জৈব সার পদ্ধতিতে খিরাই এর চাষ অর্গানিক পলী বেতাগায় ৬০একর জমিতে খিরাই চাষে বাম্ফার ফলন ১৫০কৃষকদের ভাগ্যো বদল

277
gb

 

ফকিরহাট প্রতিনিধি||
বাগেরাহটের ফকিরহাটের অর্গানিক পলী ক্ষেত বেতাগায় ৬০একর জমিতে খিরাই চাষে বাম্ফার ফলন ১৫০কৃষকদের ভাগ্যো বদলে
দিয়েছে। স্বল্প পুজিতে অধিক মুনাফা পাওয়ার আশায় কৃষকরা খিরাই চাষে আগ্রহী হওয়ার কারণে বাম্ফার ফলন পেয়েছে। নিজেদের
উদ্যোগ উপজেলা কৃষি অফিসের পরার্মশ ও ইউনিয়ন পরিষদ সহযোগীতা করার কারণে তারা লাভবান হয়েছে বলে কৃষকদের অভিমত।
জানা গেছে, বেতাগা গ্রামের মূতঃ রনজিৎ কুমার দাশের পুত্র দিবাতুষ কুমার দাশ, মাসকাটা মৌজার অর্গানিক পলী নামে
ক্ষাত অর্গানিক বেতাগায় প্রায় ২একর জমিতে খিরাই চাষ শুরু করেন। প্রথমে জমি চাষ করে সেই জমিতে বীজ রোপন করেন। এর পর
ফিলু দিয়ে জৈব সার ও অন্যান্য উপকরণ ব্যাবহার করে জমিতে বীজ রোপন করেন। পরে গাছের চারা উঠার পর সেই ক্ষেতে নিজে এবং
তার স্ত্রী অম্বিকা রানী দাশ এবং শিখন দাশ ও তার স্ত্রী অঞ্চিতা রানী দাশ সর্বক্ষনিক কাজ করেন। এপর্যন্ত তিনি উক্ত ক্ষেতে প্রায়
লক্ষাধীক টাকা ব্যায় করেছেন। ৪৫দিনে খিরাই-এ ফসল ধরে। এখন তিনি রীতিমত ফসল সংগ্রহ করা শুরু করেছেন। একদিন বাদে
একদিন তিনি প্রায় ২৫/৩০মন খিরাই সংগ্রহ করছেন। প্রতি কেজি খিরাই বাজারে ২০/২২টাকা দরে বিক্রয় করছেন। স্বল্প
পুজিতে অধিক মূনাফা পাওয়া ছাড়াও বাম্ফার ফলন পাওয়ায় তিনি এখন অনেক লাভবান হয়েছেন।
সরেজমিনে তার ক্ষেতসহ বিভিন্ন ক্ষেত পরির্দশনে গিয়ে দেখা গেছে, এ যেন একটি সবুজ পলী। প্রতিটি ক্ষেতে সবুজের
সমারোহতে পরিপূর্ণ। সকল ক্ষেতে যেন বাম্ফার ফলন। প্রতি ১দিন বাদে ১দিন ৩/৪টি মিনি পিকাপ বা ট্রাকে খিরাই চলে যাচ্ছে
দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। কীটনাশক মুক্ত পরিবেশে সম্পূন্ন জৈব সার ও অন্যান্য উপকরণ দিয়ে সমগ্র বিলে খিরায়ের চাষ করা
হয়েছে যা বিরল একটি দৃষ্ঠান্ত স্থাপন। আবাহাওয়া ভাল থাকলে তাদের যে আশা তা পূরণ হবে বলেও তাদের ধারনা। এছাড়া একই
বিলের তরিকুল ইসলাম তার ৩৩শতক জমিতে, মনোতোষ দাশ তার ৫০শতক জমিতে, ওহিদুল ইসলাম তার ৫০শতক জমিতে, জাকির
হোসেন তার ১৫০শতক জমিতে, রাজিব কুমার দাশ তার ১শ শতক জমিতে, সুধাশু দাশ তার ১শ শতক জমিতে, তপন কুমার দাশ তার
৯০শতক জমিতে, কংকর কুমার দাশ তার ৮০শতক জমিতে, ইউনুস শেখ তার ৩৩শতক জমিতে, রাজ্জাক শেখ তার ৩৩শতক জমিতে,
নিমাই দেবনাথ তার ৫০শতক জমিতে এবং তপন দেবনাথ তার ৩৩শতক জমিতে খিরাই এর চাষ করেছেন।
বেতাগা ইউনিয়ন উপ-সহকারী কৃষি অফিসার প্রদীপ কুমার মন্ডল ও উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ মোতাহার হোসেনের সাথে
আলাপ করা হলে তাঁরা বলেন, তাঁরা সময়মত সকল কৃষকদেরকে জৈব পদ্ধতিতে সবজি চাষের বিষয়ে স্থানীয় কৃষকদের নানান প্রকার
প্রশিক্ষন প্রদান করেছেন। শুধু তাই নয়,পোকা মাকড় দমনের সেক্স ফেরোমন ফাঁদ এবং ক্ষতির বিষয়ে সর্বক্ষনিক তদারকি ও তাদেরকে
পরামর্শ প্রদান করেছেন। এব্যাপারে স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ ও বেতাগা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান স্বপন দাশ এর সাথে আলাপ করা
হলে তিনি বলেন, তিনি অর্গানিক বেতাগায় জৈব সার তৈরীর জন্য প্রায় ৩০টির মত চৌবাচ্ছা তৈরী করে দিয়েছেন। তাছাড়া
সেই চৌবাচ্ছায় কৃষি সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির মাধ্যমে ৪০মেঃ টন জৈব সার প্রস্তুত করে তা বিনামূল্যে কৃষকদের মাঝে
বিতরন করে তাদেরকে উৎসাহ যুগিয়েছেন। এবার জৈব সার প্রদ্ধতিতে খিরাই চাষ ও ফলন ভাল হওয়ায় কৃষককুলকে তিনি ধন্যবাদ
জ্ঞাপন করেন