ইস্ট লন্ডনে কিশোরের কাছে ছুরি বিক্রি।।দোকানদার ও কর্মচারিকে জরিমানা ও দন্ড

49

জিবি নিউজ।।

টাওয়ার হ্যামলেটস’ বরায় ১৮ বছরের কমবয়সী কিশোরের কাছে ছুরি বিক্রি করায় একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে আর্থিক জরিমানা এবং বিক্রয়কর্মীকে ৮০ ঘন্টা বিনা পারিশ্রমিকে কাজ করার দন্ডে দন্ডিত করেছে আদালত। কাউন্সিল এবং পুলিশের যৌথ অভিযানের সময় এক শিশুকে পরীক্ষামূলকভাবে লাইমহাউজের সালমন লেনের বাংলা বাজার ক্যাশ এন্ড ক্যারিতে কার্ভিং নাইফ বা ছুরি কেনার জন্য পাঠানো হলে, সে বিনা প্রশ্নে ছুরি কিনতে সক্ষম হয়।

১৮ বছরের নিচের বয়সী শিশুর কাছে ছুরি বিক্রি করার দায়ে অভিযুক্ত বিক্রয় কর্মী ৫৩ বছর বয়সী আব্দুল আহাদ (রেপটন স্ট্রিট, সেন্ট ডান্সটানস’) গত ৩০ এপ্রিল টেমস ম্যাজিষ্ট্রেট কোর্টে উপস্থিত হয়ে দোষ স্বীকার করে নিলে আদালত তাকে ১২ মাসের কমিউনিটি অর্ডারের অংশ হিসেবে ৮০ ঘন্টা বিনা পারিশ্রমিকে কমিউনিটির জন্য কাজ করার দন্ড দেন।

আদালত বাংলা বাজার ক্যাশ এন্ড ক্যারিকে ১,৫০০ পাউন্ড জরিমানা ও মামলার খরচ বাবদ আরো ১,৫৬৮ পাউন্ড পরিশোধের নির্দেশ দেন। এ প্রসঙ্গে মেয়র জন বিগস বলেন, আমরা এটা জানি যে, আমাদের কমিউনিটির সবচেয়ে বড় উদ্বেগের দুম্বটি বিষয় হচ্চেছ কমিউনিটি সেফটি ও অপরাধ।

এজন্য অতিরিক্ত পুলিশ অফিসার নিয়োগ করতে আমরা প্রয়োজনীয় অর্থ বিনিয়োগ করেছি। বারার রাস্তাগুলোকে অধিকতর নিরাপদ করতে আমাদের কর্মীদল পুলিশের সাথে অত্যন্ত ঘনিষ্টভাবে কাজ করছে। উল্লেখ্য, নাইফ ক্রাইম বা ছুরি চাকু দিয়ে অপরাধ সংঘটনের ঘটনা রোধ করার লক্ষ্যে গত বছরের ২০ জুলাই পরিচালিত বিশেষ অভিযানের অংশ হিসেবে পরীক্ষামূলকভাবে একজন অপ্রাপ্ত বয়স্ককে ছুরি কিনতে দোকানটিতে পাঠানো হয়েছিলো।

কেবিনেট মেম্বার ফর কমিউনিটি সেফটি, কাউন্সিলর আসমা বেগম এ প্রসঙ্গে বলেন, শিশুদের কাছে ছুরি বিক্রির পরিণাম যে অনেক খারাপ হতে পারে, সেব্যাপারে দোকান মালিকদের সচেতন থাকাটা খুবই জরুরী। রাস্তাঘাটে কোথাও ছুরি চাকু দেখতে পেলে সাথে সাথে পুলিশকে তা জানানোর জন্য আমি বারার বাসিন্দাদের প্রতি অনুরোধ জানাচ্চিছ। কেউ ছুরি বহন করছে অথবা ব্যবহার করছে দেখতে পেলে ১০১ নাম্বারে কল করে পুলিশকে অথবা ০৮০০ ৫৫৫ ১১১ না“ারে ক্রাইমস্টপার্সকে নিজের পরিচয় গোপন রেখে অবহিত করতে অনুরোধ করা হয়েছে। যে কোন জরুরী পরিস্থিতিতে সব সময় ৯৯৯ না“ারে কল করতে হবে।

মন্তব্য
Loading...