চামড়া শল্পিকে ধ্বংসে দায়ি সন্ডিকিটেরে বরিুদ্ধে ব্যবস্থা ননি : বাংলাদশে ন্যাপ

154

জিবি নিউজ ।।

চামড়া শল্পিকে ধ্বংসে দায়ি সন্ডিকিটে ব্যবসায়ীদরে চহ্নিতি করে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নয়োর দাবী জানয়িে বাংলাদশে ন্যাশনাল আওয়ামী র্পাট-িবাংলাদশে ন্যাপ।

শুক্রবার গণমাধ্যমে প্ররেতি এক ববিৃততিে র্পাটরি চয়োরম্যান জবেলে রহমান গানি ও মহাসচবি এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলনে, বলা হচ্ছে সারাবশ্বিে চামড়ার দাম কমছ।ে আবার বলছে চামড়া যনে ভারতে পাচার না হয় সজেন্য বজিবিি সর্তক আছ?ে একই সঙ্গে ঘোষণা দলি সরকার যে কাঁচা চামড়া ও ওয়টে ব্লু চামড়া রফতানি করা যাব।ে এতে করে চামড়া ভারতে পাচার হব।ে

তারা বলনে, ভারতরে চামড়া শল্পিরে বাজার বহুলাংশে পাকস্তিান ও বাংলাদশেরে চামড়ার উপর নর্ভিরশীল। পাকস্তিান ভারতরে সাথে ব্যবসায় বন্ধ করে দয়োয়, এ বছর ভারতকে বাংলাদশেরে চামড়ার উপর অধকি নর্ভিরশীল হতে হব।ে ফলে বাজার চাহদিানুযায়ী চামড়ার দাম ভালো পাওয়ার কথা। কন্তিু এ বছর ঘটছেে সর্ম্পূণ উল্টো। একসময় ৫০০ টাকায় একটি ভালোমানরে দশেী চামড়ার জুতা পাওয়া যতে, তখন কোরবানরি গরুর চামড়া ১ হাজার থকেে ২ হাজার টাকায় বক্রিি হতো। এখন ভালো মানরে চামড়ার দশেি জুতা ৭-৮ হাজার টাকার নচিে পাওয়া যায় না। কন্তিু এখন গরুর চামড়া ২০-২০০ টাকায় নমেে এসছে।ে এতে অনকেইে ক্ষুব্ধ হয়ে চামড়া পুঁত,ে পুড়য়িে বা নদীতে ফলেে দয়িছেনে। এই প্রবণতা জনপ্রয়ি হলে কার কী হবে জানি না, তবে বাংলাদশেরে চামড়া শল্পি ধ্বংস হবে এবং বদিশেী কোম্পানরি পোয়াবারো।

নতেৃদ্বয় বলনে, চামড়া শল্পি দশেরে র্অথনীতরি সাফল্যগাথায় স্বীকৃত হতো একসময়। সইে স্বীকৃতরি বড় কারণ ছলি কোরবানরি পশু হতে প্রাপ্ত চামড়া। মূলত পাট এবং চামড়া শল্পিরে ওপর ভত্তিি করইে আমাদরে শল্পিভত্তিকি র্অথনীতরি গোড়াপত্তন। পাটরে কথা আজ ইতহিাস। পাটকলগুলোর যন্ত্রপাতি যখন লুট হয়ে গলেো, চালু করা গলে না বন্ধ পাটগুলো। উল্টো বন্ধ হতে লাগলো বাকসিব। তখন থকেইে পাটরে মরণদশা শুরু। এখন তো পাট শল্পি সমাহতি। আদমজী নইে। যাও চামড়া শল্পিটা টকিে ছলি, এক দশকে সটোরও ‘হাতে হারকিনে’ উঠছে।ে আর এবার, সইে ‘হারকিনে’টাও নভিুনভিু প্রায়। কোরবানরি পশুর চামড়া বশেরিভাগ ক্ষত্রেইে মানুষ মাদ্রাসায় দান করনে বা মাদ্রাসায় বঁেচে দনে। আর এই দান বা বঁেচে দয়োর কারণ হলো মাদ্রাসাগুলোর এতমিখানা। যে এতমিদরে দখোর কউে নইে, মাদ্রাসার এতমিখানাই তাদরে ভরসা। এতমি আমরাও যাদরে বাবা কংিবা বাবা-মা দুজনইে গত হয়ছেনে। কন্তিু মাদ্রাসার এতমিগুলোর খয়েে পড়ে বাঁচার অবলম্বনই অন্যরে দান-ধ্যান, আর কোরবানরি পশুর চামড়া।

ন্যাপ নতেৃদ্বয় আরো বলনে, এই রকম হরলিুট ব্যবস্থায় আমাদরে রাষ্ট্র পরচিালতি হচ্ছ।ে এখানে সন্ডিকিটেরে কারণে কৃষক ধানরে ন্যায্য দাম পায় না, কোরবানরি পশুর চামড়ার দাম জনগণ পায় না, সন্ডিকিটেরে কারণে দ্রব্যমূল্য বাড়।ে এমনকি ডঙ্গেু মশার ওষুধ ক্রয়ে দুই কোম্পানি সন্ডিকিটে করে রাষ্ট্রীয় র্অথ লুট করছ।ে র্আথকি ও ব্যাংক খাতে সন্ডিকিটেরে লুটপাট চলছ।ে আর এসব সন্ডিকিটেরে পাহারাদার এবং আশ্রয়-প্রশ্রয় দচ্ছিে রাষ্ট্র ও সরকার।

তারা বলনে, কতভাবে ব্যবসায়ীরা সুবধিা পতেে পারে সরকার তার সব আয়োজন নশ্চিতি কর।ে ব্যবসায়ীদরে খলোপি ঋণরে সুদ মওকুফ করা হচ্ছ,ে ১০ বছররে জন্য অবলোপন করা হয় ঋণ। অপরদকিে কৃষকরে মাত্র ৫০০ কোটি টাকা কৃষি ঋণরে কারণে তাদরে নামে র্সাটফিকিটে মামলা দয়িে কোমরে দড়ি দয়িে গ্রফেতার করা হয়। র্বতমান সরকাররে মন্ত্রীদরে কাজকারবার দখেে মনে হয়, জনগণরে প্রতি সে কোনো দায় অনুভব করছে না।

এ সময় জনগণরে রাষ্ট্র ও সরকার ব্যবস্থা প্রতষ্ঠিার লড়াই-সংগ্রামে সবাইকে যুক্ত হওয়ার আহ্বান জানান ন্যাপ নতেৃদ্বয়।