রাগের বশে পুলিশের সামনেই একে একে নিজের পোশাক খুলে ফেললেন এক তরুণী

190
gb

জিবি নিউজ24 ডেস্ক //

ভারতজুড়ে চলছে যৌন হেনস্থাবিরোধী  #MeToo আন্দোলন। কিন্তু এর মধ্যে মুম্বাইয়ের ওশিওয়াড়ায় খানিকটা উলটো ঘটনাই ঘটল। রাগের বশে পুলিশের সামনেই একে একে নিজের পোশাক খুলে ফেললেন এক তরুণী। সেই ঘটনার ছবি এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল।

এ নিয়ে রীতিমতো দ্বিধাবিভক্ত নেটিজেনরা। ঠিক কী হয়েছে তা পুরোপুরি স্পষ্ট নয়। কিন্তু ওই নারীর দাবি অনুয়ায়ী তাঁকে শারীরিকভাবে হেনস্তা করা হয়েছিল।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল একটি ভিডিওতে দেখা গিয়েছে একটি বিলাসবহুল হোটেলের লিফটের সামনে নিরাপত্তারক্ষীদের ধমক দিচ্ছেন ওই মহিলা। তাঁর কণ্ঠস্বর সপ্তমে। সামনে পুলিশকর্মীরাও রয়েছেন, তাদের সঙ্গেও চলছে বাকযুদ্ধ। হঠাৎই রাগের বশে পুলিশকর্মীদের সামনেই নিজের পোশাক খুলে ফেললেন ওই তরুণী।

কিন্তু ঠিক কী ঘটেছিল? বিস্তারিত তথ্য না পাওয়া গেলেও মেঘা শর্মা নামের ওই তরুণী সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবি করেছেন তাঁকে সেদিন শারীরিকভাবে হেনস্তা করা হয়েছিল। রাত তখন ১টা যখন হোটেলে হেনস্তার শিকার হন তিনি। সঙ্গে সঙ্গে ১০০ ডায়াল করে পুলিশে ফোন করেন মেঘা শর্মা। মিনিট দশেকের মধ্যেই ঘটনাস্থালে আসে পুলিশ। কিন্তু তারপরই বাঁধে বিপত্তি।

মেঘার দাবি পুলিশ এলে তাঁদের বিস্তারিত ঘটনার কথা তিনি জানিয়েছেন। কিন্তু ওশিওয়াড়া থানা সূত্রে খবর, পুলিশকর্মীরা তাঁকে সাহায্য করতে চাইলেও তা নিতে অস্বীকার করেন ওই নারী। তখন তাঁকে থানায় আসতে অনুরোধ করেন পুলিশকর্মীরা। তাতেও অস্বীকার করেন ওই নারী। সঙ্গে সঙ্গে তর্ক শুরু হয়ে যায় ওই নারী এবং পুলিশকর্মীদের মধ্যে। এরপরই রাগের বশে কাণ্ডটি ঘটিয়ে বসেন মহিলা।

সোশ্যাল মিডিয়া এই নিয়ে দ্বিধাবিভক্ত। এক শিবির বলছে, পুলিশকে যখন ডাকলেনই তখন তাদের সহযোগিতা করা উচিত ছিল ওই মহিলার।

আবার অন্য একশ্রেণি বলছে, ভারতীয় আইন অনুযায়ী মধ্যরাতে কোনও মহিলাকে থানায় নিয়ে যাওয়া যায় না, তাই ওই মহিলা নৈতিক কাজই করেছেন। তাছাড়া পুলিশের উচিত ছিল ঘটনাস্থলে যাওয়ার আগে মহিলা পুলিশকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে যাওয়া।