মানবদেহের ডিভাইসগুলোর দাম কমে আসায় এর ব্যবহার বেড়ে

556
gb

মেজর জেনারেল মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান মৌলভীবাজার প্রতিনিধি||

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজরজেনারেল মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান বলেছেন, মানবদেহের হার্ডের রিঙ্গ,ভাল্ব ও
প্রেসমেকার এই ডিভাইসগুলোর মূল্য নির্ধারন করাতে বাজারে এখন দাম ৬০ শতাংশকমে পওয়া যচ্ছে। তিনি বলেন, এনিয়ে এতোদিন মানুষের মধ্যে স্বচ্ছতা ছিলোনা-অস্থিরতা ছিলো। এখন এ ডিভাইস গুলোর মূল্য  নির্ধারনে মানুষ জানতে পারছে
কতদামে সেটি বিক্রি হচ্ছে।তিনি অরো বলেন, বাজারে মানবদেহের মানসম্মত ডিভাইস যাতে পাওয়া যায়-সেইজন্য বাধ্যতামূলকভাবে চারটি নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।  শনিবার দুপুরে মান সম্পন্নভাবে ঔষধ বিক্রি এবং সঠিকভাবে সেবা প্রদানের লক্ষেমৌলভীবাজারে ১০টি ফার্মেসীকে মডেল মেডিসিন শপ ও ৩ টিকে মডেলফার্মেসীতে রূপান্তরিত করণ উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে তিনি এ কথাগুলো বলেন।প্রথমেই শহরের শ্রীমঙ্গল সড়কস্থ মেসার্স হাসান ফার্মেসীকে মডেল মেডিসিনশপ হিসেবে উদ্বোধন করেন। পরে মহাপরিচালক শহরের বিভিন্ন সড়কে অবস্থিত১২টি মেডিসিন শপ ও মডেল ফার্মেসী উদ্বোধন ও পরিদর্শন করেন।তিনি আরো বলেন ডলারের দাম বেড়ে যাওয়া এবং বিশ্বের বাজারে ঔষধ উপাদান এরমূল্য বৃদ্বিতে আমরাও এখন বিপদে রয়েছি। তবে আমরাও কিছু কিছু ক্ষেত্রে চেষ্টাকরে যাচ্ছি,  ঔষধের দাম নিয়ন্ত্রনে রাখতে। কিন্তু পারছিনা।      উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্য উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলার ড্রাগ
সুপার ফখরুল ইসলাম, মৌলভীবাজারের ড্রাগ সুপার বাদল সরকার, মেলভীবাজারপ্রেসক্লাবের সহ সভাপতি আবদুল হামিদ মাহবুব, সাধারণ সম্পাদক এস এমউমেদ আলী, বাংলাদেশ কেমিস্ট এন্ড ড্রাগিস্ট এসোসিয়েশনের মৌলভীবাজার জেলাশাখার সভাপতি এমদাদুল হক মছনু, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আব্দুর রউফ মানিকসহস্থানীয় নেতৃবৃন্দ।মডেল মেডিসিন শপ বা মডেল ফার্মেসীতে রূপান্তরিত করা হয়েছে দীর্ঘ দিনধরে মান সম্পন্নভাবে ঔষধ বিক্রি এবং সঠিকভাবে সেবা প্রদানের কারণে।মডেল মেডিসিন শপ বা মডেল ফার্মেসীতে ফার্মাসিস্টগণ বাধ্যতামূলকভাবএপ্রæন পড়তে হবে। ফার্মাসিস্টরা রোগীকে কাউন্সিলিং করবেন।
এন্টিবায়োটিক মেডিসিন বিক্রির করতে হলে রেজিস্টার খাতায় লিপিবদ্ধ করতহবে।রেজিস্টারে ঔষধ দেয়ার তারিখ, চিকিৎসকের নাম ও হাসপাতালের নাম, ডোজ, কয়টিলেখা আছে, কয়টি নেয়া হয়েছে তা সংরক্ষন করতে হবে।মডেল মেডিসিন শপে উন্নীত হয়েছে মেসার্স হাসান ফার্মেসী, মেসার্সলড ড্রাগ সেন্টার, নাহিদ ফার্মেসী, এম বি ফার্মেসী, শেফা ফার্মেসী,আইডিয়াল ফার্মেসী, ইসলাম ফার্মেসী, রাহিমা ড্রাগ হাউস, ইসলামীয়াড্রাগ সেন্টার এবং সুমন মেডিকেল হল।মডেল ফার্মেসীতে রূপান্তরিত ৩টি ফার্মেসী হচ্ছে সুপার ড্রাগ, কে কে মেডিসিন সেন্টার এবং নিরাময় ঔষধালয়।