‘যত্ন প্রকল্পে’ ব্যাপক অনিয়ম ও দূর্নীতির বিরুদ্ধে গাইবান্ধায় মানববন্ধন

163
ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ
গাইবান্ধা  নারী ও শিশুদের কল্যাণে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের নেওয়া ‘ইনকাম সাপোর্ট প্রগ্রাম ফর দ্য পুওরেস্ট’ (আইএসপিপি) বা যত্ন প্রকল্পে ব্যাপক দুর্নীতি-অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।
 তালিকায় নাম অন্তর্ভুক্তির জন্য ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বারদের পাঁচ-ছয় হাজার টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এমন অভিযোগ উঠেছে গাইবান্ধা জেলাজুড়ে।
 এ প্রকল্পের  অনিয়ম দূর্নীতি বিরুদ্ধে মাঠে নেমেছে গাইবান্ধা নারী মুক্তি আন্দোলন।
আজ ২৩ জুন রবিবার দুপুর ১২ টায় গাইবান্ধায় এ বিষয়ে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়
জেলা শহরের ১ নং ট্রাফিক মোড়ে মানববন্ধন ও জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছেন এ সংগঠনটি।
মানববন্ধন থেকে নারী মুক্তি আন্দোলনের নেতৃবৃন্দের অভিযোগ  জেলায় লক্ষাধিক পরিবার যত্ন প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত হচ্ছেন। ইউনিয়নের জনসংখ্যা অনুপাতে এক হাজার দুই শ থেকে এক হাজার পাঁচ শ পর্যন্ত কার্ড দেওয়া হচ্ছে। যে পরিবারে গর্ভবতী নারী, শূন্য থেকে ২৪ মাস বয়সী শিশু অথবা দুই-চার বছর বয়সী শিশু রয়েছে, তাঁরাই হবেন যত্ন প্রকল্পের উপকারভোগী। উপকারভোগী গর্ভবতী হলে চারবার চেক-আপের জন্য চার হাজার টাকা পাবেন। শিশু জন্ম নেওয়ার ২৪ মাস পর্যন্ত মাসিক মনোদৈহিক সেশনে অংশ নিয়ে মা ও শিশু এক হাজার চার শ টাকা পাবেন।
 টানা তিন মাস সেশনে উপস্থিত থাকলে মা একটি বোনাস ভাতাও পাবেন। এ ছাড়া শিশুর বয়স পাঁচ বছর হওয়া পর্যন্ত প্রতি তিন মাস পরপর মনোদৈহিক সেশনে অংশ নেওয়ার জন্য সাত শ টাকা হারে ভাতা পাবেন। এসব আকর্ষণীয় সুযোগ-সুবিধার বিপরীতে জনপ্রতিনিধিরা অর্থের বিনিময়ে উপকারভোগী নির্বাচন করছেন।
মানববন্ধন থেকে নারী মুক্তি আন্দোলনের নেতৃবৃন্দ
ইউনিয়নে ইউনিয়নে মা-শিশু যত্ন প্রকল্পের নামে সীমাহীন দূর্নীতি-লুটপাট-বেচাকেনা বন্ধ করে প্রকল্প চালু রাখাসহ ঘুষের টাকা ফেরত ও জড়িতদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দবী জানায়।