যে কারণে হাইকোর্টে ক্ষমা চাইলেন জি কে শামীমকে গ্রেফতার করা সেই ম্যাজিস্ট্রেট

117
gb

মো:নাসির, জিবি নিউজ ২৪

অভিযান চালিয়ে যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা জিকে শামীমকে গ্রেফতার করে ২ মাস আগে আলোচনায় ছিলেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারোয়ার আলম। এর ২ মাস ১০ দিন পর নিজের একটি ভুলের কারণে হাইকোর্টে ক্ষমা চেয়ে তিনি আবারো আলোচনায় এলেন। 

মোবাইল কোর্টে এক ব্যক্তিকে সাজা দেওয়ার পর ৪ মাস পার হলেও আদেশের কপি না দেওয়ার ক্ষমা চাইতে হলো তাকে।

রোববার (১ ডিসেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের বেঞ্চে হাজির হয়ে তিনি ক্ষমা প্রার্থনা করেন। ক্ষমা চেয়ে তিনি আদালতে বলেছেন, ভবিষ্যতে এ বিষয়ে সকর্ত থাকব। এ ঘটনায় তিনি আবারো আলোচনায় চলে এলেন।                          পরে এ সংক্রান্ত জারি করা রুল নিষ্পত্তি করে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচলানার জন্য প্রয়োজনীয় জনবল ও সরঞ্জাম দিতে স্বরাষ্ট্র সচিবকে নির্দেশ দেন।

আদালতে মো. সারোয়ার আলমের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মাসুদ হাসান চৌধুরী পরাগ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত তালুকদার।

গত ১৮ নভেম্বর সারোয়ার আলমকে তলব করেন হাইকোর্ট। মোবাইল কোর্টে এক ব্যক্তিকে সাজা দেওয়ার পর ৪ মাস পার হলেও আদেশের কপি না দেওয়ার ব্যাখ্যা দিতে তাকে তলব করা হয়।

সাজা দেওয়ার ৪ মাস পরও আদেশের কপি দেওয়ার ক্ষেত্রে নিষ্ক্রিয়তা চ্যালেঞ্জ করে মো. মিজান মিয়া ১৭ নভেম্বর রিটটি করেন।

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More