দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের দাবীর প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করলো জাতীয় মানবাধিকার সমিতি

183

প্রেসবিজ্ঞপ্তি ||

নবম থেকে ২০তম গ্রেডভুক্ত সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, আধা স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি চাকরিতে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের বিশেষ ব্যবস্থায় নিয়োগসহ মোট ৬টি দাবিতে গত ৭ জুলাই থেকে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে চাকরি প্রত্যাশী দৃষ্টি প্রতিবন্ধী গ্র্যাজুয়েট পরিষদ।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এই অবস্থান কর্মসূচীতে তাদের দাবীর প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতির চেয়ারম্যান মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা। 

এসময় মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী গ্র্যাজুয়েট পরিষদের দাবিগুলো নবম থেকে ২০তম গ্রেডভুক্ত সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, আধা স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি চাকরিতে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের বিশেষ ব্যবস্থায় নিয়োগ দেওয়া, ১৭ এপ্রিল প্রকাশিত বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের ১০ম গ্রেডভুক্ত ৩৮ নম্বর রিসোর্স শিক্ষক পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি বাতিল করে ওই পদে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের ব্রেইল পদ্ধতিতে পাঠদানের জন্য শুধুমাত্র উপযুক্ত দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের নিয়োগ দেওয়া, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শ্রুতিলেখক নীতিমালা ২৫ এর বি-উপ ধারা অনুযায়ী সরকারিসহ স্বায়ত্তশাসিত, আধা-স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি চাকরি পরীক্ষায় ওই আইন মেনে চলার নিশ্চয়তা দেওয়া, দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের স্নাতক ডিগ্রি অর্জনের পর চাকরিতে যোগদান করার আগ পর্যন্ত কমপক্ষে ১০ হাজার টাকা করে মাসিক বেকার ভাতা প্রদান করা, বিশেষ ব্যবস্থায় প্রতিবন্ধীদের চাকরির সুযোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের প্রতিবছর একবার বিশেষ ব্যবস্থায় সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, আধা স্বায়ত্তশাসিত চাকরিতে নিয়োগ দেওয়া এবং যেহেতু তীব্রমাত্রার দৃষ্টি প্রতিবন্ধিতার শিকার ব্যক্তিরা কঠিন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে জীবন যাপন করে, তাই এমন শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সর্বস্তরের সুযোগ দেওয়া প্রতি একাত্মতা ঘোষনা করেন।

তিনি অবিলম্বে তাদের দাবীগুলো মেনে নেয়ার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আবেদন জানান। 

এসময় পরিষদের আহ্বায়ক মো. আলী হোসেনের সভাপতিত্বে ধর্মঘটে উপস্থিত ছিলেন উপদেষ্টা আহম্মেদ চৌধুরী কিরণ, যুগ্ম আহ্বায়ক মাহাবুব মোরশেদ, যুগ্ম আহ্বায়ক জাহাঙ্গীর আলম, যুগ্ম আরিফ হোসেনসহ চাকরি প্রত্যাশী দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীরা।