কর্মক্ষেত্রে যেসব মন্তব্য কখনোই করবেন না

490
gb

মো: নাসির  নিউ জার্সি, আমেরিকা থেকে ||
বছর শেষে অনেক প্রতিষ্ঠান তাদের কর্মীদের মূল্যায়নপত্র দিয়ে থাকে। পরামর্শবিষয়ক ওয়েবসাইট ‘ওয়েল সেইড’-এর প্রেসিডেন্ট ডারলেন প্রাইসের মতে, মূল্যায়নটা ভালো হলে তা প্রতিষ্ঠান ও কর্মী উভয়ের জন্যই ভালো। তবে ভালো না হলে এমন কোনো মন্তব্য কর্মীদের করা ঠিক হবে না, যা তাদের নিজেদের ক্ষতি ডেকে আনে।
১. এসব কাজ আমার দায়িত্বের মধ্যে পড়ে না—এমন মন্তব্য কোনো কর্মী সাধারণত আবেগের বশে করে থাকে। কিন্তু একটি প্রতিষ্ঠান এমন কর্মী চায় না যারা দায়িত্বের বাইরে কাজ করতে নারাজ।
২. এ কাজের জন্য আমি টাকা পাই না—এ মন্তব্যও আগেরটির মতোই। এর মাধ্যমে আসলে আপনি জানান দিলেন যে পয়সা ছাড়া আপনি কোনো কাজই করবেন না।
৩. ‘যদি আমাকে ভালো মনে না হয়, তবে…।’ এই কথাও মুখে আনা যাবে না। কারণ বিশেষজ্ঞদের মতে, এমন কথা কাজ না পারার অজুহাত হিসেবে গণ্য হতে পারে।
৪. আমাকে আরো বেশি বেতন দেওয়া উচিত—এমন কথা বলার আগে আপনার দৃশ্যমান সফলতা তুলে ধরতে হবে। কারণ যুক্তি ছাড়া বাক্যটি ভিত্তিহীন।
৫. ‘আমি অন্য চাকরি খুঁজব, যদি না…।’ এভাবে বসকে আলটিমেটাম দেবেন না। এটা পেশাদার আচরণ নয়। কোনো অভিযোগ থাকলে তা নিয়ে আলোচনা করুন।
৬. চাকরিটা বিরক্তিকর—এমন মন্তব্যে পরিষ্কার হয়, আপনি বর্তমান দায়িত্ব পালনে ক্লান্ত হয়ে পড়েছেন। যদিও আপনি নিজের পরিবর্তে অন্য কাউকে নেওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন না।
৭. ‘এটা আপনাকে কে বলেছে?’ মূল্যায়নপত্র দেখে এমন কথা বলাটা শোভন নয়। এর চেয়ে বুঝে নেওয়ার ক্ষেত্রে বসের কাছ থেকে একটা উদাহরণ আশা করতে পারেন।
৮. আপনি ভুল করছেন—বসের সঙ্গে তর্কের সময় এমন বাক্য না বলাই ভালো। কারণ সুবিধা করতে পারবেন না। পেশাদার, বিনয়ী ও স্বাভাবিক আচরণ ফুটিয়ে তুলুন।
৯. আপনি একটু বেশি জটিল করে দেখছেন—এমন মন্তব্য থেকেও দূরে থাকুন। কারণ এতে মনে হতে পারে, আপনি কোনো দায়িত্ব নিতে চাইছেন না।
১০. আমার দোষ নেই, অমুকে করেছে—অনেকে প্রায়ই এ ধরনের মন্তব্য করে। কিন্তু ভালো কর্মীরা কখনো অন্যের ঘাড়ে দোষ চাপায় না। নিজেরটা নিয়ে কথা বলে।
১১. বসকে বলা যাবে না যে আমার কাছ থেকে এমনটা আশা করতে পারেন না। কাজে দক্ষ হওয়া সত্ত্বেও এ কথা আপনাকে অযোগ্য প্রমাণিত করতে পারে।
১২. গালাগাল করা কোনো অবস্থায়ই শোভন নয়। মেজাজ সামলাতে না পারলে সবই ভেস্তে যাবে।
১৩. আপনার করা বা বলা উচিত ছিল—বসকে এমন কথা বলতে যাবেন না। কারণ বসকে নিরাশ করে দিতে এর চেয়ে বাজে উপায় আর নেই।
১৪. অনেকেই বলে, ‘আমি কাউকে পাত্তা দেই না।’ অর্থাত্ প্রতিষ্ঠান কী চায়, তা নিয়ে আপনার মাথাব্যথা নেই। কাজেই প্রতিষ্ঠানে আপনার মতো কর্মী না থাকাই ভালো।