খালি জায়গা ফেলে না রেখে শাক-সব্জির গাছ লাগান ……… শেখ আফিল উদ্দিন এমপি

100
gb

ইয়ানূর রহমান :

যশোর-১(শার্শা) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিন বলেন কৃষকরা দেশের সোনার ছেলে। যাদের সাথে কখনো কারো তুলনা করা যায়নি এবং ভবিষ্যতেও যাবে না। একজন কৃষক ঝড়-বৃষ্টি-শীত-গরম উপেক্ষা করে দিনরাত কায়িক পরিশ্রমের মাধ্যমে দেশের মাটিতে সোনার ফসল ফলায়। সেই ফসল ঘরে তুলে নিজের ভাগ্যের পরিবর্তণের পাশাপাশি দেশের মানুষের খাদ্যের জোগান দেওয়াসহ প্রয়োজনীয় চাহিদা মেটায়। তাই, জাতি কৃষকদের কাছে সকল সময় ঋণী। সোমবার (১১ নভেম্বর) বেলা ১১টার সময় শার্শা উপজেলা পরিষদের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত ২০১৯-২০ অর্থবছরে রবি মৌসুমের কৃষি প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে সার ও বীজ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে একথা বলেন তিনি। শার্শা উপজেলা সহকারি কর্মকর্তা (ভূমি) খোরশেদ আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্টিত উক্ত সার ও বীজ বিতরণ অনুষ্ঠানে শেখ আফিল উদ্দিন এমপি আরো বলেন যেদেশের কৃষি ব্যবস্থা উন্নত সে জাতি তত উন্নত। তাই, বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার এদেশের কৃষিতে সুফল বয়ে আনতে প্রায় এক যুগ ধরে কাজ করছেন। তাতে সফলতাও এসেছে অনেক। বিগত কয়েক বছরের মধ্যে আমরা সারা পৃথিবীর ধান চাষে ৪র্থ, সব্জিতে ৩য়, আম চাষে ৮ম ও মাছ চাষে ৪র্থ অবস্থান অলংকৃত করেছি। যা সম্ভব হয়েছে প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী চিন্তাভাবনার আলোকে কৃষকদের মাঝে ভর্তুকি দেওয়া আর আমার দেশের কৃষকদের কায়িক পরিশ্রম। শার্শা উপজেলা কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে অনুষ্টিত উক্ত অনুষ্ঠানে সাংসদ শেখ আফিল উদ্দিন কৃষকদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, বর্তমান প্রজন্মের কৃষকদের আরো চিন্তাশীল হয়ে কর্মের পরিধি বাড়াতে হবে। দেশের জনসংখ্যা বাড়ছে কিন্তু জমির পরিমাণ বাড়ছে না। তাই, অলস সময়ে চায়ের দোকানে সময় না কাটিয়ে আপনার পরিত্যাক্ত জমিতে সময় ব্যয় করতে হবে। কোথাও খালি জায়গা ফেলে না রেখে সেখানে লাউ-কচুসহ প্রয়োজনীয় শাক-সব্জির গাছ লাগান। তাতে আপনার সংসারে প্রয়োজনীয় বিষমুক্ত খাবার পাওয়ার পাশাপাশি বাড়তিগুলো হাটে বিক্রি করে অনেক টাকা পাবেন। তাতে কিছু না হলেও আপনার সন্তানের লেখাপড়ার খরচ জোগাতে সহায়ক হবে। এসময় তিনি কৃষকদের ধান চাষের পাশাপাশি সরিয়া, ভুট্রা, তিল, মুগ, সোলা, মসুরিসহ বিভিন্ন প্রজাতির শাক-সব্জি চাষের পরামর্শ দেন। পরে তিনি বিনামূল্যে ১৫২০ জন ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের মাঝে প্রকারভেদে প্রতিজনের ২ কেজি ভুট্রার বীজ, ১কেজি সরিষার বীজ, ১ কেজি মুগ ডালের বীজ ও ৩০ কেজি পরিমাণের সার বিতরণ। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের পর গীতা পাঠ করা হয়। পরে স্বাগত বক্তব্য রাখেন উক্ত অনুষ্ঠানের সার্বিক পরিচালনাকারি শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সৌতম কুমার শীল। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শার্শা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু, ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান, আলেয়া ফেরদৌস, গোগা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুর রশিদ ও লক্ষণপুর ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারা বেগম। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন শার্শা উপজেলার সকল ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষক।#