41
gb

বিশেষ প্রতিনিধি জিবি নিউজ ২৪

গ্রেফতারকৃত ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়ার টর্চার সেলের সন্ধান পাওয়া গেছে।

বুধবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর কমলাপুর রেল স্টেশনের উল্টো দিকে ইস্টার্ন কমলাপুর টাওয়ারে এই টর্চার সেলের সন্ধান পায় র‌্যাব-৩ এর একটি দল।

জানা গেছে , টর্চার সেলে নির্যাতনের অনেক ধরনের যন্ত্রপাতি রয়েছে। কেউ চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে তাকে টর্চার সেলে নিয়ে নির্মম নির্যাতন চালানো হতো।

এর আগে দীর্ঘ অভিযান শেষে গুলশানের বাসা থেকে খালেদকে অবৈধ অস্ত্র, গুলি, মাদকসহ গ্রেফতার করে র‌্যাব।

লাইসেন্সের শর্তভঙ্গের অভিযোগে বাসা থেকে উদ্ধারকৃত দুটি অস্ত্র জব্দ করে র‌্যাব।

একই সময় ফকিরাপুলের ইয়াংমেন্স ক্লাবে নিষিদ্ধ ক্যাসিনোতেও অভিযান চালায় র‌্যাব। এখান থেকে দুই নারীসহ ১৪২ জনকে গ্রেফতার করা হয়। এদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়েছে।

ক্যাসিনোতে মদ আর জুয়ার বিপুল সরঞ্জামের পাশাপাশি প্রায় ২৫ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়। ক্লাবটির নেতৃত্ব দেন খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া। অনেক দিন ধরে এখানে জুয়াসহ নানা অপকর্ম চলছিল। সাম্প্রতিককালে অতিমাত্রায় বেড়ে যাওয়ার পর বুধবার অভিযান পরিচালিত হয়।

র‌্যাব সূত্র জানায়, খালেদ মাহমুদের সন্ধানে বুধবার দুপুরের পর থেকে তার গুলশান-২ এর ৫৯ নম্বর রোডের ৫নং বাসা ঘিরে রাখে র‌্যাব। প্রিমোরোজ গার্ডেন নামের ৬ তলাবিশিষ্ট এই ভবনের তিন তলায় পরিবার নিয়ে থাকেন যুবলীগ নেতা খালেদ।

বাড়ির ব্যবস্থাপক জানান, প্রথমে ডিবি পরিচয়ে একদল লোক বাসায় আসে। এরপর আসে র‌্যাব। রাতে এখান থেকেই তাকে গ্রেফতার করা হয়।

এ সময় বাসার লকার এবং দেয়াল আলমিরা থেকে অবৈধ অস্ত্র, ইয়াবা, টাকা, ডলার উদ্ধার করা হয়।

এদিকে দুপুরের আগে থেকেই ফকিরাপুলের ইয়াংমেন্স ক্লাবটিও ঘিরে ফেলেন র‌্যাবের সদস্যরা। এ সময় কাউকেই ক্লাবের ভেতরে এবং ভেতর থেকে বাইরে আসতে দেয়া হয়নি। জ্যামার দিয়ে এলাকাটির মোবাইল টেলিযোগাযোগও বন্ধ করে দেয়া হয়।

বিকালের দিকে র‌্যাব সদস্যরা ভেতরে প্রবেশ করেন। এ সময় তারা জুয়া খেলা অবস্থায় ক্লাবের স্টাফসহ ১৪২ জনকে গ্রেফতার করে। ক্লাবের ভেতরে তারা পশ্চিমা ধাঁচের অত্যাধুনিক ক্যাসিনোর সন্ধান পান। জুয়ার আধুনিক বোর্ড, ক্যাশ টাকার বিকল্প প্লাস্টিক কয়েন, কার্ড, জুয়া খেলার ইলেকট্রনিক মেশিনসহ বেশ কয়েকটি কাউন্টার দেখেন।

বোর্ডগুলো পরিচালনার সঙ্গে জড়িত দু’জন নারীকে এখান থেকে গ্রেফতার করা হয়। বিভিন্ন বারে যে ধরনের বিদেশি মদ পাওয়া যায়, এই ক্যাসিনো থেকেও একই ধরনের মদ উদ্ধার করা হয়েছে। জুয়ার বোর্ডের পাশেই মদের অনেক বোতল দেখা গেছে। যারা মোটা অঙ্কের অর্থ নিয়ে নিয়মিত জুয়া খেলতে আসেন, তাদের শুরুতে মদ দিয়ে আপ্যায়ন করা হয়।

পরে তাদের কাছে মদ বিক্রিও করা হয়। স্থানীয়রা জানান, বেশ কিছু দিন ধরে এখানে এসব চলছে। সকাল থেকে শুরু হয়ে পরদিন ভোর পর্যন্ত চলে। মাঝে কয়েক ঘণ্টা বিরতি দিয়ে সকাল ১০টা থেকে ফের বসে জুয়ার আসর।

বুধবারও অন্যান্য দিনের মতো সকাল থেকে চালু হয় জুয়ার বোর্ডগুলো। কিন্ত দুপুরের আগেই র‌্যাব ঘিরে ফেলায় অবস্থা পাল্টে যায়। মোবাইল সংযোগ বন্ধ থাকায় কেউ ভেতরে বা বাইরে থেকে ভেতরে যোগাযোগ করতে পারেনি। ফলে কী হচ্ছে, তা কেউ আঁচ করতে পারেননি।

শাহজাহানপুর রেলওয়ে কলোনিতে বেড়ে ওঠা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া ফকিরাপুলের ইয়াংমেন্স ক্লাবের সভাপতি। স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ওই ক্লাবটি একসময় ফুটবল খেলার জন্য বিখ্যাত ছিল।

খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে নানা ধরনের অপকর্ম শুরু হয়। বসে জুয়ার আসর। তরুণ-তরুণীদের আনাগোনা চলে গভীর রাত পর্যন্ত। জুয়ায় সর্বস্বান্ত হয়ে অনেককে হাহাকার করতে দেখা গেছে বলে জানান প্রত্যক্ষদর্শীরা।

gb
মন্তব্য
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More