আছে তার পর ও আমি বলবো আমার মেয়েকে মাডার কারা হয়েছে ওরা বলিছিলো মেডিসিন ওদের জানা একটা ফার্মেসি থেকে আনতে আমি আনি নি ওরা বলেছিলো ওদের হসপিটাল থেকে ফ্রিজে থাকা বাজে রক্ত আনতে চার হাজার টাকা দিয়া আমি তাজা রক্ত আনছি ২৫০০ টাকা দিয়া যেই জিদে আমার সন্তানটাকে ওরা মেরে পেলেছে সবাই এধরনের জালিয়াতি থেকে বেচে থাকেন আমার টাকা নেই বলে কুনু নেতার লম্বা হাত নেই বলে কোনো একশন নিতে পারিনি

gb

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More