বিশ্বনাথে সরকারি অর্থায়নে রাস্তা নির্মাণে বাঁধা, চাদা দাবির অভিযোগ

সিলেট থেকে মিজানুর রহমান মিজান:

সিলেটের বিশ্বনাথে সরকারি অর্থায়নে মাটি ভরাট করে রাস্তা নির্মাণ কাজে বাঁধা প্রদান ও চাদা দাবির
অভিযোগ পাওয়া গেছে। এনিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে চরম ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে। যেকোনো সময় দুটি পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের আশংকা
রয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার খাজাঞ্চী ইউনিয়নের বাওনপুর-মিরেরগাঁও ব্রীজ মূখ থেকে চলিত সুরমা নদীর পাড় পর্যন্ত প্রায় দেড়
কিলোমিটার রাস্তা মাটি ভরাট করে নির্মাণের জন্য স্থানীয় ইউপি থেকে কর্মসৃজন প্রকল্পের দুই লক্ষ টাকা বরাদ্ধ হয়। চলিত মাসের প্রথম দিক থেকে
এ প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। মাটি ভরাট করে রাস্তা নির্মাণ কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে। এতে ওই এলাকার কয়েক শত মানুষ রাস্তা নির্মাণ হওয়ায়
খুশি। রাস্তাটি নির্মাণ হলে এলাকার শিক্ষার্থী, কৃষক, ব্যবসায়ীরা উপকৃত হবেন বলে স্থানীরা জানান। এদিকে, মাটি ভরাট করে রাস্তা নির্মাণ কাজে
স্থানীয় লাল মিয়াসহ আরও কয়েকজন বাঁধা প্রদান ও চাদা দাবি করার অভিযোগ করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। ওই রাস্তা নির্মাণ যাতে না হয়, সেই
পায়তারা করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। সরকারি অর্থায়নে রাস্তা নির্মাণ কাজে বাধা সৃষ্টি ও চাদা দাবির কারণে এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ
বিরাজ করছে। বর্ষা মৌসুমে ওই এলাকার বাসিন্দাদের পুহাতে হয় দুর্ভোগ। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন বলেন, স্থানীয় লাল মিয়ার
দাবিকৃত টাকা না দিলে তারা রাস্তা নির্মাণ করতে দিবেন না বলেও হুমকি প্রদান করছেন। এব্যাপারে বাওনপুর চরর বাড়ির রইছ আলী বলেন,
র্দীঘদিন পর এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে সরকারি অর্থায়নে মাটি ভরাট করে রাস্তা নির্মাণ করা হচ্ছে। এতে আমরা খুশি। রাস্তাটি সরকারি খাস
জমির ওপর দিয়ে নির্মিত হচ্ছে। কিন্তু ওই রাস্তা নির্মাণ করতে আমাদের লাল মিয়া বাধা প্রদান ও চাদা দাবি করে আসছেন। এতে এলাকাবাসীর মাঝে
ক্ষোভ বিরাজ করছে। আমরা যেকোনো মূল্যে রাস্তা নির্মাণ করতে প্রস্তুতি রয়েছি। বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনকে অবহিত করা হবে। লাল মিয়া বলেন,
আমার বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ মিথ্যা। রাস্তার নির্মাণ করতে আমার কোনো বাধা নেই। কিন্তু আমার জমির মধ্যে টমোটো চাষাবাদ করি।
ওই জমির ওপর দিয়ে রাস্তা নির্মাণ হচ্ছে। টমোটো তোলার পর জমির ওপর মাটি ভরাট করার জন্য তাদের বলি। কিন্তু তারা রাতে আধারে আমার
টমোটো চাষাবাদ নষ্ট করে মাটি ভরাট করে। এতে আমার অনেক ক্ষতি হয়েছে। খাজাঞ্চী ইউপি চেয়ারম্যান তালুকদার গিয়াস উদ্দিন বলেন, ইউনিয়ন
পরিষদ থেকে কর্মসৃজন প্রকল্পের মাধ্যমে ওই রাস্তা মাটি ভরাট করে নির্মাণের জন্য বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। এতে প্রায় দুই লক্ষ টাকা ব্যয়ে মাটি ভরাট
করে রাস্তা নির্মিত হচ্ছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও পৌর প্রশাসক বর্নালী পাল বলেন, বিষয়টি আমাদের অবহিত করা হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা
গ্রহন করা হবে।

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন তবে আপনি চাইলে অপ্ট-আউট করতে পারেন Accept আরও পড়ুন