ব্রিটেনে কমে যাচ্ছে করোনাভাইরসের শক্তি:উঠে যাচ্ছে লকডাউন

82
gb
6

মো: রেজাউল করিম মৃধা:

ব্রিটেনের ক্যান্সার ও করোনাভাইরস বিশেষজ্ঞ এবং রুথারফোর্ড হেলথের প্রধান মেডিকেল কর্মকর্তা অধ্যাপক কারল সিকোরা বলেন, ব্রিটিশ জনগণের শরীরে ভাইরাসটির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা আগের চেয়ে বেড়েছে। নিজ থেকেই ভাইরাসটি নিঃশেষ হয়ে যেতে পারে।তিনি আরো বলেন, হ্যাঁ, সম্ভবত ভ্যাকসিন ছাড়াই ভাইরাসটি পুরোপুরি শেষ হয়ে যাবে। আমাদের সংক্রমণ এবং সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা কমে এসেছে। এর ফলে ভাইরাসটি নিজ থেকেই বিদায় নিতে পারে।

ব্রিটেনের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও ওষুধ প্রস্তুতকারক কোম্পানি অ্যাস্ট্রাজেনেকার চ্যাডক্স-১এনকোভ-১৯ নামের সম্ভাব্য ভ্যাকসিনটি আবিস্কার করে। ভ্যাকসিন আবিস্কারের ফলে মানুষের মনে আশার সন্চার হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন,গত মাসে ভাইরাসটি তীব্রতা হারাতে শুরু করেছে। আগে যে রোগীরা এই ভাইরাসে মারা যেতেন এখন তারা সুস্থ হয়ে উঠছেন।এখন রোগীদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়েছে। মানুষ স্বচেতন হয়েছে। নিজেকে রক্ষা করছেন এবং অন্য যাতে আক্রান্ত না হন সে বিষয়ে সতর্ক থেকেছেন। এর ফলে রোগ বিস্তার করতে পারে নাই। ধীরে ধীরে এর শক্তি কমে যাচ্ছে।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, “আমাদের কাছে ক্লিনিক্যাল যে ধারণা রয়েছে, তাতে বোঝা যাচ্ছে ভাইরাসটির তীব্রতায় পরিবর্তন এসেছে। মার্চ এবং এপ্রিলের শুরুর দিকে ভাইরাসটির বৈশিষ্ট্য পুরোপুরি ভিন্ন ছিল। ওই সময় জরুরি বিভাগে যারা এসেছিলেন তাদের চিকিৎসা দেয়াটা খুবই কঠিন হয়ে পড়েছিল। তাদের অক্সিজেন, ভেন্টিলেশনের দরকার ছিল। অনেকে নিউমোনিয়ায় ভুগতেন”। তবে এখন ভাইরাস প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়েছে। ঘরে থেকেও ভেজস ও মসলা যুক্ত চা খেয়ে, সামাজিক দূরুত্ব বজায় রেখে অনেকেই সুস্থ হয়েছেন।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, “আমাদের মনে হয় ভাইরাসটি মিউটেশন ঘটিয়েছে। কারণ, ভাইরাসটির বিরুদ্ধে আমাদের শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা সাড়া দিচ্ছে। লকডাউন, মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখায় এখন ভাইরাল লোড কমে গেছে। এটি কেন ভিন্ন ধরনের আচরণ করছে সেটি নিয়ে আমাদের গবেষণা করতে হবে”।

করোনাভাইরাস এখন ‘হিংস্র থাবা থেকে মানুষ রেহাই পেতে শুরু করেছে। ভাইরাসের রুপ রূপান্তর হয়েছে। ভ্যাকসিন ছাড়াই ভাইরাসটি নিজ থেকেই শেষ হয়ে যাবে। করোনাভাইরাস এখন বিশ্ব মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে।আতংকিত বিশ্ব । এই করোনাভাইরস মহামারি থেকে জীবন রক্ষা করার জন্য মানুষ হয়েছেন গৃহ বন্ধি। বিছিন্ন হয়েছে সকল যোগাযোগ । বিভিন্ন দেশের সরকার তাদের জনসারনকে রক্ষার তাদের মত করে জরুরী পদক্ষেপ নিয়েছে।নিজ নিজ পলিসি অনুযায়ী ।

চীনের উহান থেকে করোনাভাইরস মহামারি শুরু হয়ে সমগ্র বিশ্বে ছড়িয়ে পরে। বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশ তাদের জনসাধারনকে রক্ষার জন্য ভিন্ন ভিন্ন প্রকৃয়ায় ভিন্ন ভিন্ন সময় লক ডাউন দিয়েছে আবার করোনাভাইরসের প্রভাব কমে আসায় লক ডাউন তুলে নিয়েছে। তবে করোনাভাইরস সংক্রান ঠেকাতে সামাজিক দূরুত্বকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে সব দেশে।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন মঙ্গলবার পার্লামেন্টে তার বক্তব্যে বেশ কিছু বিষয়ে শিথিলতার ঘোষণাদেন।

৪ জুলাই থেকে মসজিদ, মাদ্রাসা, উপাসনালয় , হোটেল, রেস্টুরেন্ট, সেুলন, পাব, খেলার মাঠ, মিউজিয়াম, থিমপার্ক, আউটডুর জিম, লাইব্রেরি, স্যোশাল ক্লাব, কমিউনিটি সেন্টার চালুর করার ঘোষণাদেন।এতে সামাজিক দূরত্ব ২ মিটারের পরিবর্তে ১ মিটারে নির্ধারন করা হয়েছে।

তবে নাইট ক্লাব, স্পা, ইনডোর সফট প্লে এরিয়া, ওয়াটার পার্ক, ইনডোর জিম, নেল বার, সুইমিং পুল আপাতত না চালু করার কথা জানান তিনি।
প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন জানিয়েছে, সামাজিক দূরত্ব সাপেক্ষে ৪ জুলাই থেকে এক ঘরের সদস্যরা অন্য ঘরের সদস্যদের সাথে দেখা করতে পারবেন। আর আগে অনুমতি ছিলো নিকট আত্মীয়দের ক্ষেত্রে। এখন প্রতিবেশিরাও অন্যদের ঘরে যাওয়ার অনুমতি পেয়েছেন।

বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন আরো বলেন “জনসাধারনের জীবন রক্ষাই আমাদের প্রধান লক্ষ্য। সাইন্টিফির ও ইকোনমিক কে সামন্জস্য রেখেই পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহন করতে হচ্ছে। সব দিক বিবেচনা করে সামাজিক দূরুত্ব ২ মিটার থেকে ১ মিটার করা হবে”। সাইন্টিস্টরা মনে করেন সামাজিক দূরুত্বের অনেক গুরুত্ব । সেই সাথে মুখে মাক্স অত্যান্ত গুরুত্ব পূর্ন। হাতে গ্লাভস অথবা সেনেটারেজ অবশ্য ব্যাবহার করতে হব। সাবধানতা অবলম্বন করলে ঔষধ ছাড়াই করোনাভাইরস নির্মূল করা সম্ভব হবে।

ব্রিটেনে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ব্রিটেনে (মঙ্গলবার) মৃত্যু হয়েছে ১৭১ জনের ।এর আগে গতকাল সোমবার ছিলো ১৫জন, রবিবার ছিলো ৪৩ জন, শনিবার ছিলো ১২৮জন। মোট মৃতের সংখ্যা ৪২ হাজার ৯২৭ জন।এন এইচ এস মনে করে। করোনাভাইরস মহামারি মোকাবেলা করা করো একার পক্ষে সম্ভব নয়। সরকার এবং বিরোধীদল , অন্যান্য রাজনৈতিক দল , জনসাধারন সহ সকলের সম্মিলিত প্রচেস্টায়, সতর্কীকরণ কার্যক্রম অব্যহত রাখা, পরিস্কার , পরিচ্ছন্ন থাকা এবং সামাজিক দূরুত্ব বজায় রাখা। সবার সহযোগিতা এক দিন এই করোনাভাইরস মহামারি থেকে মুক্ত হবো।

করোনাভাইরস মহামারির ভয়াবহতা এখন কমে এসেছে। তীব্রতা আর নেই। ধীরে ধীরে কমে যাচ্ছে করোনাভাইরসের শক্তি এ জন্য বিভিন্ন দেশে তুলে নিয়েছে লক ডাউন।

প্রতিবেদক সাংবাদিক মো: রেজাউল করিম মৃধা

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন তবে আপনি চাইলে অপ্ট-আউট করতে পারেন Accept আরও পড়ুন