টাওয়ার হ্যামলেটস্ নির্বাচনে চ্যালেঞ্জিং ইস্তেহার: বেতনের ১৫% হোমলেসদের জন্য ব্যায়ের গোষণা অহিদ আহমেদের

365
gb

জিবিনিউজ ডেস্ক::

১৩ এপ্রিল পূর্ব লন্ডনের একটি হোটেলে ২০১৮ সালের ৩ মে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া টাওয়ার হ্যামলেটস্ নির্বাচনকে সামনে রেখে এস্পায়ার পার্টি গোষণা করে তাদের নির্বাচিনী ইস্তেহার। বিপুল সংখক নেতা কর্মীর উপস্থিতিতে উৎসব মুখর পরিবেশে অনুষ্টিত হয় ম্যানুফেস্টো লৌনচিং অনুষ্টান।সভায় পার্টির চেয়ারম্যান কে এম আবুতাহেরের সভাপতিত্ত্বে এবং নারী উন্নয়ন নেত্রী সাবিহা কামালীর পরিচালনায় ,বক্তব্য রাখেন সাবেক মেয়র লুৎফুর রহমান,

সেক্রেটারি লিলিয়ান কলিন্স ,কাউন্সিলর গুলাম রাব্বানী এবং প্রধান আকর্ষণ অহিদ আহমেদ ।মূলধারা এবং স্থানীয় সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে বক্তারা বর্তমান মেয়র জন বিগসবের কঠোর সমালোচনা করে তার ব্যার্থতার নানাধিক গুলো তুলে ধরেন এবং আগামী দিনের সমৃদ্দ টাওয়ার হ্যামলেট ঘটনে লুৎফুর রহমানের অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করণে ঘর মার্কায় অহিদ আহমেদকে নির্বাচিত করতে আহ্ববান জানানো হয়।
চ্যালেঞ্জজিং নির্বাচনী এই ইস্তেহার সম্পর্কে অহিদ বলেন আমি সবসময় চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করতে পছন্দ করি এবং অতীতেও আমরা অনেক অসাদ্ধকে সাধন করেছি। অভিজ্ঞতা এবং উন্নয়ন করার মন মানুষিকতা আর জনগণের ভালোবাসা আমার মূল শক্তি।

নিম্নে অহিদ আহমেদের নির্বাচনী ইস্তেহার তুলে ধরা হলো।

“আমি আবুল মনসুর অহিদ আহমেদ। সবার নিশ্চিত ভবিষ্যৎ নির্মাণ আমাদের লক্ষ। আমি পরিবর্তনে বিশ্বাসী । টাওয়ার হ্যামলেটসে এমন একটি উন্নয়নশীল ধারা আমি প্রতিষ্ঠিত করতে চাই যা সমগ্র ব্রিটেনের সকল স্থানীয় সরকার ব্যবস্থার জন্য আদর্শ হয়ে থাকবে।মানুষের মৌলিক চাহিদাকে প্রাধান্য দিয়ে গড়ে তুলতে চাই নিরাপদ আবাসস্থল যা থাকবে বারার বাসিন্দাদের সম্পূর্ণ সাধ্যের মধ্যে। আমি ঘরে তুলতে চাই এমন একটি প্রশাসনিক ব্যবস্থা যেখান থেকে বাসিন্দারা সহজে ভোগ করতে পারেন স্থানীয় সরকার কর্তৃক বাসিন্দাদের জন্য বরাদ্ধ সকল সুযোগ সুবিধা এবং যেখান থেকে তাঁরা বিকশিত করতে পারেন তাদের আগামী দিনের সম্ভাবনা। জনগণের মেয়র হতে চাই আমি। তাই আপনাদের কাছ থেকে শুনেছি কি করতে হবে আমাকে এবং আমি অঙ্গীকার করছি যে আপনাদের মেয়র নির্বাচিত হলে নিম্নলিখিত সবগুলো বিষয় কে আমি প্রাধান্য দিয়ে সম্পন্ন করব:

১) ২০২৬ সালের ভিতরে ১০ হাজার বাড়ি নির্মান। LBTH ভূমিকে ১০০% কাউন্সিল হাউস নির্মাণে ব্যাবহার করে নতুন বাসস্থান নির্মাণ করার মাধ্যমে গৃহহীনদের পুনর্বাসন নিশ্চিত করন ।
2)গৃহহীনদের সহায়তার জন্য মেয়র ফান্ড নামে নতুন ফান্ড গঠন করাহবে যেখানে মেয়রের বেতনের ১৫% নিয়মিত ভাবে দান করা হবে।
৩)লেখাপড়ার মান উন্নয়নের জন্য বারার প্রত্যেকটি স্কুলের শিক্ষার্থীদের জন্য ৪০০ পাউন্ড মেন্টাইনেন্স লোন এবং বিশ্ববিদ্যালয় গামি ছাত্রদের জন্য ১৫০০ পাউন্ড শিক্ষা বৃত্তি প্রদান নিশ্চিত করন ।
৪)সহায়তা প্রদান করা হবে ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ীদের এবং ট্যাক্সি এবং মিনি কেব চালকদের।
৫)নির্বাচিত হলে ৩০দিনের ভিতরে দারিদ্রতা এবং সামাজিক বৈষম্য দূরীকরণে ঘঠন করা হবে এন্টি প্রভাটি এন্ড ফেয়ারনেস কমিশন।
৬)তরুণ এবং যুবকরা হচ্ছেন আমাদের আগামীর ভবিষ্যৎ এই বাস্তবতা সামনে রেখে ইয়ুথদের জন্য সেবার পরিধিতে ব্যাপকতা ও বৈচিত্র নিয়ে আসতে প্রতি বছর আলাদা ১০ মিলিয়ন পাউন্ড ব্যায় নিশ্চিত করন।
৭)১০ হাজার নতুন কাজের সুযোগ সৃষ্টি ছাড়াও ,সর্বোচ্চ প্রযুক্ততি ব্যাবহারের মাধ্যমে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নিশ্চিত করে দক্ষ জনশক্তি সৃষ্টি করন।
৮)২০২২ সালের মধ্যে কাউন্সিলের জন শক্তিকে কমিউনিটির সর্ব পর্যায়ে কাজে লাগিয়ে কাঙ্খিত উন্নয়ন স্বাদিত করন ।
৯)বারাকে পুনরুজ্জীবিত এবং স্বমৃদ্ধ করার লক্ষে হোয়াটচ্যাপেলের পুরাতন হাসপাতাল ভবনে নতুন টাউনহল বিনির্মানের কার্যকরী ভূমিকা গ্রহণ এবং সম্পাদন করন ।
১০)বর্ণবাদী অপরাধ দমনে অতীতের ন্যায় কঠোর কার্যকর ব্যাবস্থা গ্রহণসহ নতুন করে ৬০ জন পুলিশ অফিসার নিয়োগ নিশ্চিত করন ।
১১)২০২০ সালের মধ্যে বারারকে পরিবেশ দূষণ মুক্ত রাখতে ৫০টি বিদ্যুতিক কার চার্জিং পয়েন্ট স্থাপন করাহবে যাতে করে বাসিন্দারা পরিবেশ বান্দব বৈদ্যুতিক কার গাড়ি ক্রয়ে উৎসাহ পান।
১২)উন্নয়নের জন্য তৃতীয় সেক্টর তহবিল প্রতিষ্টা এবং ফেইথ গ্রান্ড ইস্কিম নতুন করে চালু করন ।
১৩)টাওয়ার হ্যামলেট কাউন্সিলের উদ্দ্যোগে প্রতি বছর কমিউনিটি ফেষ্টিবেলা আযোজন নিশ্চিত করন।
১৪)বারার প্রত্যেক বয়স্ক নাগরিকদের জন্য ফ্রি হোম কেয়ারার ব্যাবস্থা পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা ,যাতে করে বয়স্ক নাগরিকগণ তাদের প্রয়োজনে সহজে হোম কেয়ার সেবা গ্রহণ করতে পারেন তা নিশ্চিত করুন ।

২০ বছরের বেশি সময় থেকে আমি এই কমিউনিটর উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি। ব্যক্তি জীবনে আমি স্থানীয় সরকারের অর্থ বিভাগের একজন কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছি এবং দীর্ঘ ১৪ বছর জনগণের নির্বাচিত কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। জীবনের একটি বিশাল অংশ আমি চেষ্টা করেছি জনগণের সেবায় নিজেকে আত্মনিয়োগের চেষ্টা করেছি । আপনাদের ভালোবাসা এবং সমর্থন নিয়ে জীবনের বাকি সময়টাও একজন নির্বাচিত মেয়র হিসেবে উৎসর্গ করতে চাই ।
আমি এই কথা জোর দিয়ে বলতে পারি যে আপনাদের ভালোবাসার এই বারা কে নেতৃত্ব দেয়ার অভিজ্ঞতা আমার আছে ,আর আমার যোগ্যতার ভার আমি আপনাদের ওপর ছেড়ে দিলাম।
আমি সাবেক এক্সিটাউটিভে মেয়র লুৎফুর রহমান প্রশাসনের ডেপুটি মেয়র (২০১০-২০১৪) হিসেবে ৪ বছর সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করি এই সময় আমরা সমগ্র ব্রিটেনের জন্য অনুকরণীয় কিছু সেবা চালু করি।
এ ছাড়াও আমি লেবার সরকারের সময়ে মিনিষ্টারিয়েল এডভাইজারী এপয়েন্টমেন্ট “লন্ডন থেমস গেইটওয়ে ডেভেলাপমেন্ট” প্রথম বাংলাদেশী বোর্ড “মেম্বার হিসেবে দায়িত্ব পালন করি। কাউন্সিলার হিসাবে এডুকেশন ও ইয়থ, রিজানেরেশন ও পার্টনারশীপ ,ফাইনান্স ও পারফরমেন্স কেবিনেট মেম্বার হিসাবে দায়িত্ব পালন করার সুযোগ আমার হয়েছে। আমি লেবার পার্টি থেকে সংসদীয় সুফলক আসন থেকে জাতীয় নির্বাচনে
এমপি পদ প্রার্থী হিসেবে অংশ নেই ।
আজ আমাদের ভালোবাসার টাওয়ার হ্যামলেট খুন ,এসিড সন্ত্রাস ও নেশা নামক মরণ ছুবলে মারাত্মক ভাবে আক্রান্ত। বেকারত্ব সহ-সামাজিক ও অর্থনৈতিক অনাচারে মানুষের জীবন নিরাপত্তাহীন। আমি চাই এই নাজুক অবস্থার অবসান। তাই সকলের সহ-অবস্থান নিশ্চিত করণে এবং নিরাপদ ও সমৃদ্ধ টাওয়ার হ্যামলেট বিনির্মানে আমাকে ৩ মে ২০১৮ এ ঘর প্রতীকে ভোট দিন। আরেকবার এগিয়ে আসুন অতীতের ন্যায় সকল ষড়যন্ত্র কে পিছনে ফেলে ,জনগণের মেয়র নির্বাচনে।