যার নুন খাই তার গুন্ গাই

149
রাহিন ইবনে ইব্রাহিম ||
কথায় বলে পাপকে ঘৃণা কর পাপীকে নয় ,আমি কেন জানি এ কথার সাথে একমত পোষন করতে পারিনা ,আমার মতে পাপীকে অবশ্যই ঘৃণা করতে হবে , পাপীকে তার পাপের সাজা ভোগকরতে দিতে হবে ,পাপীকে সমাজে লজ্জিত ,বঞ্চিত ,লাঞ্চিত না করলে এ সমাজ পাপ মুক্ত  হবে না ,যে সমাজে পাপির সাজা হয়না ,সে সমাজ , সে রাষ্ট্র আলোর মুখ দেখতে পারেনা, 
১৯৮৯-৯০সালে আমি ঢাকা বিশ্বিদ্যালয়ে ভর্তি পরিক্ষা দিয়েছি তখন তীব্র সরকার বিরোধী ছাত্র আনন্দোলন চলছে ,ডাকসু নির্বাচনের জন্যে পুরো ক্যম্পাস সরব ,আমি কবি জসিম উদ্দিন হলে এক বড় ভাইয়ের ২০১ রোমে দীর্ঘিন অবস্থান করেছিলাম -টি,এস,সি এবং প্রেসক্লাবের সামনে প্রতিটি আনন্দোলনে আমি অংশ নিয়েছি  ,নিজের চোখে দেখেছি কিভাবে আনন্দোলনরত ছাত্রদের উপর  পুলিশি নির্যাতন হয় ,একদিন কাঁটাবনে 
ভাগ্যক্রমে আবুবক্কর নামে এক পুলিশ অফিসারের সাথে কথা বলার সুযোগ হয় ,উনাকে বললাম ভাই ,এই যে নিঅস্র ছাত্রদের উপর আপনারা আঘত করেন ?ছাত্রদের মিছিলের উপর গাড়ী চালিয়ে পিষে মারো? এতে তোমাদের কি দয়া হয়না ? এরা তো তোমাদের সন্তানের মত , তারা তো নিয়ম মেনে আনন্দোলন করছে ,তারা তো দেশের ভালর জন্যে আনন্দোলন করছে ?গণতন্ত্রের জন্য স্বৈরাচারের বিরুদ্বে আনন্দোলন করছে ,!

সেই অফিসারটি আমাকে গর্বের সাথে বলছিল ” যার নুন  খাই তার গুন্ গাই “ 

আমরা ন্যায় অন্যায় বুঝিনা ,সরকার বেতন দেয় , সরকারের টাকায় চলি ,সরকার যা বলে তা করি ,ভাল মন্দ দেখার সময় আমাদের নাই , 
সেই দিন থেকে সরকারি চাকুরীর প্রতি আমার ঘৃণা জন্মে ছিল ,ভাবতে থাকি সরকারি যারা চাকুরী করে ,তাদের ধারনা সরকারই  তাদের মা-বাপ্ , 
জনগনের মূল্যে তাদের কাছে নাই , ঐ বেকুপরা সরকারি চাকুরী নেওয়ার সাথে সাথে  ভুলে গেছে , যে -জনগণ হল সরকারের মা-বাপ ,জনগনের টাকায় সরকার চলে ,
,তাই তারা পাপের রাজত্ব করতে থাকে ,ঘুষ আর দুর্নীতিতে জড়িয়ে তারা তাদের মা-বাবার নাম ভুলে যায়, পাপ কি বা আর পুন্য কি এ সবের ধার দ্বারেনা   ?আমি রাহিন বলি মানুষ যতদিন না , তার নিজের পাপকে ঘৃণা করতে শিখবে, তার নিজের পাপের জন্যে নিজে নিজের কাছে লজ্জিত না হবে ,ততদিন সমাজ পাপমুক্ত হবে না ,নিজ থেকে পাপের  বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষনা করতে হবে,বিশ্বাস করতে হবে পাপ কুৎসিত , পাপের  কোন রং নাই, যা মন্দ , যা খারাপ, তা অন্তর থেকে ঘৃণা করতে শিখতে হবে ,
যা অন্যায় , যা খারাপ সে যে -ই করুক তারা যেন তোমার কাছে সম্মানিত না হয়। যারা দেশ বুঝেনা , সমাজ বুঝেনা,স্বাধীনতা কি বুঝতে চায় না ,যারা ন্যায় এবং সত্যের উপাসক নয় , আমি তাদের গৃহে যেতে চাইনা , তাদের সম্মান করা তো দূরের কথা , তাদের সাথে কোন আত্বীয়তা করতে চাইনা। সে যত  বড় ক্ষমতাবান হয়না কেন? তুমি তাকে ঘৃনা করতে শেখ। মনে রাখ এরা দেশের উপাসক নয় ,এরা শাসনতন্রের মূর্খ চাকর মাত্র। 
কিছু মানুষ আছে তার নিজের একটু সুবিধা  নেওয়ার জন্যে যুক্তির মাধ্যমে মন্দ কে ভাল বলে,বিশ্বাস কর এটা হচ্ছে তার নিজের শান্তনা , জীবনে একটা শান্তনা না হলে মানুষ বাঁচেনা ,ঘুষখুর সবসময় বলে ,আমরা দুই পয়সা নেই বিনিময়ে তার উপকার করি ,বেশ্যা নারীর ও তার কাজের যুক্তি দেখায় ,ঐ ঘোষখুর , ঐ বেশ্যার এই সব যুক্তি ন্যায় বিচারের সামনে  ঠি কতে পারেনা। পরিশেষে বলি ঘোষ দুর্নীতি বা সরকারের টেক্স ফাঁকি দেওয়া এ গুলো ও মহা পাপ ,জগতের যত খারাপ কাজ এসব হচ্ছে অধমের কাজ ,  এরা সবাইকে ফাঁকি দিলেও তাঁদের নিজের চোখ কে এবং বিধাতা কে ফাঁকি দিতে পারেনা !ওদের কঠিন বিচার হবে ,তারা দুনিয়া এবং আখেরাতের জন্যে নিন্দনীয় ,তাই দয়া করে সতর্ক হোন ,লোভ , নীচতা , মন্দতা পরিহার করে সমাজকে এগিয়ে নিয়ে যান ।

০৫/০৬/২০১৯, লন্ডন
মন্তব্য
Loading...