সাদুল­াপুরে যৌতুকের দাবিতে মধ্যযুগীয় কায়দায় গৃহবধুকে নির্যাতন, থানায় অভিযোগ দায়ের

129

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা প্রতিনিধি//

সাদুল­াপুরে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধুকে নির্যাতন থানায় অভিযোগ দায়ের। নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ বলেন,তার স্বামী শশুড় প্রভাবশালী হওয়ায় গ্রাম্য শালীস মানছেনা। ঘটনাটি ঘটেছে ১৯ জুন বুধবার সকালে যৌতুকের দাবীতে স্ত্রীকে বেধম মারডাং করে আহত করেন। নির্যাতনকারী উপজেলার ইদুলপুর ইউপির চক ভগবানপুর গ্রামের আব্দুল হকের পুত্র লাজুক মিয়া (২৪)। থানায় লিখিত অভিযোগ ও পারিবারিক সূত্র জানা যায, প্রায় দুই পূর্বে উক্ত গ্রামের ঠান্ডা মিয়ার মেয়ে সিমু আক্তারের সাথে একই গ্রামের আব্দুল হকের পুত্র লাজুকের সাথে বিবাহ হয়।বিবাহের পর হইতে অর্থ লোভী শশুড় আব্দুল হক ও তার পরিবার গৃহবধু সিমুকে বাবার বাড়ি থেকে ৫ লক্ষ টাকা যৌতুক নিয়ে আসার জন্য চাপ সৃষ্টি করেন।সময়ের ব্যাবধানে চাপটা বৃদ্ধি করে শারীরিক ও মানষিক নির্যাতনে পরিনিত করেন । নির্যাতনের ধারাবাহিকতায় সিমুকে সময় অসময়ে নানান অজুহাতে জ্বালা যন্ত্রণার মধ্যেও দুই বছর সংসার জীবন অতিবাহিত করেন সিমু। নির্যাতনের ধারাবাহিকতায় ১৯ জুন লাজুকের পরিবারের পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী মধ্যযুগের কায়দায় লাজুক স্ত্রী সিমুকে টাকার চাপ দেয়।সিমু টাকা আনতে অস্বীকার করলে পরিবারের সবাই মিলে সিমুকে বেধরক মারপিট করে। মারপিটে সিমুকে মাটিতে ফেলে দিয়ে বরবরর্তার মতো সিমুর শরীরের উপর দিয়ে মোটর সাইকেল চালিয়ে শরিলের বিভিন্ন স্থান ক্ষত বিক্ষত করে রক্তাক্ত জখম করে। মিমু নির্যাতনের শিকার হয়ে জ্ঞান হারাইলে আশপাশের লোকজন জ্ঞানহীন সিমুকে উদ্ধার করে পলাশবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করিয়ে দেয়। নির্যাতিত গৃহবধুর বাবা ঠান্ডা উক্ত ঘটনায় লাজুক, আব্দুল হক, আশিক ও লাকি বেগমকে অভিযুক্ত করে সাদুল­াপুর থানায় অভিযোগ দাখিল করেছেন। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে মোস্তাফিজুর রহমান (ওসি তদন্ত )ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন ।