তৃতীয় দিন শেষে ২৩০ রানে এগিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা

3,533
gb

পচেফস্ট্রুম টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে তৃতীয় দিন শেষে ২ উইকেটে ৫৪ রান সংগ্রহ করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। প্রোটিয়াদের লিড এখন ২৩০ রান।

আগামীকাল রবিবার চতুর্থ দিনে ব্যাটিং করতে নামবেন দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান হাশিম আমলা (১৭) ও টেম্বা বাভুমা (৩)।

ম্যাচের শুধু শেষ বিকেলের অংশটা মনে করলে সেখানে আবার বাংলাদেশের সাফল্যই। আগের ইনিংসে দুই সফল ব্যাটসম্যান ডিন এলগার ও আইডেন মারকরামকে টাইগার বোলাররা ফেরালেন দ্রুতই। এলগার ১৮ রান করে ফিরেছেন শফিউল ইসলামের বলে লেগ বিফোর উইকেট হয়ে। ১৫ রান করে মোস্তাফিজুর রহমানের শিকার মারকরাম। কিন্তু তারপরও দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তনের গল্প লিখতে না পারলে এই টেস্টে এখনো পরাজয় ভালোভাবেই চোখ রাঙাচ্ছে।

টেস্টের বাকি এখনো দুই দিন। হাশিম আমলা ১৭ রান নিয়ে উইকেটে, সঙ্গী বাভুমা অপরাজিত ৩ রানে। ফ্যাফ দু প্লেসে, ডি ককরা নামবেন এরপর।

২৩০ রানের লিড তো ইতিমধ্যে জমা পড়েছেই। তার ওপর আরেকটা পরীক্ষা তো আছেই। চতুর্থ ইনিংসে ব্যাটিং। দেখা যাক তৃতীয় দিনে ভালো বোলিংয়ের এই শুরুটা তৃতীয় দিনেও ধরে রেখতে পারে কিনা বাংলাদেশ। তাতে চতুর্থ ইনিংসের প্রশ্নপত্র কিছুটা হলেও সহজ হবে হয়তো।

বাংলাদেশ ইনিংসে তিন-তিনটি ষাটের উপরে জুটি হলো, একটি পঞ্চাশোর্ধ। কিন্তু কোনোটাই শতরান বা তার উপরে গেল না। আর তাতেই ৩২০ রানে থামল বাংলাদেশের ইনিংস। ৫ উইকেটে ২৯২ রান করার পর হঠাৎ ঝড়ে মাত্র ২৮ রানে শেষ ৫ উইকেট হারিয়েছে টাইগাররা। আগের দুই দিন হতাশায় পার করার পর একটুখানি যদি কেউ স্বপ্ন তাড়িত হয়ে থাকে, তবে দিন শেষে সেটি পরিণত হয়েছে আরো বেশি হতাশায়।

প্রথম ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকার দেয়া ৪৯৬ রানের জবাবে বাংলাদেশ সব কয়টি উইকেট হারিয়ে সংগ্রহ করে ৩২০ রান। দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুতে ১৭৬ রানের লিড পায় প্রোটিয়ারা।

প্রসঙ্গত, এই ৩২০ রানের ইনিংসটি দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে টেস্টে টাইগারদের সর্বোচ্চ দলীয় ইনিংস। এই ইনিংসেই বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো কোনো টেস্ট ইনিংসে তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম, ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে পঞ্চাশের উপর জুটি গড়তে পেরেছেন।