স্বৈরশাসক ধাঁচে চলেন মোদি-মমতা: রাহুল

70

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি স্বৈরশাসক স্টাইলে চলেন। উভয় নেতাই জনগণকে মিথ্যা প্রতিশ্রতি দিচ্ছেন। জনগণের কথা কেউই শোনেন না।

শনিবার পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মালদহের চাঁচলে এক নির্বাচনী সভায় এভাবেই মোদি ও মমতাকে বিদ্ধ করলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। ২০১৬ সালের এপ্রিলের পর এটাই পশ্চিমবঙ্গে রাহুলের প্রথম নির্বাচনী সমাবেশ। খবর দ্য হিন্দুস্তান টাইমসের।
এদিন দুপুরে বিহারে জনসভা করার পর মালদহের চাঁচলে আসেন রাহুল। এ সভামঞ্চে উপস্থিত ছিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র, দীপা দাসমুন্সি, আবু হাসেন খান চৌধুরী, মালদহ উত্তরের কংগ্রেস প্রার্থী ঈশা খান চৌধুরী, গৌরব গগৈসহ নেতাকর্মীরা। চাঁচলের সভায় একই সঙ্গে মোদি ও মমতাকে নিশানা বানান রাহুল। উভয়ের শাসন ব্যবস্থাকে স্বৈরতান্ত্রিক বলে অভিযোগ তোলেন তিনি।

কংগ্রেস সভাপতি বলেন, ‘একদিকে নরেন্দ্র মোদি মিথ্যা বলেন। অন্যদিকে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী প্রতিশ্রুতির পর প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু এখানে কিছুই হওয়ার নয়। বাংলায় একনায়কতন্ত্র চলছে, জনগণের কথা কেউ শোনে না।’

একই সঙ্গে তার প্রশ্ন, ‘একজনের কথায় কি সব চলবে? কারও কথা শোনা হবে না? মোদি-মমতা কারও কথা শোনে না। কৃষকরা ঋণ মওকুফের দাবি তোলেন, মানেন না মোদি-মমতা।’

তিনি আরও বলেন, ‘আগে আপনারা বামফ্রন্টের হাতে মার খেতেন। এখনও মমতা ব্যানার্জির তৃণমূল কংগ্রেসের রাজত্বে আপনারা দুঃখে আছেন।’ প্রধানমন্ত্রী মোদিরও তীব্র সমালোচনা করেন রাহুল।

তার কথায়, ‘বিজেপি-আরএসএস যেখানেই যায় সেখানেই ঘৃণার রাজনীতি করে। সারা দিন মিথ্যা বলেন নরেন্দ্র মোদি। সাধারণ মানুষের টাকা চুরি করে অনিল আম্বানির পকেটে ভরেন মোদি।’

পাশাপাশি কংগ্রেস কর্মীদের উদ্দেশ্য করে রাহুল বলেন, ‘এখানে আমাদের পুরনো প্রার্থী আপনাদের ধোকা দিয়েছেন, কংগ্রেসের দুর্গে এসে কংগ্রেসকে ধোকা দিয়েছেন। এ ধোকা আপনারা ভুলবেন না।

আপনারা মমতাকে জেতালেন। যে অত্যাচার সিপিএমের (কমিউনিস্ট পার্টি মার্কসিজম) সময়ে হতো, আজও সেই অত্যাচার চলছে।’ ২০১৪ সালের নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গের ৪২টি আসনের মধ্যে মাত্র ৬টিতে জয় পেয়েছিল কংগ্রেস।

ওয়ানাদেও লড়বেন রাহুল : লোকসভায় উত্তরপ্রদেশের আমেথি শুধু নয়, কেরালার ওয়ানাদ আসন থেকেও লড়বেন রাহুল গান্ধী। কেরালা কংগ্রেস সূত্র শনিবার এ খবর দিয়েছে।

এনডিটিভি জানায়, কেরালা ছাড়াও কর্নাটক ও তামিলনাড়ু রাজ্যের আসন থেকে প্রার্থী হওয়ার জন্য রাহুলকে অনুরোধ জানানো হয়। তামিলনাড়ু কংগ্রেস কমিটি কন্যাকুমারী থেকে রাহুলকে লড়াইয়ের প্রস্তাব দিয়েছিল। কিন্তু তা আর হচ্ছে না।

কারণ ওই আসনে এমএলএ এইচ বসন্তকুমারকে প্রার্থী করেছে কংগ্রেস। কেরালা কংগ্রেস কমিটি বলছে, রাজ্য থেকে প্রার্থী হওয়ার জন্য আমাদের কথা দিয়েছেন রাহুল। দলের মুখপাত্র রণদীপ সূর্যেওয়ালা বলেন, কেরালা কংগ্রেসের প্রস্তাবটি বিবেচনা করে দেখছেন রাহুল।

মন্তব্য
Loading...