ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা লাখ ছাড়িয়েছে

159
gb

জিবি নিউজ ২৪

ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা এক লাখ ছাড়িয়েছে। ২০০০ সালে দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ শুরু হয়। এরপর ২০১৮ সাল পর্যন্ত ১৯ বছরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয় ৫০ হাজার ১৮১ জন। চলতি বছরের নভেম্বরে এসে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণে পৌঁছেছে। 

গত চব্বিশ ঘণ্টায় (গত বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে  শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) নতুন করে আরও ৭৩ জন আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ নিয়ে সরকারি হিসেবেই চলতি বছর ডেঙ্গু আক্রান্ত এক লাখ ২১ জন হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।

রাজধানী ঢাকার ৪১ হাসপাতাল এবং ৬৪ জেলার সিভিল সার্জনদের কাছ থেকে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নেওয়া রোগীর তালিকা সংগ্রহ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম এ তথ্য প্রকাশ করেছে। সরকারি হাসপাতালের আউটডোর, চিকিৎসকের ক্লিনিক ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হওয়া এবং বাসাবাড়িতে আক্রান্ত রোগীরা এই হিসাবের বাইরে রয়েছেন। ধারণা করা হচ্ছে, হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীদের বাইরেও আরও দুই থেকে আড়াই গুণ মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন।

এদিকে শুক্রবার ডেঙ্গুতে আরও আটজনের মৃত্যু নিশ্চিত করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। মৃত্যুর ঘটনা পর্যালোচনা করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) ডেথ রিভিউ কমিটি চলতি বছর এ পর্যন্ত ১২৯ জনের ডেঙ্গুতে মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছে। কমিটির কাছে এ পর্যন্ত ২৬৪টি মৃতদেহ পর্যালোচনার জন্য গেছে। এর মধ্যে ২০৩টি মৃত্যুর ঘটনা পর্যালোচনা করে কমিটি বলছে, ৭৪ জনের মৃত্যুর কারণ ডেঙ্গুজনিত নয়, তবে তাদের মৃত্যু কী কারণে হয়েছে, সে সম্পর্কে কমিটি কিছু বলেনি।

এদিকে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই এই কমিটির বিরুদ্ধে মৃত্যু নিয়ে লুকোচুরির অভিযোগ করে আসছেন সংশ্নিষ্ট বিশেষজ্ঞরা। তবুও নির্বিকার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংশ্নিষ্ট কর্মকর্তারা। সমকালের কাছে ডেঙ্গুতে ২৯৮ জনের মৃত্যুর তথ্য রয়েছে। তবে বেশির ভাগ গণমাধ্যম জানিয়েছে, মৃতের সংখ্যা আরও বেশি। এর আগে গত ১৯ বছরে মৃত্যু হয়েছে ২৮০ জনের।