৫৬৬ কোটি টাকার ভাঙ্গণ কবলিত নদী তীর রক্ষা প্রকল্প একনেকে উপস্থাপন হবে মঙ্গলবার চাঁপাইনবাবগঞ্জে পদ্মা’র ভাঙ্গণ পরিদর্শন করলেন যুগ্ম সচিব

3
gb

জাকির হোসেন পিংকু,চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি:
চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার সীমান্তবর্তী চরবাগডাঙ্গা ইউনিয়নের পদ্মার বামতীরের ভাঙ্গণ কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব মন্টু কুমার বিশ্বাস।
ভাঙ্গণ কবলিত তীর রক্ষায় ৫৬৬ কোটি ১২ লক্ষ ২১ হাজার টাকা ব্যয়ে গৃহীত ‘পদ্মা নদীর ভাঙ্গণ হইতে চাঁপ্ইানববাবগঞ্জ সদর উপজেলার চরবাগডাঙ্গা ও শাজাহানপুর এলাকা রক্ষা’-শীর্ষক একটি প্রকল্প আগামী মঙ্গলবার(৩’মার্চ) প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির সভায় (একনেক) উপস্থাপনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।
গৃহীত প্রকল্পের আওতায় রয়েছে সদরের চরবাগডাঙ্গা ইউনিয়নে ৩.৬ কিলোমিটার ও শজাহানপুর ইউনিয়নের ২.৫ কিলোমিটার সহ মোট ৬.১ কিলোমিটার নতুন তীর সংরক্ষন কাজ,চরবাগডাঙ্গার বাখর আলী এলাকায় নির্মিত ১১.৭ কিলোমিটার এর ৪ কিলোমিটার অংশের তীর সংরক্ষণ পূর্ণবাসণ ও মেরামত কাজ এবং সদরের চরবাঙ্গডাঙ্গা ইউনিয়নের বাখের আলী এলাকা থেকে সুন্দরপুর,নারায়নপুর এবং জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার পাঁকা ও দূর্লভপুর ইউনিয়ন পর্যন্ত (দুই উপজেলার ৫ ইউনিয়ন) সংরক্ষিত তীরের (২০০২ সালে শুরু হওয়া) ২০.৮ কিলোমিটারের মধ্যে ৮ কিলোমিটার অংশ পূনরাকৃতি (রিসেকশনিং) করণের কাজ। সর্বশেষ সমাপ্ত প্রকল্পে চরবাগডাঙ্গা ইউনিয়নের অপরপাশে সদরের আলাতুলী ইউনিয়নে ২৬৫ কোটি টাকা ব্যয়ে পদ্মার বামতীর রক্ষা বাঁধ নির্মিত হয়।
শুক্রবার(২৮’ফেব্রুয়ারী) সকালে ভাঙ্গণ কবলিত এলাকা পরিদর্শনের সময় জেলা আ’লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সদর আসনের সাবেক সাংসদ আব্দুল ওদুদ,পানি উন্নয়ন বোর্ড( পাওবো),রাজশাহীর তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী, আমিরুল হক,চাঁপাইনবাবগঞ্জ পাউবো নির্বাহী প্রকৌশলী সাহেদুল আলম,উপবিভাগীয় প্রকৌশলী আতিকুর রহমান,সহকারী প্রকৌশলী মাহবুব আলম,উপসহকারী প্রকৌশলী সুকেশ দাস,জেলা পরিষদ সদস্য রফিকুল ইসলাম,ইউপি চেয়ারম্যান শাহিদ রানা সহ সংশ্লিষ্ট ও স্থানীয়রা উপস্থিত ছিলেন।
পরিদর্শনকালে যুগ্মসচিব সাংবাদিকদের বলেন, আশা করা হচ্ছে প্রকল্পটি একনেক সভায় উপস্থাপন ও অনুমোদিত হবে। প্রধানমন্ত্রীর চাঁপাইনবাবগঞ্জের উন্নয়নের প্রতি সুদৃষ্টি রয়েছে।এর আগে পাশের সদর উপজেলার আলাতুলী ইউনিয়নে পদ্মার বামতীর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে। এখন এই দুই ইউনিয়নে ভাঙ্গণ কবলিত ৬.১ কিলোমিটার রক্ষায় বাঁধ নির্মাণ করা গেলে ইউনিয়নদুটি পুরোপুরি রক্ষা পাবে। সম্পদ ও ভূমি রক্ষা পাবে। এ প্রকল্প বাস্তবায়নে পাউরো দীর্ঘ দিন যাবৎ চেষ্টা করছে। পাউবো যত দ্রুত সম্ভব এই বাঁধ নির্মাণ করে জানমাল রক্ষা করবে।
এসময় সাবেক সাংসদ আব্দুল ওদুদ আশা প্রকাশ করে বলেন,মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কৃপায় একনেক সভায় প্রকল্পটি অনুমোদন হলে সদর উপজেলার নদীতীরবর্তী বিস্তীর্ণ এলাকার জনগন উপকৃত হবে। তিনি ইতিমধ্যে চরাঞ্চলের ৭টি ইউনিয়ন উন্নয়নে সম্পন্ন সড়ক,সেতু সহ অনান্য কাজের বর্ণনা দেন। ###

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন তবে আপনি চাইলে অপ্ট-আউট করতে পারেন Accept আরও পড়ুন