নিপীড়নের মাধ্যমে অভিবাসন প্রত্যাশীদের বিকলাঙ্গ করছে ফ্রান্স

112

জিবি নিউজ24 ডেস্ক //

নানা ধরনের নিষ্ঠুরতা ও নিপীড়নের মাধ্যমে অভিবাসন প্রত্যাশীদের বিকলাঙ্গ করছে ফ্রান্স। ছাড় দেয়া হচ্ছে না শিশু ও নারীদেরও।

ভয়ঙ্কর এ তথ্য উঠে এসেছে একটি রিপোর্টে। শরণার্থীদের সহায়তা ও তাদের অধিকার নিয়ে কাজ করছে- এমন চারটি সংগঠনের সমন্বিত এক রিপোর্টে ফ্রান্সের দুটি শরণার্থী শিবির কালাইস ও ডানকার্কে ফরাসি নিরাপত্তা বাহিনীর মানবাধিকার লঙ্ঘনের এ চিত্র উঠে এসেছে। ‘পুলিশ ভায়োলেন্স ইন কালাইস : আবিউসিভ অ্যান্ড ইলিগাল প্র্যাকটিসেস বাই ল’ এনফোর্সমেন্ট অফিসার্স’ শীর্ষক রিপোর্টটি বুধবার প্রকাশিত হয়।

রিপোর্টে প্রকাশ, অসহায় শরণার্থী ও রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থীদের ওপর পরিকল্পিতভাবে অমানবিক নিষ্ঠুরতা চালাচ্ছে ফ্রান্স। এসব নিষ্ঠুরতায় কারো চোখ অন্ধ হচ্ছে, কেউ বা বধির হয়ে যাচ্ছে। আবার কাউকে হাত-পা ভেঙে খোঁড়া করে দিচ্ছে।

গত কয়েক বছরে আফ্রিকার বিভিন্ন দেশ থেকে প্রধানত ফ্রান্সের উপকূলীয় বন্দর এলাকা কালাইস ও ডানকার্কে বসতি গেড়েছিল কয়েক হাজার অভিবাসনপ্রত্যাশী। কিন্তু এসব আশ্রয়প্রার্থীদের উচ্ছেদে স্থানীয়ভাবে জরুরি অবস্থার ঘোষণা করে ফ্রান্স। ২০১৬ সালের শেষের দিকে উচ্ছেদ অভিযান শুরু হয়ে আজও অব্যাহত রেখেছে নিরাপত্তা বাহিনীগুলো। অভিযানে পুলিশে বিরুদ্ধে অতিরিক্ত বল প্রয়োগ করে সুপরিকল্পিতভাবে শরণার্থীদের বিকলাঙ্গ করার অভিযোগ ওঠে শুরু থেকেই।

এভাবে হাজার হাজার অভিবাসন প্রত্যাশীকে বিকলাঙ্গ করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

রিপোর্টে অভিযোগ করা হয়েছে রীতিমতো ‘বিকলাঙ্গ নীতি’ গ্রহণ করেছে দেশটির পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনী। এক্ষেত্রে কখনও পেপার স্প্রে-রাসায়নিক পদার্থ, কখনও কাঁদানে গ্যাস আবার কখনও লাঠি ব্যবহার করছে তারা।

মন্তব্য
Loading...