সাতক্ষীরায় পিডিবিএফ কর্মীদের বিক্ষোভ, মানববন্ধন , এমডি ঘেরাও, সংবাদ সম্মেলনে চাকুরি স্থায়ীকরন দাবি

325
gb

এম.শাহীন গোলদার,সাতক্ষীরা প্রতিনিধি:
পল্লী দারিদ্র্য বিমোচন কর্মসূচি ( পিডিবিএফ ) এর ১০০ কর্মীকে চাকুরীচ্যুত করা হয়েছে। বহুজনের বেতন ভাতা বন্ধরাখা হয়েছে । এ সবের বিরুদ্ধে যারা আইন সহায়তার জন্য আদালতের শরণাপন্ন হয়েছিলেন তাদেরকেও চাকুরীচ্যুত করাহয়েছে। এতো সবের পর কর্মীদের দাবির প্রেক্ষিতে সমস্যাসমাধানের কথা বলে পিডিবিএফএর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মদনমোহন সাহা ও প্রকল্প পরিচালক সহিদ হোসেন সেলিম ৭৫ জনকর্মীকে চাকুরীচ্যুতির জন্য সতর্কীকরন নোটীশ করে একঅরাজক পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছেন।শনিবার সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করেএকথা বলেন পিডিবিএফএর সৌর শক্তি প্রকল্পে কর্মরতসদস্যরা। এতে ভারপ্রাপ্ত সোলার কর্মকর্তা মো. সুমনহোসেন তার লিখিত বক্তব্য তুলে ধরেন । এ সময় বিভিন্নপর্যায়ের কর্র্মকর্তা হরপ্রসাদ বিশ্বাস, মেহেদি হাসানমারুফ, জাহাঙ্গির হোসেন ,আবদুল আজিজ, আমিনুলইসলাম, শাহ আলম, কালাম সানা , আশরাফ হোসেন , আলমগীর হোসেন, পিয়ার মন্ডল , মো. আশরাফুজ্জামান , আবদুল গফফার ,মশিউর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।লিখিত বক্তব্যে তারা বলেন পিডিবিএফএর সৌর শক্তি প্রকল্পের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মদন মোহন সাহার নিয়োগ অবৈধ বলে রিপোর্ট দিয়েছিল সংসদীয় কমিটি। তা সত্তে¡ও তিনি এই প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করে যাচ্ছেন বহাল তবিয়তে। এরই মধ্যে তিনি ও প্রকল্প পচিালক সহিদ হোসেন সেলিম মামলার খরচের নামে ৪০ লাখ টাকা আত্মসাত করেছেন। টিআর ও কাবিখা প্রকল্প থেকে শতকরা ৫ টাকা কমিশন নিয়ে ৬০ লাখ টাকা mআত্মসাত করেছেন। কর্মীরা বলেন এই দুই দুর্নীতিবাজেরকারণে পিডিবিএফএর অসংখ্য কর্মী এখন নানা ভোগান্তিরমধ্যে রয়েছেন। এরই মধ্যে তারা বহুজনের চাকুরি খেয়েফেলেছেন। সামান্য বেতনভ‚ক কর্মীরা এখন এক অমানবিকঅবস্থায় রয়েছেন। সংবাদ সম্মেলনে তারা বলেন মদন মোহনসাহা পিডিবিএফ সরকারি প্রতিষ্ঠানকে একটি এনজিও
বানানোর পাঁয়তারা করছেন। তার অদক্ষতার কারণে এইপ্রতিষ্ঠানে ২৫ কোটি টাকা খেলাপি বৃদ্ধি পেয়েছে। তারাআরও বলেন মদন মোহন সাহা তিনটি গাড়ি ব্যবহার করেন।তিনি অত্যন্ত বিলাসবহুল জীবন যাপন করেন। ঘন ঘন বিদেশ ভ্রমনকরেন। সে সময় অনেক অনৈতিকতার খবরও পাওয়া যায়।সংবাদ সম্মেলনে তথ্য উপাত্ত তুলে ধরে বলা হয় ৭ কোটি ৭৪ লাখটাকার টিআর কাবিখার কাজ করে ৬০ লাখ টাকা আত্মসাত করেছেন।সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তারা আরও বলেন পিডিবিএফকর্মীদের বহুমুখী সমস্যা নিয়ে তারা ২৬ ডিসেম্বর এমডিমদন মোহন সাহার সাথে খুলনা সার্কিট হাউসে সাক্ষাতকরেন। সেখানে আলোচনা অনুযায়ী এমডি বলেন ঢাকায়
বসে সব বিষয়ে তিনি সমাধান করবেন। এসব তথ্য তুলে ধরে কর্মীরা আরও বলেন ঢাকায় যেয়ে মদন মোহন ৭৫ জন কর্মীকে
চাকুরীচ্যুত করতে সতর্কীকরন নোটীশ করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তারা আরও বলেন ‘ আমরা চাকুরি স্থায়ীকরনের জন্য হাইকোর্টে রিট পিটশন করেছিলাম। এর সাথে সম্পৃক্ত কয়েকজনকে চাকুরিচ্যূুত করেনতারা। এর বিপরীতে আমরা হাইকোর্টে রিট করলে হাইকোর্টচাকুরিচ্যুতির আদেশ স্থগিত করে দেন। অথচ সেইস্থগিতাদেশও বাস্তবায়ন হয়নি উল্লেখ করে তারা বলেন তারা
তাদের চাকুরিতে যোগদান করতে পারেন নি। তারা আরও বলেনমদন মোহন সাহা ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক , অর্থ
পরিচালক, মানব সম্পদ উন্নয়ন পরিচালকসহ চারটি পদ দখল করেরয়েছেন। এভাবে তিনি তার দুর্নীতির জাল বিস্তার করে
চলেছেন। তারা বলেন আমরা আমাদের চাকুরি স্থায়ীকরন চাই। আমাদেরসমুদয় বকেয়া বেতন চাই। যাদেরকে অন্যায়ভাবে চাকুরিচ্যুত করা হয়েছে তাদের চাকুরি ফিরিয়ে দিতে হবে। এছাড়া দুই কর্মকর্তা মদন মোহন সাহা ও সহিদ হোসেন সেলিমের
অবৈধ নিয়োগ এবং তাদের টাকা আত্মসাত ও অন্যান্য অনিয়ম দুর্নীতির বিচার চাই।সংবাদ সম্মেলনের পর বিক্ষুব্ধ কর্মীরা সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সামনে এক মানব বন্ধন করে তাদেতর দাবি তুলে ধরেন। পরেপিডিবিএফএর এমডি মদন মোহন সাহাকে সাতক্ষীরা জেলা
অফিসে ঘেরাও করে অবস্থান ধর্মঘট করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন বিপুল সংখ্যক কর্মী।