সফল দুই বাংলাদেশী-আমেরিকান পুলিশ কর্মকর্তাকে সম্মাননা প্রদান করল নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল

হাকিকুল ইসলাম খোকন ||

বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল নিউইয়র্ক গত ২৫ জানুয়ারী এক বিশেষ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বাংলাদেশী-আমেরিকান দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে সম্মাননা প্রদান করেছেন।
প্রথমবারের মতো বাংলাদেশী-আমেরিকান কর্মকর্তাদের মধ্যে খন্দকার আব্দুলাহ নিউইয়র্ক সিটি পুলিশ ডিপার্টমেন্টে (এনওয়াইপিডি) ক্যাপ্টেন পদে পদোন্নতি পেয়েছেন যা বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত গৌরবময়। ক্যাপ্টেন আব্দুলাহ তাঁর যোগ্যতা ও কর্মদক্ষতার মাধ্যমে এনওয়াইপিডিতে এই সম্মানজনক পদ লাভ করেন। অন্য পুলিশ কর্মকর্তা সাইদ আলী সম্প্রতি সাবওয়ে স্টেশনে একাই পাঁচজন দুস্কৃতিকারীকে প্রতিহত করে ডিপার্টমেন্টের সুনাম বৃদ্ধির পাশাপাশি বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছেন। নববর্ষের পূর্বমুহূর্তের ঘটনাটি সেসময় নিউইয়র্কে এবং বিভিন্ন সামাজিক মিডিয়ায় বেশ আলোচিত হয়েছিল এবং নিউইয়র্ক সিটি মেয়র বিল দ্যা ব¬াজিও তাঁর এক টুইটার বার্তায় পুলিশ অফিসার আলীর পেশাদারিত্ব ও সাহসিকতার ভ‚য়সী প্রশংসা করেন।
অনুষ্ঠানটিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মান্যবর মাসুদ বিন মোমেন। নিউইয়র্ক সিটি পুলিশ ডিপার্টমেন্টের পুলিশ কমিশনার এর প্রতিনিধি হিসেবে ব্রুকলীন ব্যুরো সাউথ পেট্রল এর নির্বাহী কর্মকর্তা ও ডেপুটি চীফ চার্লস শল (উবঢ়ঁঃু ঈযরবভ ঈযধৎষবং ঝপযড়ষষ, ঊীবপঁঃরাব ঙভভরপবৎ ড়ভ চধঃৎড়ষ ইড়ৎড়ঁময ইৎড়ড়শষুহ ঝড়ঁঃয), বাংলাদেশী-আমেরিকান পুলিশ এসোসিয়েশনের (বাপা) সভাপতি সুজাত খান এবং সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবিরসহ বাপার অন্যান্য কর্মকর্তাগণও উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানস্থলে প্রদর্শিত একটি ব্যানারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাস্যোজ্জ্বল ছবি দেখিয়ে চার্লস স্কল বলেন, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বের অন্যাতম সফল নারী নেত্রী। তিনি নারী ক্ষমতায়নের প্রতিভ‚। তাঁর মত বিশ্বনেতার গতিশীল নেতৃত্বে আরো এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ”।
রাষ্ট্রদূত মাসুদ বলেন, “আমার প্রত্যাশা, যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বাঙালিসহ সারা বিশ্বের সকল প্রবাসী বাঙালি সম্প্রদায়ের বেড়ে উঠা নতুন প্রজন্ম ক্যাপ্টেন আব্দুল­াহ ও অফিসার আলীর সাফল্যে অনুপ্রাণিত হবে। তারা মেধা ও জ্ঞানের সৌকর্যে উজ্জ্বীবিত হয়ে বর্হিঃবিশ্বে স্ব স্ব দেশ ও বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করবে”।
অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্যে কনসাল জেনারেল মিজ্ সাদিয়া ফয়জুননেসা সম্মাননা প্রাপ্ত দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে অভিনন্দন জানান। এ সময় তিনি বলেন, “কনস্যুলেটের এই হল ঘরে প্রতিদিন অসংখ্য প্রবাসী বাংলাদেশীদের আমরা কনস্যুলার সেবা দিয়ে থাকি, আজ এই ঘরেই এমন দু’জন সফল বাংলাদেশী-আমেরিকানকে আমরা সম্মাননা জানালাম যাঁরা শুধু আমেরিকারই নয় বাংলাদেশের জন্যও সমান গর্বের। যদি আজ জাতির পিতা বেঁচে থাকতেন বাংলাদেশের অদম্য অগ্রযাত্রার পাশাপাশি বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত প্রবাসীদের এমন অব্যাহত সাফল্য দেখে নিশ্চয়ই মুগ্ধ হতেন”। কনসাল জেনারেল বাংলাদেশী-আমেরিকান পুলিশ কর্মকর্তাগণের প্রতি আহবান জানান, যেন তাঁরা অর্জিত জ্ঞান, অভিজ্ঞতা ও পেশাদারিত্বের মাধ্যমে আমেরিকা তথা সারা বিশ্ব এবং স্বাধীনতার মহান স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর স্বপ্নের ’সোনার বাংলা’-কে আরো এগিয়ে নিতে ভ‚মিকা রাখেন।
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশী-আমেরিকান সাংবাদিককৃন্দ ছাড়াও মিশন ও কনস্যুলেটের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন তবে আপনি চাইলে অপ্ট-আউট করতে পারেন Accept আরও পড়ুন