ফকিরহাটে মৎস্য ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে মাছ চুরির ঘটনা চরম ভাবে বৃদ্ধি চাষিরা আতংকে

156
gb

 ফকিরহাট প্রতিনিধি।/

বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার প্রত্যান্ত গ্রামাঞ্চলে ধারাবাহিক ভাবে মৎস্য ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে মাছ চুরির ঘটনা চরম ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে হাজার হাজার মৎস্য চাষি তাদের পুজি হারিয়ে পথে বসার উপক্রম হয়েছে। যার কারনে এঅঞ্চলের মৎস্য চাষিরা মাছ চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন। বিষয়টি নিয়ে ক্ষতিগ্রস্থরা পুলিশ প্রশাসন সহ বিভিন্ন কর্মকর্তাদের কাছে অভিযোগ করেও কোন সুফল পাইনী। যে করনে তারা সাদা ও চিংড়ী মাছ চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন। জানা গেছে, উপজেলার বিভিন্ন স্থানে একটি চক্র দিনের পর দিন মৎস্য ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে মাছ চুরি অব্যাহত রেখেছে। তারা দিনে ও রাতের আধারে ঘেরের পাড়ে গিয়ে বিষ প্রয়োগ করে মাছ চুরি করছে। আর এই চুরির কারণে ঘেরের সকল মাছ মারা যাচ্ছে। কোন কোন সময় বিষের মাত্রা এতই বেশি যে সাদা ও চিংড়ী মাছ ছাড়াও কাদার ভিতরে থাকা কুচে ও বাইন মাছ পর্যন্ত মারা গিয়ে র্দুগন্ধের সৃষ্টি হচ্ছে। সরেজমিনে অনুসন্ধ্যানে গিয়ে দেখা গেছে, বুধবার রাতের অন্ধকারে বেতাগা ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য নির্মলেন্দু দেবনাথ (ছটকার) চাকুলী এলাকার একটি ৫বিঘার মৎস্য ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে প্রায় বিপুল পরিমানে মাছ নিয়ে যায়। এবং বাকি সাদা ও চিংড়ী মাছ সহ সকল মাছ বিষের বিষাক্তক্রীয়ায় মারা গিয়ে প্রায় ২লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন করা হয়েছে। তার ঘেরে গত ১০বছর ধরে একই কায়দার ধারাবাহিক ভাবে বিষ প্রয়োগ করে ক্ষতি সাধন করা হচ্ছে বলেও তিনি অভিযোগ করেন। একই রাতে পার্শ্ববর্তী শ্রীতিশ দাশের মৎস্য ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে লক্ষাধীক টাকার ক্ষতি সাধন করা হয়। এছাড়াও ৫নং ওয়ার্ডের সদস্য অসিত কুমার দাশের অর্গানিক বেতাগার পার্শ্বের লীজ নেওয়া ১৫কাঠার মৎস্য ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে দেড় লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি, একই দিন রাতে মোশারেফ হোসেনের ১৫কাঠার মৎস্য ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে লক্ষাধীক টাকার ক্ষতি করা হয়। এর আগের মাসে ধনপোতা-মাসকাটা বিলের মৎস্য চাষি বাতশা আলমের ১২বিঘার মৎস্য ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে ৩লক্ষাধীক টাকার ক্ষতি, আবুল হাসানের ৩বিঘার মৎস্য ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে ২লক্ষাধীক টাকার ক্ষতি, একই বিলের মৎস্য চাষি জাহাংগীর শেখ এর ২বিঘার মৎস্য ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে ক্ষতি ছাড়াও শুভদিয়া ইউনিয়নের কচুয়া ঘনশ্যামপুর গ্রামের মাহম্মুদ তরফদারের মৎস্য ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে ব্যাপক ক্ষতি সাধন করা হয়েছে। এছাড়া উপজেলার বাহিরদিয়া, ফকিরহাট সদর, নলধা-মৌভোগ, শুভদিয়া লখপুর মুলঘর ও পিলজংগ ইউনিয়ন সহ বিভিন্ন ইউনিয়নে ধারাবাহিক ভাবে মৎস্য ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে মাছ চুরির ঘটনা চরম ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। ঘের ব্যাবসায়ীরা রাতের পর রাত পাহারা দিয়েও বিষ প্রয়োগে মাছ চুরি বন্ধ করতে পারছেনা। একারনে তাদের মধ্যে বিষ আতংক বিরাজ করছে। ###