কুইন’স স্পিচ:বৃটেনের প্রধানমন্ত্রী জনসনের ব্রেক্সিট পরবর্তী ২৬ বিল উত্থাপন

62
gb

জিবি নিউজ।।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে বিচ্ছেদের পর বৃটেনের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের নতুন নীতিমালা প্রকাশ পেয়েছে। সোমবার নতুন সংসদীয় বছর (পার্লামেন্টারি ইয়ার) শুরুর অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে বৃটেনে। সাধারণত প্রত্যেক বছরই এই অনুষ্ঠান আয়োজনের কথা থাকলেও ২০১৭ সালের ২১ জুনের পর থেকে তা হয়নি। অনুষ্ঠানে পার্লামেন্টে পাস হওয়ার জন্য সরকারের নীতিমালাগুলো উত্থাপন করেন দেশটির রানী। এজন্য অনুষ্ঠানটি ‘কুইন’স ¯িপচ’ বা রাণীর ভাষণ নামে পরিচিত।
এদিন ব্রেক্সিটের পর বৃটেনের জন্য জনসন সরকারের দুই ডজনের বেশি বিল উপস্থাপন করেন তিনি। এর মধ্যে অপরাধীদের সাজা বাড়ানো, বাতাসে দূষণ কমানো সহ বিভিন্ন বিষয় রয়েছে। এদিন মোট ২৬টি বিলের কথা বলেছেন জনসন। তিনি জানান, এর মধ্যে এমন সাতটি বিল রয়েছে যেগুলো বিদ্যমান ‘আমলাতান্ত্রিক সীমাবদ্ধতা’ ভেঙে ফেলবে ও দেশজুড়ে প্রতিভা, উদ্ভাবন ও আত্ম-বিশ্বাস মুক্ত করে দেবে।

স্থানীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, ১৯২৪ সাল থেকে এখন পর্যন্ত কুইন’স ¯িপচে প্রস্তাবিত বিলগুলো ধারাবাহিকভাবে পাস হয়ে আসছে। তবে জনসনের বিলগুলো নিয়ে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। জনসন বিল উত্থাপন করলেও সেগুলো পার্লামেন্টে পাস হবে বলে মনে করছেন না অনেকে। আগামী সপ্তাহে পার্লামেন্টের নি¤œকক্ষ হাউজ অব কমন্সে বিলগুলো নিয়ে ভোট হওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু কক্ষটিতে সরকারের সংখ্যাগরিষ্ঠতা নেই। তাই ভোটে বিলগুলো পাস হওয়ার সম্ভাবনাও খুবই কম। যদি এমনটি হয়, তাহলে ১৯২৪ সালের পর এই কুইন’স ¯িপচে প্রস্তাবিত বিলগুলো প্রথমবার পরাজিত হবে কুইন’স ¯িপচে প্রস্তাবিত সরকারের বিল। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পার্লামেন্টে হেরে গেলেও আগামী নির্বাচনে এই বিলগুলোর ওপর ভিত্তি করেই ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির নির্বাচনী ইশতেহার তৈরি হবে।

gb

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More